শিরোনাম
প্রকাশ : ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:৫২

নিউইয়র্কে গভীর শ্রদ্ধায় শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণ

এনআরবি নিউজ, নিউইয়র্ক থেকে :

নিউইয়র্কে গভীর শ্রদ্ধায় শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণ
মোমবাতি প্রজ্জ্বলন

আলোক শোকযাত্রা আর মোমবাতি প্রজ্জ্বলনের মধ্যদিয়ে নিউইয়র্কে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের আত্মত্যাগকে গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করা হলো। শনিবার প্রথম প্রহরে জ্যাকসন হাইটসের পালকি পার্টি সেন্টারে উত্তর আমেরিকার সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আয়োজনে ‘শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস প্রদীপ শোকযাত্রা’ শিরোনামে শহীদদের স্মরণ করা হয়।

একাত্তরের বাঙালি জাতির শোকাবহ এই বিপর্যয়ের দিনটিকে স্মরণ করার জন্য টানা ২১ বছর ধরেই জোটের উদ্যোগে এমন কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে সুদূর প্রবাসেও। জোটের প্রধান মিথুন আহমেদের সার্বিক সমন্বয়ে একাত্তরের শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণের পাশাপাশি ঘাতকদের মধ্যে যারা এই প্রবাসে ঘাপটি মেরে রয়েছে তাদেরকে চিহ্নিত এবং বাংলাদেশে চলমান বিচারে সোপর্দ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করা হয়েছে।

নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল সাদিয়া ফয়জুননেসা বলেন, প্রবাস প্রজন্মকে একাত্তরের ভয়াবহতা সম্পর্কে আরও বেশি করে জানাতে হবে। ঘাতকরা কীভাবে মুক্তিপাগল বাঙালির উপর ৯ মাস বর্বরতা চালিয়েছে ও মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছে। সে তথ্য নতুন প্রজন্ম না জানলে আমরা এবং আপনারা যখন থাকবো না তখন এই দিবস বয়ে নেবে কে? 

সাদিয়া আরও উল্লেখ করেন, আমরা-আপনারা সবাই জানি এই প্রবাসে একাত্তরের ও শহীদ বুদ্ধিজীবীদের ঘাতকরা কে কোথায় লুকিয়ে আছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে যারা বিশ্বাস করে না, তাদের অবস্থান চিহ্নিত করতে হবে। তাহলেই শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি যথার্থ সম্মান প্রদর্শন করা সম্ভব হবে।

স্মরণ সভায় বক্তারা বলেন, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায়ের জন্যে চলমান কার্যক্রমে সকলকে মনোযোগী হতে হবে। একাত্তরের সূর্যসন্তানদের ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত লাল-সবুজের পতাকা সমুন্নত রাখতে হবে। এছাড়া মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এগিয়ে চলা বাংলাদেশের ইমেজ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আরো মহিমান্বিত করার মধ্যদিয়েই শহীদের প্রতি যথাযথ সম্মান জানানো সম্ভব হবে বলে মন্তব্য করেন বিশিষ্টজনেরা। এ সময় শহীদ সন্তান (শহীদ সাংবাদিক সিরাজউদ্দিন হোসেনের পুত্র) তৌহিদ রেজা নূরের নেতৃত্বে ‘মুক্তির মন্দির সোপান তলে কত প্রাণ হলো বলিদান’ গানটি সমস্বরে পরিবেশিত হয়।

এবারের কর্মসূচিতে বিশিষ্টজনদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের ফার্স্ট সেক্রেটারি (প্রেস) নূর এলাহী মিনা, শহীদ সাংবাদিক সিরাজউদ্দিন হোসেনের পুত্র ফাহিম রেজা নূর, যুক্তরাষ্ট্র সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা রাশেদ আহমেদ, নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাকারিয়া চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মাসুদুল হাসান, কবি মিশুক সেলিম, কমিউনিটি অ্যাক্টিভিস্ট মঞ্জুর চৌধুরী, স্বীকৃতি বড়ুয়া, শরাফ সরকার, মোর্শেদ আলম, নাসিমুন্নাহার নিনি, গোপন সাহা, সুব্রত বিশ্বাস, মিনহাজ সাম্মু, সেমন্তী ওয়াহেদসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার প্রবাসীরা। বৈরী আবহাওয়া সত্ত্বেও উপস্থিতিতে কোনও কমতি ছিলো না এ আয়োজনে। 

বিডি-প্রতিদিন/শফিক


আপনার মন্তব্য

close