শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ৩ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ এপ্রিল, ২০২০ ২৩:৪৮

তীব্র আর্থিক সংকটে বস্ত্র খাত, ৫ দাবি জানাল বিটিএমএ

নিজস্ব প্রতিবেদক

তীব্র আর্থিক সংকটে বস্ত্র খাত, ৫ দাবি জানাল বিটিএমএ

করোনাভাইরাসের আগ্রাসী থাবায় সুতা ও কাপড় বিক্রি করতে না পেরে বস্ত্র খাতে তীব্র তারল্য সংকট হওয়ার তথ্য দিয়েছে বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস অ্যাসোসিয়েশন (বিটিএমএ)। সংগঠনটি বলেছে, টেক্সটাইল মিলগুলো বকেয়া অর্থ আদায় করতে পারছে না। প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকার বেশি সুতা ও কাপড় মজুদ রয়েছে। এই পণ্য বিক্রি করতে না পারায় অর্থ সংকট তীব্র হয়েছে। পরিস্থিতি উত্তরণে সরকারের কাছে ৫ দফা দাবি জানিয়েছে বিটিএমএ। গতকাল গণমাধ্যমে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলেন বিটিএমএ সভাপতি মোহাম্মদ আলী খোকন। তিনি সরকারের কাছে ৫ দফা দাবি তুলে ধরে বলেন,  চলতি বছর ২০ মার্চ থেকে ৩০ জুন ২০২০ পর্যন্ত যে কোনো ধরনের সুতা ও কাপড়ের ওপর আরোপিত ভ্যাট প্রত্যাহার করা হোক।

বিদ্যমান টার্ম লোনের সুদ ছয় মাসের জন্য মওকুফ করতে হবে। উল্লিখিত সময়ের গ্যাস, বিদ্যুৎ বিলের অর্থ পরবর্তী ১২ মাসের সমান কিস্তিতে সুদ, ভ্যাট ও সারচার্জ ছাড়াই পরিশোধের সুযোগ দিতে হবে। টেক্সটাইল ডায়িং ফিনিশিং এ  ব্যবহারের জন্য সব ধরনের রং রসায়নের ওপর যাবতীয় শুল্ক ও কর প্রদান ছাড়াই আমদানির সুবিধা দিতে হবে। চট্টগ্রাম বন্দরসহ দেশের সব বন্দরে সব ধরনের কাঁচামালসহ অন্যান্য পণ্যের বন্দর অতিরিক্ত ফি মওকুফ করতে হবে।

বিটিএমএ বলেছে,  করোনাভাইরাসের কারণে পয়লা বৈশাখের কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে অবস্থিত সুতা ও কাপড়ের মোকামগুলো বন্ধ। বিপুল পরিমাণ অর্থ বকেয়া। বৈশাখ চিরাচরিত প্রাণের উৎসব। এই উৎসব ঘিরে স্থানীয় টেক্সটাইল মিলগুলোতে প্রাণচাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়। দেড় হাজার কোটি টাকার এই বাজারটিও নিশ্চিতভাবে হাতছাড়া গেছে।


আপনার মন্তব্য