Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০২
নারীরা কেন ভিকটিম হয়?
তৌহিদুল হক
নারীরা কেন ভিকটিম হয়?
bd-pratidin

নির্যাতনের বিভিন্ন ঘটনা পত্রপত্রিকায় খবর হয়। এ খবর ব্যক্তির জন্য বিষাদের, সমাজ ও রাষ্ট্রের মানবিক চেহারা ম্লান করে দেয়। নির্যাতনের মধ্য দিয়ে একজন ব্যক্তি, তার পরিবার, আত্মীয়স্বজন গভীর ক্ষত অনুভব করে, দৈনন্দিন জীবনের রুটিনে আসে পরিবর্তন। সমাজ অনেক সময় বাঁকা চোখে তাকায়। কেউ এগিয়ে আসে, আবার যারা এগিয়ে ছিল তারা পিছিয়ে যায়। আর এই নির্যাতন যদি নারী নির্যাতন হয়, তবে পুরুষশাসিত সমাজে এটি শৌর্যবীর্যময় কাজ! বাংলাদেশে নারীরা কখনো নির্যাতিত হয়েছে পরনির্ভরশীল মানসিকতা ও আচরণের কারণে, কখনো নির্যাতনের সংস্কৃতি চলমান থাকার কারণে। একজন ব্যক্তি যখন নির্যাতিত হয়, কোনো কোনো নির্যাতনের ক্ষত সারাতে বাকি জীবনটা লেগে যেতে পারে। বিশ্বায়নের ভরা মৌসুমে মানবিকতা, সমদৃষ্টি প্রদর্শন প্রভৃতি প্রত্যয়ের উচ্চারণ যতটা আরাম দেয়, বাস্তব বিচার যে কষ্টের পরিমাণ কোনো অংশে কম নয়। সময়ের প্রেক্ষাপটে মানুষের অনুভূতি, অধিকার, নিরাপত্তার বিষয়গুলো যত বেশি আলোচিত ও পুনঃ সংজ্ঞায়িত হয়েছে, মানুষের জীবনবোধ ততই নরম হয়েছে, তবে এই নরম ও সহজ-সরল বোধের মধ্যে জীবনের বিভিন্ন পর্যায়ে ব্যক্তির বিপর্যস্ততা বেড়েছে। সমাজ ও রাষ্ট্রের গ-ির মধ্যে নারীর অবস্থা এখনো প্রায় উন্নত বলা চলে। বাংলাদেশে নারীরা ব্যক্তিকেন্দ্রিক প্রতিবন্ধকতা কিংবা সমাজ-রাষ্ট্রের জেন্ডারভেদে সমদায়িত্বশীল মনোভাবের প্রেক্ষাপটে নারীরা বিভিন্নভাবে নির্যাতিত হচ্ছে। অধিকার হারাচ্ছে, এমনকি আত্মহত্যা বা মৃত্যুর দিকে নিজেদের এগিয়ে দিচ্ছে। এই মৃত্যু আপনজন, পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ব্যক্তির নীরব বিপ্ল­ব বা বিদ্রোহ। বাংলাদেশে নারীরা সমাজের দৃষ্টি কিংবা ধর্মীয় অনুশাসন যেভাবে হোক নিজেদের বিষয়গুলো নিয়ে জোরালো প্রতিবাদ বা নিজের অবস্থানের পাকাপোক্ত জানান দিতে পারছে না। এই না পারার কারণে তারা বিভিন্নভাবে ভিকটিম হচ্ছে। কারণ সমাজজীবনে তাদের অবস্থান ও পরিচিতি শক্ত না হওয়ায় তাদের ওপর অনেক কিছু চাপিয়ে দেওয়া হয়। আমাদের দেশে একজন নারী নির্যাতনের শিকার হলে কী উপায়ে সেবা পাবে তার প্রচার এখনো সবার কাছে পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়নি। আবার নারীরা নিজেদের, পরিবার, আত্মীয়স্বজনের কথা ভেবে নির্যাতনের কথা চেপে যায়। এই চেপে যাওয়ার মানসিকতা নির্যাতনের ধরনও মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। বর্তমান সময়ে সরকারের বেশ কয়েকটি ইউনিট ভিকটিম নারীদের সেবা দেয়। বিভাগীয় শহরে পুলিশের তত্ত্বাবধানে এই সেবাগুলো পরিচালিত হচ্ছে। আবার প্রায় প্রতিটি থানায় নারী ও শিশু ডেস্ক থাকার নিয়ম সরকার কর্তৃক নির্ধারিত। তবে প্রশ্ন হতে পারে, কাজ বা সেবা কতটা হচ্ছে? বর্তমান সরকার একটি নম্বর চালু করেছে, যে নম্বরে ফোন করে যে কোনো ধরনের নির্যাতন, অপরাধ, সন্ত্রাস, সামাজিক ব্যাধি সম্পর্কে জানালে সেবা পাওয়া সহজ হয়।

বাংলাদেশের নারীদের নির্যাতিত হওয়ার কারণ মূলত দুটি প্রথমত, নারীরা পরিবারের সদস্যদের দ্বারা বেশি নির্যাতিত হয়। অর্থাৎ যাদের প্রতি বিশ্বাসের মাত্রা বেশি, যাদের ওপর নির্ভর করা যায় তারাই নির্যাতনের যাত্রা করে। মানুষ স্বার্থের বাইরে কিছুই করতে পারেনি। সে আপনজন বা পরজন হোক। আমাদের দেশে বর্তমানে পরিবারে সম্পর্কের কাঠামো এমন দাঁড়িয়েছে, যেখানে সমষ্টিগত ভাবনার চেয়ে ব্যক্তিগত ভাবনাই অনেক ক্ষেত্রে প্রাধান্য পায়। পরিবারের সদস্যদের মধ্যে সরলভাবে আপন করে নেওয়ার মানসিকতা এখন যোজন যোজন দূর। একজন মানুষ যখন নিজেকে একা ভাবে বা ভাবতে শুরু করে তখনই সে বিভিন্ন ধরনের বিশৃঙ্খলায় জড়িয়ে পড়ে; যা পক্ষান্তরে সে নিজেও চায় না। কিন্তু পরিস্থিতির শিকার। এ পরিস্থিতি নারীদের বেশি ভিকটিম করছে এবং ঠেলে দিচ্ছে এমন এক পরিবেশের দিকে, যেখানে নির্যাতিত নারী বা ব্যক্তি মনে করে এই সমাজে পরস্পর বন্ধন শুধুই স্বার্থপরতার খেলা।

দ্বিতীয়ত, নির্যাতিত নারী নির্যাতনের ঘটনা সমাজে তার অবস্থান, পরিবারের ইমেজসহ বিভিন্ন কারণে এড়িয়ে যায়। এ ধরনের মনোভাব নির্যাতনের পরিবেশ সৃষ্টিতে সহায়ক ভূমিকা রাখে। নির্যাতন প্রতিরোধের বড় হুমকি হলো যদি তা এড়িয়ে যাওয়া হয়। নারীদের বুঝতে হবে নিজেদের অধিকার সংগ্রাম করেই আনতে হবে। কেউ এসে দিয়ে যাবে না। চিৎকারে, চিৎকারে সমাজ ও রাষ্ট্রের ঘুম ভাঙবেই। আমাদের দেশের মেয়ের বাবারা মেয়ের বিয়ে নিয়ে যতটা চিন্তা করেন, মেয়েকে সাবলম্বী করে তুলতে ততটা চিন্তিত নয়। দেখেছি বহু উচ্চশিক্ষিত ব্যক্তিও মনে করেন, মেয়ে একদিন চলে যাবে। অভিভাবকদের মনে রাখতে হবে, সময়ের সঙ্গে জীবনের স্তরগুলো পাল্টায়। এই পাল্টানো সময়ের সঙ্গে জীবন, রুচি, মনোভাব ও বিশ্বাস, কর্ম ও প্রতিজ্ঞার মতো বিষয়গুলো আয়ত্ত করতে শিখতে হবে। গভীর মনোভাব দিয়ে বুঝতে পারি, নারী নির্যাতন পক্ষান্তরে একটি রাষ্ট্রের বার বার হোঁচট খাওয়া। কারণ নির্যাতনের সংস্কৃতি চর্চা করে মানবিক সমাজের স্বপ্ন দেখা বড়ই দুঃসাধ্য। একটি সমাজ তখনই এগিয়ে যায় যখন দুটি বিষয় সমাজব্যবস্থার মধ্যে চর্চা হয় বিশ্বাস ও সহমর্মিতা। নারীদের নিজের সঙ্গে বোঝাপড়া খুব বেশি জরুরি। বিশ্বস্তজন, নির্ভরযোগ্য ব্যক্তির কাছ থেকে পরামর্শ নেওয়া যেতে পারে। তবে সেল্প কাউন্সেলিং খুব বেশি কাজ দেয়। নারীদের মনে রাখতে হবে, বাঁচার লড়াইয়ে থামলে চলবে না। এখানে লজ্জা, ইমেজ বাধা নয়। বরং এগুলো নারীর মনোভাবে থাকলে নির্যাতন মোকাবিলা করে মুক্ত ও স্বাধীন জীবনযাপন করা সম্ভব নয়। সর্বোপরি, একটি সমাজের মানবিক সৌন্দর্য নির্ভর করে সব মানুষের মানবিক ঔদার্যের ওপর। বাংলাদেশে মানবিক সমাজ সৃষ্টিতে এটাই বড় বাধা। এখানে মানবিক ঔদার্য তৈরিতে যে পরিবেশ তথা সব মানুষের প্রতি সমদৃষ্টি, সমঅধিকার, প্রীতিময় সম্পর্ক নিশ্চিতের বিষয়গুলো উপেক্ষিত।

লেখক : সহকারী অধ্যাপক, ভিকটিমোলজি অ্যান্ড রেস্টোরেটিভ জাস্টিস প্রোগ্রাম, সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

ইমেইল : tawohid@gmail.com

এই পাতার আরো খবর
up-arrow