শিরোনাম
প্রকাশ : ৩০ জুলাই, ২০২০ ১৬:৫৩

দেশকে ভালোবেসে মানুষের পাশে দাঁড়ায় চট্টগ্রামের মেয়ে জিনাত সোহানা চৌধুরী

হাসিনা আকতার নিগার

দেশকে ভালোবেসে মানুষের পাশে দাঁড়ায় চট্টগ্রামের মেয়ে জিনাত সোহানা চৌধুরী
জিনাত সোহানা চৌধুরী

একটা বৈরী পরিবেশ চারদিকে। মুক্ত আকাশে প্রাণ ভরে নিঃশ্বাস নিতে প্রাণ চায়। কিন্তু করোনাভাইরাস সে পথ রুদ্ধ করে দিয়েছে। দেশের মানুষ ভালো না থাকলে দেশ ভাল থাকে না। গত মার্চ মাস থেকে অদৃশ্য ভাইরাস কেড়ে নিচ্ছে অনেক প্রাণ। আপনজন হারানোর যন্ত্রণার পাশাপাশি রোগ আতংক সবার মাঝে। করোনাভাইরাস মানুষকে অনেক সত্যের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দিয়েছে। 

একদিকে রোগের চিকিৎসা নিয়ে দিশেহারা মানুষ। অন্যদিকে চিকিৎসা খাতের অনিয়ম দুর্নীতি জন্ম দিয়েছে নানা প্রশ্নের। সে দুর্নীতিতে উঠে এসেছে পুরুষের সাথে নারীর নাম। মানবসেবার নামে মিথ্যা রিপোর্ট দিয়ে কোটি কোটি টাকা লুটপাট করে দেশের সুনাম বিনষ্ট করেছে দুর্নীতিবাজরা। নারী হিসাবে নারীদের অপকর্মে লজ্জিত হতে হয় কন্যা জায়া জননীকে।      

করোনাভাইরাস মানুষকে হয়ত বদলাতে পারেনি। কিন্তু চিকিৎসা খাতের অনিয়মকে উন্মোচন করে দিয়েছে এ ভাইরাস। দেশের মানুষ কতটা অসহায় তার প্রমান করোনাভাইরাসের সময়কাল। সারাদেশের মানুষের মত চট্টগ্রামবাসীও করোনাভাইরাসের চিকিৎসা নিয়ে বিপাকে। এ ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তি একটু অক্সিজেনের আশায় বা চিকিৎসা সেবা পেতে হাসপাতালের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়িয়েছে। রাস্তায় প্রাণ চলে গেছে অনেকের। 

চট্টগ্রামে ঢাকার মত চিকিৎসা ব্যবস্থা নেই। আর কোভিড-১৯ এর চিকিৎসা দেয়ার মত যথেষ্ট  ব্যবস্থাপনা ছিল না সরকার নির্ধারিত হাসপাতাল গুলোতে। কিন্তু কোভিড-১৯ এর উদ্দামতাকে থামাতে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে চট্টগ্রামের মেয়ে জিনাত সোহানা চৌধুরী। তার অদম্য সাহসিকতার গল্প যদিও নতুন কিছু নয়। জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে তিনি কথা বলেন চট্টগ্রামের সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে। অন্যায়ের প্রতিবাদ করেন বঙ্গবন্ধুর আর্দশ ও প্রেরনাকে ধারণ করে। বেসরকারি কারা পরিদর্শকের পাশাপাশি কর্মজীবনে আইন পেশাতে ব্যস্ত থাকেন জিনাত সোহানা চৌধুরী। 

করোনার সংকটময় মুহূর্তে চট্টগ্রামের মানুষের জন্য একটা হাসপাতাল কতটা দরকার তা অনুধাবন করতে পেরেছিলেন জিনাত সোহানা চৌধুরী। তাই রাজনৈতিক সহযোদ্ধাদের সাথে নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েন অস্থায়ী হাসপাতাল তৈরিতে। জিনাত সোহানারা রাত দিন পরিশ্রম করে স্বল্প সময়ে নগরবাসীকে উপহার দেন হালিশহর করোনা আইসোলেশন সেন্টার। যেখানে কোভিড ১৯ এর রোগীরা পায় আস্থাপূর্ণ সেবা।   

চট্টগ্রামের সরকার বেসরকারি হাসপাতালের চিকিৎসা ব্যবস্থাতে নানা ধরনের রাজনৈতিক অস্থিরতা, মত বিরোধ রয়েছে। যা করোনাকালীন সময়ে আরো বেশি সমস্যা তৈরি করে। জিনাত সোহানা চৌধুরী এ সংকটময় পরিস্থিতিতে মানুষের সেবাকে প্রাধান্য দিয়েছেন। তিনি পরিবার পরিজন ও নিজের জীবনে কোভিড ১৯ এর ঝুঁকিকে উপেক্ষা করে মানুষের পাশে দাঁড়ান। করোনা আইসোলেশনের মুখপাত্র হয়ে কাজ করেছেন একদল তরুণদের সাথে নিয়ে। যারা চিকিৎসক বা নার্স না হয়েও ফ্রন্ট লাইনের যোদ্ধা হিসাবে কাজ করছে এ আইসোলেশন সেন্টারে।
 
দেশের জন্য ভালোবাসা মানুষকে আবেগতাড়িত করে। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য যে, বাংলাদেশে এখন দেশ প্রেমিকরা অবমূল্যায়িত। তবে জিনাত সোহানা চৌধুরীর মত সাহসী নারীদের কাছে এ বাংলার মাটি ও মানুষরা প্রাণের চেয়ে প্রিয়। তাই তারা করোনা ভাইরাসের ভয়ে ঘরে বসে থাকতে পারে না। ছুটে যায় অসুস্থ রোগী কাছে। ভালোবাসা আর মমতার হাতে চেষ্টা করে প্রাণকে বাঁচিয়ে রাখতে।  আর জিনাত সোহানা চৌধুরীরা আছে বলেই মানুষ এক স্বরে গাইতে পারে সেই গান- 'আমরা করব জয়। "

লেখক: কলাম লেখক 

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন


আপনার মন্তব্য