১০ জানুয়ারি, ২০২৪ ১৯:১৯

রাজবাড়ীতে নতুন জাতের পিয়াজ আবাদে সাড়া

রাজবাড়ী প্রতিনিধি

রাজবাড়ীতে নতুন জাতের পিয়াজ আবাদে সাড়া

পিয়াজ উৎপাদনে সারা দেশের মধ্যে তৃতীয় রাজবাড়ী জেলা। জেলায় এ বছর ৩২ হাজার হেক্টর জমিতে পিয়াজের আবাদ শুরু হয়েছে। মুড়িকাটা ও হালি পিয়াজ রাজবাড়ীর কৃষকদের মধ্যে বেশি পরিচিত। এই দুই জাতের পিয়াজের পাশাপাশি ‘বিপ্লব’ নামের নতুন জাত সাড়া ফেলেছে জেলার চাষিদের মধ্যে।

জেলার সদর উপজেলার মূলঘর ইউনিয়নের এড়ান্দা মাঠে এই পিয়াজের আবাদ শুরু হয়েছে। মসলার উন্নত জাত ও প্রযুক্তি সম্প্রসারণ প্রকল্পের আওতায় মূলঘর ইউনিয়নের এড়েন্দা গ্রামের কৃষক মো. রকিব মোল্লা ১০ শতক জমিতে এই পিয়াজের আবাদ করেছেন। নতুন জাতের এই পিয়াজ সারা ফেলেছে এলাকাজুড়ে।

বুধবার বিকালে নতুন জাতের এই পিয়াজের আবাদ দেখতে আসেন রাজবাড়ী সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. আবুল কালাম আজাদ। এ সময় তার সাথে ছিলেন রাজবাড়ী সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. জনি খান। 

পরে মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়। মাঠ দিবসে দুই শতাধিক কৃষক অংশগ্রহণ করেন। মাঠ দিবসে ‘বিল্পব’ জাতের এই পিয়াজ দেখে হতবাক হয়ে উঠেন স্থানীয় কৃষকেরা।

এক একটি পিয়াজের ওজন দাঁড়িয়েছে প্রায় ২০০ থেকে ২৫০ গ্রাম পর্যন্ত। ‘বিপ্লব’ গ্রীষ্মকালীন উচ্চ তাপমাত্রার ও অধিক বৃষ্টি সহনশীল জাত। যা এপ্রিল থেকে সেপ্টম্বর মাস পর্যন্ত চাষ করা যায়। চারা লাগানোর ১০০-১১০ দিনের মধ্যে পিয়াজ ঘরে তোলা যায়। প্রতি হেক্টর জমিতে ৩০ থেকে ৩২ মেট্রিক টন পিয়াজ হয়।

মাঠ দিবসে আসা কৃষকেরা বলেন, আমরা প্রথমে ভেবেছিলাম কৃষি অফিস থেকে পিয়াজ ফ্রিতে এসে চাষ করেছেন মো. রকিব। আমরা সেভাবে খেয়াল করিনি নতুন এই জাতের পিয়াজ। আজ মাঠ দিবসের সময় রকিব তার জমি থেকে পিয়াজ তুলেছে। সেই পিয়াজ আমরা দেখলাম। আমরা সবাই হতবাক হয়েছি! আমরা এত বড় পিয়াজ কোনদিন দেখিনি। পিয়াজের ফলন খুব ভালো হয়েছে।

রাজবাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ পরিচালক মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, রাজবাড়ীতে পিয়াজ উৎপাদন সারা দেশের মধ্যে তৃতীয়। মুড়িকাটা পিয়াজের পরিবর্তে এই পিয়াজের আবাদ করা সম্ভব। যখন এই পিয়াজ জমি থেকে উত্তোলন করা হবে। তখন দেশে পিয়াজের ব্যাপক চাহিদা থাকে। কৃষকেরা পিয়াজের ভালো দাম পাবেন। অধিক ফলন ও ভালো দামের কারণে কৃষকের ‘বিপ্লব’ জাতের পিয়াজ লাগানোর পরামর্শ এই কর্মকর্তার।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত

সর্বশেষ খবর