শিরোনাম
প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৫:৫০
আপডেট : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৬:০০
প্রিন্ট করুন printer

‘আমরা একটা দুঃশাসনের মধ্যে আছি’

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল

‘আমরা একটা দুঃশাসনের মধ্যে আছি’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য বেগম সেলিমা রহমান বলেছেন, আমরা একটা দুঃশাসনের মধ্যে আছি। আমাদের মিছিল-মিটিং-সমাবেশ করতে দেয় না। বিএনপি নেতাকর্মীরা বিভিন্নভাবে লাঞ্ছিত-নির্যাতিত। বিভিন্নভাবে বিএনপি কর্মীদের গুম-খুন করা হচ্ছে। নেতাকর্মীদের কারাগারে নিয়ে নির্যাতন করা হচ্ছে। গণতন্ত্র হত্যা করা হয়েছে। এই অবস্থা থেকে ঘুরে দাঁড়াতে বিএনপি নেতাকর্মীদের এমনভাবে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তি উদযাপন করতে হবে, যাতে বাংলাদেশের জনগণ সত্যিকারের স্বাধীনতা ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করতে পারে।  

বুধবার দুপুরে বরিশাল নগরীর সদর রোডের একটি রেস্তোরাঁয় স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তি উদযাপন উপলক্ষ্যে বিএনপির বরিশাল বিভাগীয় সমন্বয় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। 

কেন্দ্রীয় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তি উদযাপন কমিটির বরিশাল বিভাগীয় সদস্য সচিব সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ারের সভাপিতত্বে এবং মহানগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জিয়াউদ্দিন সিকদারের সঞ্চালনায় বিভাগীয় সমন্বয় সভায় বিশষে অতিথি ছিলেন বিএনপির সুবর্ণজয়ন্তি উদযাপন জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব ও চেয়ারপার্সনের উপদেস্টা আব্দুস সালাম, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলতাফ হোসেন চৌধুরী, সাবেক এমপি জহির উদ্দিন স্বপন, বিএনপির বিভাগীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক আ ক ন কুদ্দুসুর রহমান, বিএনপির সহ বন ও পরিবেশ সম্পাদক রওনাকুল ইসলাম টিপু, বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক মনিরুজ্জামান, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নুরুল ইসলাম নয়ন, সুবর্ণজয়ন্তি উদযাপন কমিটির সদস্য রফিকুল ইসলাম জামাল এবং বরিশাল দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি এবাদয়দুল হক চাঁন। 

এছাড়া বরিশাল উত্তর জেলা বিএনপির সভাপতি মেজবাউদ্দিন ফরহাদসহ বরিশাল বিভাগের ৭ জেলা ইউনিট ও মহানগর বিএনপির নেতৃবৃন্দ সভায় বক্তব্য রাখেন। 

বিডি প্রতিদিন/আল আমীন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২০:৫৯
প্রিন্ট করুন printer

বিএনপির ৭ই মার্চ পালনের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন সুলতান মনসুর

অনলাইন ডেস্ক

বিএনপির ৭ই মার্চ পালনের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন সুলতান মনসুর
সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমেদ

বিএনপির ৭ই মার্চ পালনের সিদ্ধান্ত রাজনীতিতে ইতিবাচক বার্তা বহন করে বলে মনে করেন জাতীয় সংসদ সদস্য ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমেদ। 

তিনি বলেন, ৭৫ পরবর্তী সময়ে জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু, স্বাধীনতা এই শব্দ গুলো মুছে দেয়ার এমন কোনো ষড়যন্ত্র নেই যা করা হয়নি। কিন্তু সেই ধারা থেকে বেরিয়ে ঐতিহাসিক সত্যকে মেনে নিয়ে ইতিবাচক রাজনীতির ধারায় বিএনপিসহ রাজনৈতিক দল গুলোর এই প্রত্যাবর্তন সাধুবাদ পাওয়ার দাবি রাখে।

উল্লেখ্য, শপথ পরবর্তী জাতীয় সংসদে প্রদত্ত ভাষণে দুই বছর আগেই এই জাতীয় নেতা বলেছিলেন, জয় বাংলা ও জাতির জনকের বিষয়টি মেনে নিয়েই রাজনীতি করতে হবে। বিএনপিকেও রাজনীতি করতে হলে বিষয়টি মেনে নিতে হবে।

তিনি বলেন, রাজনীতিতে শত মত, শত পথ থাকতে পারে। দলমতের পার্থক্য থাকতে পারে। গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় যার যার মত প্রকাশ করবে। কিন্তু জয় বাংলা ও জাতির জনকের বিষয়ে কোনো আপস নাই।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২০:৪৭
প্রিন্ট করুন printer

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের আটক শিক্ষার্থীদের ছেড়ে দিল পুলিশ

অনলাইন ডেস্ক

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের আটক শিক্ষার্থীদের ছেড়ে দিল পুলিশ
সংগৃহীত ছবি

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান পরীক্ষা পেছানোর সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবিতে আন্দোলন থেকে আটক হওয়া শিক্ষার্থীদের ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ। 

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত আটক করা ২০ জন শিক্ষার্থীকে বিকেলে ছেড়ে দেয় শাহবাগ পুলিশ।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯ সালের ডিগ্রি পাস ও সার্টিফিকেট কোর্সের দ্বিতীয় বর্ষের এবং ২০১৮ সালের মাস্টার্স শেষ পর্বের পরীক্ষাসহ অন্যান্য সব প্রফেশনাল কোর্সের পরীক্ষা চলছিল। কিন্তু সরকারি সিদ্ধান্তে গত সোমবার এসব পরীক্ষা স্থগিত ঘোষণা করা হয়। এরপর মার্চের মধ্যেই চলমান পরীক্ষাগুলো শেষ করার দাবিতে আন্দোলনে নামেন শিক্ষার্থীরা। 

এরই মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে স্থগিত পরীক্ষা ২৪ মে থেকে শুরু হবে বলে জানিয়েছে। তবে শিক্ষার্থীরা তাদের দাবিতে অনড়।

এদিকে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বিক্ষোভের জন্য জড়ো হলে শাহবাগ থেকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০ শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়। এর প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা শাহবাগ থানার ফটকের পাশে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ শুরু করে।

শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মামুন অর রশীদ বলেন, তারা ওই শিক্ষার্থীদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন। কিন্তু ক্ষতিকর বা আপত্তিকর কিছু না পাওয়ায় তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২০:২২
প্রিন্ট করুন printer

খুলনা বিএনপি’র ২০ নেতাকর্মী কারাগারে

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা

খুলনা বিএনপি’র ২০ নেতাকর্মী কারাগারে

খুলনা নগরীতে গ্রেফতার হওয়া বিএনপি’র ২০ নেতাকর্মীকে কারাগারে পাঠিয়েছেb আদালত। আজ বৃহস্পতিবার বিকালে চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আনা হলে বিচারক তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

২০২০ সালের ৩ মার্চ বিএনপির দলীয় কার্যালয়ের সামনে মারামারির মামলায় তাদের গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। জানা যায়, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি দুপুর থেকে নগর বিএনপির সহসভাপতি জাহিদুল ইসলাম, খানজাহান আলী থানা যুবদল নেতা মাসুম খান, ১৮ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপি নেতা মোল্লা জাকির হোসেন, মহানগর ছাত্রদলের সহ-সভাপতি শামিম আশরাফ, ৬ নম্বর ওয়ার্ড যুবদল সভাপতি হায়দার আলী লাবুসহ ২০ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

খুলনা সদর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক শাহনেওয়াজ জানান, ২০২০ সালে মারামারির ওই ঘটনায় আরিফা ইয়াসমীন নামের ভুক্তভোগী একজন মামলা করেন। তার স্বামীকে বিএনপি অফিসের সামনে মারধর করা হয়েছিল।

এদিকে মহানগর বিএনপি সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি সমাবেশ নিয়ে আলোচনার মধ্যেই পুলিশ হঠাৎ করে গ্রেফতার অভিযান শুরু করেছে। তারা বিভিন্ন স্থান থেকে ২০/২২ জন বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করে। রাতের বেলায় বাড়িতে বাড়িতে অভিযান চালিয়ে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছে। এটা মানবাধিকার লঙ্ঘন।

নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, খুলনায় যদি পাঁচ হাজার নেতাকর্মীও গ্রেফতার হয়, তারপরও সমাবেশ হবে। আজ বৃহস্পতিবার দলীয় কার্যালয়ে ‘সমাবেশের সর্বশেষ অবস্থা’ জানিয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি গ্রেফতার হওয়া সকল নেতাকর্মীকে মুক্তি ও পুলিশকে এই আচরণের জন্য ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানান।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২০:১১
প্রিন্ট করুন printer

প্রকৌশলী পরিচয়ে চাঁদাবাজির অভিযোগে একজন আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল

প্রকৌশলী পরিচয়ে চাঁদাবাজির অভিযোগে একজন আটক
প্রকৌশলী পরিচয়ে চাঁদাবাজির অভিযোগে আটক ব্যক্তি।

বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের (বিসিসি) প্রকৌশলী পরিচয়ে চাঁদাবাজিসহ প্রতারণার অভিযোগে এক ব্যক্তিকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের আজিজিয়া হাউজিং এলাকা থেকে তাকে আটক করে বিকেলে থানা পুলিশে সোপর্দ করে।

আটক ব্যক্তির নাম মো. সবুর খান (৪২)। তিনি নগরীর বৈদ্যপাড়া এলাকায় ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করে জেলার বানারীপাড়ায় এলজিইডি’র একটি প্রকল্পে মাস্টাররোলে হিসেবে কাজ করছেন। তিনি ঝালকাঠী জেলার কাঠালিয়া উপজেলার আ. সোবাহান খানের ছেলে।

সিটি কর্পোরেশনের কর নির্ধারক বেলায়েত বাবলু জানান, সবুর খান বিভিন্ন সময় নগরীর বিভিন্ন এলাকায় নির্মাণাধীন বাড়ির মালিকদের কাছে গিয়ে নিজেকে সিটি কর্পোরেশনের প্রকৌশলী পরিচয় দিয়ে চাঁদাবাজিসহ প্রতারণা করে আসছিলেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে তিনি সিটি কর্পোরেশনের প্রকৌশলী ফরিদ মাহমুদ পরিচয়ে ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের আজিজিয়া হাউজিং এলাকায় মো. মাইনুদ্দিনের নির্মাণাধীন ৪তলা ভবনের অনুমোদিত নকশাসহ কাগজপত্র দেখতে চান। কিন্তু বিষয়টি মাইনুদ্দিনের স্ত্রী আনজুমান আরার সন্দেহ হলে তিনি বিষয়টি তার পূর্ব পরিচিত সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার ব্যক্তিগত সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর হেলালুজ্জামানকে জানান।

খবর পেয়ে সিটি কর্পোরেশনের একদল কর্মকর্তা-কর্মচারী ঘটনাস্থলে গিয়ে বিসিসি’র কথিত প্রকৌশলী ফরিদ মাহমুদকে আটক করেন।

এর আগেও তিনি নগরীর ৭ নম্বর এবং ২৯ নম্বর ওয়ার্ডে গিয়ে সিটি কর্পোরেশনের প্রকৌশলী পরিচয়ে নির্মাণাধীন ভবন মালিকদের কাছ থেকে বিভিন্ন অঙ্কের চাঁদা আদায় করেছেন বলে অভিযোগ করেন সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসনিক কর্মকর্তা কাজী মোয়াজ্জেম হোসেন। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে থানায় সোপর্দ করা হয়েছে বলে তিনি জানান। 

বিষয়টি নিশ্চিত করে কোতয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নুরুল ইসলাম জানান, আটক প্রতারক সবুর খানের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরসহ আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৭:৫২
প্রিন্ট করুন printer

ডিএমপির এডিসি ও এসি পদমর্যাদার ৪ কর্মকর্তার পদায়ন

অনলাইন ডেস্ক

ডিএমপির এডিসি ও এসি পদমর্যাদার ৪ কর্মকর্তার পদায়ন

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) পদমর্যাদার তিন জন ও সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) পদমর্যাদার এক জন কর্মকর্তাকে পদায়ন করা হয়েছে।

বুধবার ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে এ পদায়ন করা হয়।

ডিএমপির পিওএম-পশ্চিম বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার হোসাইন মোহাম্মদ কবির ভূইয়াকে অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার ক্রাইম কমান্ড এন্ড কন্ট্রোল সেন্টার, অপারেশনস বিভাগ, পিওএম-পশ্চিম বিভাগে সংযুক্ত অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার আব্দুন নূরকে অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার পিওএম-পশ্চিম বিভাগ, ক্রাইম কমান্ড এন্ড কন্ট্রোল সেন্টারের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার আছমা আরা জাহানকে অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার গোয়েন্দা-উত্তরা বিভাগ ও লজিস্টিকস বিভাগের সহকারী পুলিশ কমিশনার (ইকুইপমেন্ট) নাজিয়া ইসলামকে সহকারী পুলিশ কমিশনার গোয়েন্দা রমনা বিভাগে পদায়ন করা হয়েছে।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর