Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারি, ২০১৭

প্রকাশ : ২৫ জুন, ২০১৬ ১৩:৩১
আপডেট : ২৫ জুন, ২০১৬ ১৩:৪১
পড়া শিখেও স্কুলে মার খেতাম: প্রিয়তি
অনলাইন ডেস্ক
পড়া শিখেও স্কুলে মার খেতাম: প্রিয়তি

মাকসুদা আক্তার প্রিয়তি। নামটি এখন সারাবিশ্বে পরিচিত। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এ তরুণী ইতোমধ্যে সমগ্র বিশ্বে বাংলাদেশকে আলোচিত করেছেন তার বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে। একসময় মিস আয়ারল্যান্ড হিসেবে পরিচিতি পেলেও পরবর্তীতে অর্জন করেন মিস আর্থ ইন্টারন্যাশনাল খেতাব। হয়েছেন মিস ইউনিভার্সাল রয়্যালটি, মিস ফটোজেনিক, মিস ফিটনেস, মিস বেস্ট গাউন, মিস হট চকলেট, সুপার মডেল, মিস কমপ্যাশনেট। একজন প্রশিক্ষিত পাইলটও তিনি। এই অল্প সময়েই নিজের কাজ ও অর্জনের শাখা-প্রশাখা ছড়িয়ে দিয়েছেন বিভিন্ন সেক্টরে। অসম্ভব মেধাবী এই তরুণীকেও স্কুলজীবনে শিক্ষকদের কাছে শাস্তি পেতে হয়েছে। পড়া শিখেও অজ্ঞাত কারণে তা বলতে পারতেন না। অনেকেই তাকে মেধাহীন মনে করতেন। কিন্তু সেই মেয়েটিই আজ বিশ্বের বুকে এক পরিচিত মুখ। বাংলাদেশে তার ত্রুটি কেউ ধরতে না পারলেও ধরতে পেরেছিল আয়ারল্যান্ডের একটি স্কুল। তারা সেই অনুযায়ী প্রিয়তিকে সমস্যা কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করেন। হ্যা, প্রিয়তি সেই ত্রুটি কাটিয়ে উঠতে পেরেছিলেন। শুধু তাই নয়, অল্প সময়েই বাংলাদেশের মেয়েটি তার মেধার সাক্ষর রাখতে শুরু করেন আয়ারল্যান্ডের মতো দেশে। সবাইকে ছাপিয়ে এগিয়ে যান সামনের দিকে।

শনিবার সকালে প্রিয়তি তার ফেসবুক পেজে ছোটবেলার সেইসব ঘটনা তুলে ধরেন। একইসঙ্গে দৃষ্টি আকর্ষণ করেন অভিভাবক ও স্কুলশিক্ষকদের প্রতি। সঠিক পরিচর্যা পেলে যে কেউই যে মেধার সা্ক্ষর রাখতে পারেন তা তার জীবনে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন ঘটনা দিয়ে বুঝিয়ে দিয়েছেন। পরামর্শ দিয়েছেন, শিশুদের অন্য কারও সঙ্গে তুলনা করে তার আত্মবিশ্বাস নষ্ট না করতে। তাতে ওই শিশুর বিকাশমান মেধা চিরতরে হারিয়ে যেতে পারে। বাংলাদেশ প্রতিদিন পাঠকদের জন্য প্রিয়তির সেই ফেসবুক পোস্টটি তুলে ধরা হলো-


''আমি নাকি দুই বছর বয়সেই কুটকুট করে সব কথা বলতে পারতাম, আর তিন বছর বয়সে নাকি ক্লাস ওয়ান এর বই সব মুখস্থ। আত্মীয়–স্বজনরা বলতেন স্কুলে ভর্তি করিয়ে দিতে, আর আমার বাবা তিন বছর বয়সে ক্লাস ওয়ান এ ভর্তি করিয়েও দিলেন। আমার মনে আছে, নতুন বই পাবার সাথে সাথে ২/৩ মাসের মধ্যে বই মুখস্থ করে শেষ করে ফেলাটা আমার নেশা ছিল। তবে অংক বাদে। আমার পড়াশুনার জন্য পরিবারের কখনো তেমন কষ্ট করতে হয়নি, একটু দুষ্টামি বেশি করতাম, এই আর কি। যাই হোক, আসল পয়েন্টে আসি। আমি তো স্কুলের পড়া সবই ঠিক মতো শিখে যেতাম, কিন্তু প্রতিদিনই স্কুলের টিচারের কাছে অনেক মার আর শাস্তি খেতাম আর ক্লাসমেটদের কাছ থেকে হাসিঠাট্টা, উপহাশ, যা দিন দিন সবার কাছ থেকে আমাকে আলাদা করে ফেলেছিল, ডি-টাচড হয়ে গিয়েছিলাম। ''

''সমস্যাটা হলো, টিচার পড়া ধরলে পড়া দিতে পারতাম না, অথচ পড়াটা কিন্তু আমার মুখস্থ। মনেই করতে পারতাম না কিন্তু যেদিন লিখতে দিত সেইদিন কোন সমস্যা হত না। স্কুলের রেজাল্ট মোটামুটি ভালো থাকায় বাবা-মা কখনো ব্যাপারটি 'স্পট' করতে পারেনি। কিন্তু পরীক্ষার সময় একটা ঝামেলা করতাম, সেটা হলো- যেমন আমার লেখা দরকার ''This is NOT a good idea.'' আর আমি লিখতাম , ''This is a good idea''. ‘NOT’ শব্দ পুরাই বাদ, অথচ এই NOT শব্দটা কত ইম্পরট্যান্ট যে অর্থটাই পাল্টে দিচ্ছে। আমার ব্রেইন direction দিচ্ছে সঠিক কিন্তু ভুলটা চোখে পড়ছে না, brain ভুলটা detect করতে পারছে না revision দেয়ার পরও। ভুল হওয়ার কারণে আমার পরীক্ষার নম্বরও কমে আসতো, আর যার কারণে অনেক বার প্রথম অথবা দ্বিতীয় স্থান থেকে সরে যেতাম। ''

''আমি যখন রিডিং পড়তাম তখনও এক/দুই শব্দ বাদ/লাফ দিয়ে পরের শব্দ পড়তাম। (মেডিকেল ভাষায় এই প্রবলেমের কিছু নাম থাকতে পারে)। আমি জানতামই না আমার দুর্বল পয়েন্টগুলো, তাই কখনো এইগুলো রিকভার করার চেষ্টা হয়নি বাংলাদেশে থাকতে। অথচ, এই ব্যাপারগুলো ধরতে পেরেছে আয়ারল্যান্ড এর স্কুলে। সেইভাবে আমাকে ট্রিট করেছে ব্যাপারটিতে ওভারকাম করার জন্য। জোর দিয়েছে আমার দুর্বল স্থানগুলোতে। ''

''আমরা প্রতিটা মানুষ যতই মেধাবান হইনা কেন, কিছু না কিছু ত্রুটি নিয়ে জন্মাই। তাতে দোষের কিছু নয়। আপনার সন্তানকে খুব কাছ থেকে লক্ষ্য করুন, দেখুন তার দুর্বলতা কোথায়। কথা বলুন, শিক্ষকদের সাথে যদি তেমন কিছু লক্ষ্য করে থাকেন, যাতে শিক্ষকরাও একটু সচেতন হন। কারন প্রতিটা মানুষই ভিন্ন, আর তাই শিক্ষকরা সমানভাবে সব স্টুডেন্টদের সমানভাবে আচরণ বা আউটপুট আশা করতে পারেন না, at the same time, সবাইকে আলাদা করে চেনাও প্রতিটা শিক্ষকের পক্ষে সম্ভব নয়, তাই তাদের সাথে কথা বলাটা জরুরি, আপনার সন্তানের আপডেট রাখাটাও জরুরি, যেমন, সে ক্লাসে কী/কেমন করছে, কোন অসুবিধা আছে/ হচ্ছে কিনা, শিক্ষকরা কোন অভিযোগ দেয় কিনা ইত্যাদি। রাগা-রাগি, বোকা ঝোঁকা অথবা আরেকজনের সন্তানের সাথে তুলনা দিয়ে আপনার সন্তানের confident নষ্ট করবেন না, বরং তার confident boost করার চেষ্টা করুন তার পজিটিভ সাইডগুলো দিয়ে। মনে রাখবেন, আপনার সন্তানের যা আছে তা আরেকজনের নেই, আপনার সন্তান আপনারই, so no more comparison. ছোটখাটো ব্যাপারগুলো চাইলেই ঠিকমতো স্পট করে ওইটার উপর সঠিক পন্থা আর আচরণ দিয়ে আপনার সন্তানের দুর্বলতাকে তার শক্তি বানিয়ে দিন। আপনার সন্তান যেন সবার থেকে ছিটকে পড়েছে এমন মনোভাব পোষণ না করে এবং তার নিজের প্রতি আস্থা যেন কমে না আসে। কারন, স্কুল এবং তার পারিপার্শ্বিক পরিবেশ থেকেই তার কনফিডেন্ট লেভেল বৃদ্ধি পায়, আর স্কুলজীবনে আমাদের বেশিরভাগ সময় কাটেই স্কুলে। ''

''অনেক কথা বলতে ইচ্ছা করছিলো কিন্ত আমার ভিতর শব্দের ভাণ্ডারও ফুরিয়ে আসলো। কি আর করার, ব্রেইন ক্লান্ত, কারন আমার এইখানে রাত ৪.৩০ । ভালো থাকুন সবাই। পোস্ট টি পড়ার জন্য ধন্যবাদ। ''

''** টিপস – আপানার সন্তানের যেকোনো বিষয়ে চাহিদা থাকলে, তার তালিকা করুন পজিটিভ আর নেগেটিভ পয়েন্ট দিয়ে, তারপর তার উপর ছেড়ে দিন তার সিদ্ধান্ত, দেখুন কি রেজাল্ট আসে। ''

বিডি-প্রতিদিন/এস আহমেদ

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow