শিরোনাম
প্রকাশ : ৭ জুন, ২০২০ ১৫:০৮

রাজশাহীতে একই পরিবারের তিনজনের করোনা জয়

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী

রাজশাহীতে একই পরিবারের তিনজনের করোনা জয়
রাজশাহী নগরীর একই পরিবারের তিনজন করোনা জয় করেছেন। তৃতীয়বারের মতো নমুনা পরীক্ষায় রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে তাদের। পুলিশ জানিয়েছে, পরিবারটির লকডাউন তুলে নেওয়া হয়েছে। 
 
নগরীর উপর ভদ্রা এলাকার এই পরিবারটির এক নারীর প্রথম করোনা শনাক্ত হয় গত ১৫ মে। রাজশাহী মহানগরীতে শনাক্ত হওয়া প্রথম করোনা রোগী তিনি। তার নাম উম্মে কুলসুম (৫০)। কয়েকদিন পর তার স্বামী খাদেমুল ইসলাম (৬১) এবং মেয়ে রুকাইয়া ইসলামেরও (১৯) করোনা শনাক্ত হয়।
 
খাদেমুল ইসলাম বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর একজন অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা। রুকাইয়া ইসলাম ঢাকা সিটি কলেজের মার্কেটিং বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী। তার মা উম্মে কুলসুম একজন গৃহিনী। তার ছোট ছেলে কাওসার ইসলাম কমল নরসিংদীর আবদুল কাদির মোল্লা সিটি কলেজের এইচএসসির ছাত্র।
 
উম্মে কুলসুম কাওসারের কাছেই গিয়েছিলেন মাস দুয়েক আগে। তারপর ফেরেন ১০ মে। সঙ্গে তার বড় ছেলে শিবলী ইসলাম কাননের স্ত্রী ফাহমিমা সাইফ রুমকিও ছিলেন। সেদিন ফেরার পথে লকডাউনের কারণে তারা পথে পথে পুলিশের বাধার মুখে পড়েন। তবে উম্মে কুলসুম কথা দিয়েছিলেন, বাসায় ফিরে ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকবেন। তিনি কথা রাখেন। বাসায় ঢুকেই তিনি বোয়ালিয়া থানায় ফোন করেন। এরপর পুলিশ তাদের হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করে।
 
এরপর বাইরে থেকে ফিরেছেন বলে উম্মে কুলসুম, তার ছোট ছেলে এবং পূত্রবধূর নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ১৫ মে পরীক্ষায় দুইজনের রিপোর্ট নেগেটিভ হলেও উম্মে কুলসুমের করোনা শনাক্ত হয়। কয়েকদিন পর তার স্বামী এবং মেয়েরও করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে। রুকাইয়া ইসলাম কয়েকদিন শারীরিকভাবে বেশ অসুস্থ ছিলেন। তবে তার বাবা-মায়ের তেমন উপসর্গ দেখা দেয়নি। এরই মধ্যে তাদের আবারও নমুনা সংগ্রহ করা হয়। দ্বিতীয় দফা এ পরীক্ষায় কয়েকদিন আগে সবার রিপোর্ট আসে নেগেটিভ।
 
কিন্তু নিশ্চিত হওয়ার জন্য গত শুক্রবার তৃতীয়দফা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা শেষে শনিবার রাতে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস উম্মে কুলসুমকে ফোন করে জানিয়েছেন, তৃতীয় পরীক্ষাতেও তাদের তিনজনের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। তারা এখন করোনামুক্ত।
 
নগরীর বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিবারন চন্দ্র বর্মন বলেন, ‘পরিবারটি খুবই সচেতন। কীভাবে করোনা জয় করতে হয় তা তারা দেখিয়ে দিলেন। আমরা তাদের ফুলের শুভেচ্ছা জানাব। এভাবে সব মানুষ যদি সচেতন থাকতেন তাহলে করোনা মোকাবিলা সহজ হয়ে যেত।’
 
করোনাজয়ী খাদেমুল ইসলামের বড় ছেলে শিবলী ইসলাম কানন বলেন, ‘আমার আম্মু রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মধ্যে প্রথম আক্রান্ত রোগী। তখন খুব খারাপ অনুভূতি ছিল। সেটা এ রকম যে, আমি আমার নিজের শহরটাকে বিপদে ফেলে দিলাম! আক্রান্ত হওয়ার চেয়ে আমাদের নিজেদের বেশি অপরাধী মনে হয়েছে। সেই টেনশন থেকেই আমরা সিরিয়াস হয়েছি। একজন থেকে বাড়িতে রোগী তিনজন হয়েছে। তাদের প্রত্যেককে আলাদা আলাদা ঘরে রেখে সবকিছু সামলেছে আমার স্ত্রী। কিন্তু আমরা এটা বলতে পারি যে, আমাদের পরিবার থেকে কোথাও করোনা ছড়ায়নি।’
 
তিনি আরও বলেন, ‘সবেমাত্র আমাদের পরিবারকে করোনামুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। এখনই কেউ বাসার বাইরে যাবে না। আমিও চাকরির সুবাদে বাইরে থাকি। কিন্তু রাজশাহী শহরের কোনো করোনা আক্রান্ত পরিবারের কারও কোনো সহযোগিতা লাগলে অবশ্যই আমরা এগিয়ে যাব। কারণ, আমরা ওই সময়টা পার করেছি। আমরা বুঝেছি, সময়টা কত কষ্ট করে পার করতে হয়। এই সময়টা মানুষের পাশে দাঁড়ানো উচিত।’
 
শিবলী কানন বলেন, ‘আমরা সুস্থতা পেয়েছি। আল্লাহ আমাদের সুস্থ করেছেন। আল্লাহর কাছে হাজার হাজার শুকরিয়া। করোনা জয় করার পর প্লাজমা ডোনেট করা যায়। এখন ডাক্তার যদি আমাদের পরিবারকে প্লাজমা দেওয়ার পরামর্শ দেন, তাহলে আমরা অবশ্যই দেব। কারণ, আমাদের মাধ্যমে যদি কারও জীবন বাঁচে সেটা অনেক বড় পাওয়া।’
 
বিডি প্রতিদিন/এনায়েত করিম

আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর