শনিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

পর্তুগালে সিটি নির্বাচনে দুই বাংলাদেশি

শনিবারের সকাল ডেস্ক

পর্তুগালে সিটি নির্বাচনে দুই বাংলাদেশি

বিশ্বের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে আছেন অসংখ্য বাংলাদেশি। তাদের অনেকেই শিক্ষকতা, রাজনীতি, উদ্যোক্তা, গবেষণা, উদ্ভাবন এমন অনেক পেশার সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডাসহ বিভিন্ন দেশের জাতীয় সংসদে প্রতিনিধিত্ব করছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নাগরিকরা। তাদের এই অগ্রযাত্রা বয়ে আনছে দেশের সুনাম।

এরই ধারাবাহিকতায় পর্তুগালে আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে রাজধানী লিসবনে রানা তসলিম উদ্দিন এবং দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর বন্দরনগরী পোর্তোতে শাহ আলম কাজল নামে দুই বাংলাদেশি ক্ষমতাসীন পর্তুগিজ সোশ্যালিস্ট পার্টি থেকে গুরুত্বপূর্ণ পদে প্রার্থী হয়েছেন।

রানা তসলিম উদ্দিন ২০০৭ সালে পর্তুগিজ সোশ্যালিস্ট পার্টিতে যোগ দেন। এই প্রথম কোনো অভিবাসী বাংলাদেশি পর্তুগালের স্থানীয় সরকার তথা সিটি করপোরেশনের অ্যাসেম্বলি সদস্য পদে মনোনয়ন পেয়েছেন। আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর লিসবনসহ পর্তুগালের ১০টি সিটি করপোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

লিসবন সিটি করপোরেশনের অ্যাসেম্বলিতে মোট ৭৫টি আসন রয়েছে। যার মধ্যে ২৪টি আসন সংরক্ষিত থাকে জুন্তার বা কাউন্সিল প্রেসিডেন্টের জন্য, যারা পদাধিকার বলে সদস্য হন। বাকি ৫১টি আসনের মধ্যে ৫০ শতাংশ নারী ও ৫০ শতাংশ পুরুষ সদস্য। সে হিসাবে ২৬ জন পুরুষ সদস্যের মধ্যে পর্তুগাল সোশ্যালিস্ট পার্টি থেকে বাংলাদেশি বংশো™‚¢ত রানা তসলিম উদ্দিন একজন প্রার্থী হিসেবে মনোনীত হয়েছেন।

বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ ইসলামিক সেন্টার ও পর্তুগাল বাংলাদেশ মৈত্রী সমিতির সভাপতি এবং অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের সহসভাপতি। এদিকে বন্দরনগরী পোর্তোর সিটি নির্বাচনে অংশ নেবেন সোশ্যালিস্ট পার্টির মহানগরের সদস্য শাহ আলম কাজল।

পোর্তোতে বসবাসকারী বাংলাদেশ কমিউনিটি পোর্তোর সভাপতি শাহ আলম কাজল  বাংলাদেশি অধ্যুষিত ফ্রেগজিয়া বনফিমের অ্যাসেম্বলি সদস্য বা কাউন্সিলর হিসেবে ৩ নম্বর পদে সোশ্যালিস্ট পার্টির পক্ষে নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন।

শাহ আলম কাজল এক লিখিত বার্তায় জানান, আমরা এই ক্ষুদ্র প্রয়াসের মাধ্যমে নতুন প্রজন্মের কাছে একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চাচ্ছি; যাতে এই পথ অনুসরণ করে বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে পারি। তাছাড়া তিনি সে দেশের বাংলাদেশ কমিউনিটির সব ভোটারের ২৫ সেপ্টেম্বর নির্বাচনে ভোট প্রদান করে তার বিজয়ের মাধ্যমে বাংলাদেশকে তুলে ধরতে আহ্‌বান জানান।

এই দুই প্রার্থী যদি নির্বাচিত হন তাহলে পর্তুগালের ইতিহাসে দুই শহরে দুজন বাংলাদেশি ইতিহাসের পাতায় নাম লেখাবেন। এ প্রসঙ্গে রানা তসলিম উদ্দিন বলেন, লিসবন মিউনিসিপ্যালিটির যে পদবিতে তিনি প্রার্থী হয়েছেন যাতে এর আগে কোনো বাংলাদেশি প্রার্থী হননি। তার বিজয় পর্তুগালে বাংলাদেশিদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক হিসেবে কাজ করবে। তারা মনে করেন, পর্তুগালের জাতীয় রাজনীতিতে তাদের অংশগ্রহণে সেখানে বসবাসরত প্রবাসীদের তথা বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র রানা তসলিম উদ্দিন ১৯৯১ সালে পর্তুগাল যান।