শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২৩:১৭

চলে গেলেন ক্রিকেট গুরু

ক্রীড়া প্রতিবেদক

চলে গেলেন ক্রিকেট গুরু
আলতাফ হোসেন (জন্ম : ১৯৩৮-মৃত্যু ২০১৯)

সৈয়দ আলতাফ হোসেন; বাংলাদেশ ক্রিকেটের সুপরিচিত এক নাম। পাকিস্তান টেস্ট দলে ডাক পাওয়া বাংলাদেশের প্রথম ক্রিকেটার। টেস্ট খেলার সামর্থ্য পুরোপুরি ছিল তার। অথচ পাকিস্তানি নির্বাচকদের উপেক্ষায় সুযোগ পাননি ১৯৬৫ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট খেলার। মূল জাতীয় দলে না খেললেও কায়দে আজম ট্রফিতে পূর্ব পাকিস্তান দলের মূল স্ট্রাইক বোলার ছিলেন দীর্ঘদেহী আলতাফ। জাতীয় দলের সাবেক পেসার ক্যারিয়ার শেষে ক্রিকেটার গড়ার কাজে মনোনিবেশ করেন পুরোপুরি। বাংলাদেশের বহু ক্রিকেটারের ক্রিকেট গুরু সৈয়দ আলতাফ হোসেন মঙ্গলবার রাত ১১টায় সবাইকে কাঁদিয়ে চলে গেছেন অজানার দেশে (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজেউন)। মৃত্যুকালে দেশের প্রথম ক্রিকেট গুরুর বয়স হয়েছিল ৮১। সাবেক ক্রিকেটার, দেশের ক্রিকেট কোচিংয়ের পথ প্রদর্শক ও অগ্রদূত এবং জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার প্রাপ্ত আলতাফের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত নাজিম উদ্দিন রোডের হোসেনি দালান মসজিদে বাদ যোহর। দুপুর সাড়ে ৩টায় দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয় জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ চত্বরে।

আলতাফের জন্ম ১৯৩৮ সালে পশ্চিমবঙ্গের হুগলিতে। তার বাবা কাজ করতেন ব্রিটিশ ইন্ডিয়া শিপিং কোম্পানিতে। ১৯৪৭ সালের দেশ ভাগের পর হিন্দু-মুসলিম সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় হারান দুই ভাইকে। এরপর মায়ের সঙ্গে চলে আসেন বাংলাদেশে। এখানে এসে ক্রিকেট খেলা শুরু করেন এবং কায়দে আজম ট্রফিতে প্রথম খেলেন ১৯৫৪ সালে। ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলেছেন মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব, ওয়ান্ডারার্স, পিডব্লিউডি, ইস্ট পাকিস্তান জিমখানা ও শান্তিনগর ক্লাবে। ক্রিকেটের বাইরে তিনি খেলেছেন ফুটবল ও বাস্কেটবলও।  ১৯৮২ সাল পর্যন্ত ক্রিকেট খেললেও আম্পায়ারিং শুরু করেন ১৯৭০ সালে। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের ক্রিকেট কোচ নিযুক্ত হন ১৯৭৬ সালে। দায়িত্ব পালন করেন ২০০১ সাল পর্যন্ত।  ১৯৮৬ সালে তার কোচিংয়েই শ্রীলঙ্কায় বাংলাদেশের ওয়ানডে অভিষেক হয়। ১৯৯০ সালে এশিয়া কাপেও কোচ ছিলেন। জাতীয় দলের বাইরে তিনি মহিলা ক্রিকেট দলের কোচও ছিলেন আলতাফ। ১৯৯৭ সালে মহিলা ক্রিকেট দলের কোচ হলেও ১৯৮৩ সালে আবাহনী মহিলা দল নিয়ে কলকাতা সফর করেন। ঘরোয়া ক্রিকেটে তিনি কোচিং করিয়েছেন বিমান, ভিক্টোরিয়া, লালমাটিয়া, মোহামেডানসহ বেশ কয়েকটি ক্লাবকে। ক্যারিয়ার শুরুর পর কোচিং কোর্স করেন ভারতের পাতিয়ালার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব স্পোর্টস থেকে। এরপর তিনি ইংল্যান্ড থেকেও কোচিং কোর্স করেন। ২০০৯ সালে মেনিনজাইটিসে আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টা কোমায় ছিলেন্ এরপর ফিরে আসলেও এবার মৃত্যুকে বরণ করে নিতেই হয়েছে সৈয়দ আলতাফকে।


আপনার মন্তব্য