শিরোনাম
প্রকাশ : ২১ অক্টোবর, ২০২০ ১৮:০৮
আপডেট : ২১ অক্টোবর, ২০২০ ১৮:১৫

অ্যাঞ্জেলাস সেন্ট্রাল ইউরোপিয়ান সাহিত্য পুরস্কারে ভূষিত ভয়ানোভিচ

রাকিব হাসান রাফি, স্লোভেনিয়া

অ্যাঞ্জেলাস সেন্ট্রাল ইউরোপিয়ান সাহিত্য পুরস্কারে ভূষিত ভয়ানোভিচ

স্লোভেনিয় ঔপন্যাসিক গোরান ভয়ানোভিচ অ্যাঞ্জেলাস সেন্ট্রাল ইউরোপিয়ান সাহিত্যে পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। অ্যাঞ্জেলাস সেন্ট্রাল ইউরোপিয়ান সাহিত্যে পুরস্কারকে মধ্য ইউরোপসহ সমগ্র ইউরোপে সাহিত্য বিষয়ে সবচেয়ে সম্মানজনক পুরস্কারগুলোর মধ্যে একটি হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

গোরান ভয়ানোভিচ ২০১৩ সালে রচিত উপন্যাস ‘যুগোস্লাভিয়া, মাই ফাদারল্যান্ড’ (স্লোভেনিয় ভাষায় ইয়ুগোস্লাভিয়া, মোয়া ডেজেলা) এর জন্য এ পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন।

প্রত্যেক বছর পোল্যান্ডের অন্যতম প্রসিদ্ধ নগরী রোকলো থেকে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়। সমসাময়িক কোনো বিষয়ের প্রেক্ষাপটে রচিত সাহিত্যকর্মের ওপর ভিত্তি করে এ পুরস্কার প্রদান করা হয়। পুরস্কারের অর্থমূল্য প্রায় দেড় লাখ পালিশ জোলিটি বা ৩৩,০০০ ইউরো। এছাড়াও উক্ত উপন্যাসের পোলিশ ভাষান্তরের জন্য অনুবাদক জোয়ানা পোমোরস্কাকে ২০,০০০ জোলিটির চেক প্রদান করা হয়।

পোর্টাল পোলিশ নিউজ অনুসারে, চূড়ান্ত পর্যায়ে মনোনয়নের জন্য ১০৫টি সাহিত্যকর্মের মধ্য থেকে সাতটি নির্বাচিত করা হয়।

মাইকোলা রিয়াবজুক, যিনি এবারের আসরের অন্যতম প্রধান নির্বাচক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন তার দেওয়া এক বিবৃতি অনুযায়ী, মধ্য ইউরোপের কোনো অঞ্চলের সাথে সম্পৃক্ততা বিশেষ করে এ অঞ্চলের ইতিহাস, ঐতিহ্য কিংবা অন্য কোনো বিষয়ের সাথে সংশ্লিষ্টতার ওপর ভিত্তি করে চূড়ান্ত পর্বের জন্য সাহিত্যকর্মগুলো নির্বাচন করা হয়েছিল।

চার সদস্যের সমন্বয়ে গঠিত বিচারক কমিটি শেষ পর্যন্ত এ সাতটি সাহিত্যকর্মের ভেতর থেকে দুইটিকে বেছে নেয়, যে দুইটি যুদ্ধের পটভূমিতে রচিত। সেখানে চারজনের মধ্য থেকে তিনজনই ভোটের মাধ্যমে এবারের আসরের সেরা সাহিত্যকর্ম হিসেবে গোরান ভয়ানোভিচ রচিত এ উপন্যাসকে নির্বাচিত করার জন্য রায় প্রদান করেন।

ভিডিও কলের মাধ্যমে শনিবার এবারের আসরের অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া ভয়ানোভিচ বলেছেন, এটি তার জীবনের স্মরণীয় অর্জনগুলোর মধ্যে একটি।

পাশপাশি তিনি জানিয়েছেন, অতীতে যে সকল সাহিত্যিক এ ধরনের পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন কিংবা যারা এ পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছিলেন, তাদের লেখার সামান্য এক পাঠক ছিলেন তিনি। কিন্তু এ বছর তাদের ন্যায় এ ধরনের অর্জনের অংশ হতে পারায় তিনি গর্ববোধ করছেন।

উপন্যাসটিতে মূলত এক যুবককে কেন্দ্র করে রচিত, যিনি যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে দণ্ডিত বাবার সন্ধানে বের হয়েছেন। এর আগে, ২০১৩ সালে সেরা স্লোভেনীয় উপন্যাস হিসেবে ‘ইয়ুগোস্লাভিয়া, মোয়া ডেজেলা’ ক্রেস্নিক পুরস্কার পেয়েছিল।

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর