শিরোনাম
প্রকাশ : ৫ জুলাই, ২০২০ ২০:৫৯
আপডেট : ৫ জুলাই, ২০২০ ২১:০২

জাপানে কোভিড-১৯ মৃত্যুহার রহস্যজনকভাবে কম কেন?

অনলাইন ডেস্ক

জাপানে কোভিড-১৯ মৃত্যুহার রহস্যজনকভাবে কম কেন?

প্রতি লাখে জাপানে মারা গেছেন এক জনেরও কম মানুষ। প্রতি এক লাখে জাপানে ০.৮ জন করে মারা গেছেন। জাপানে বলা হচ্ছে জাপানিজদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক বেশি। যদিও মৃত্যুহার কম যেসব দেশে তাদের মধ্যে জাপানের চেয়ে এগিয়ে আছে দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ান, হংকং এবং ভিয়েতনাম।

২০২০ সালের শুরুর দিকে জাপানে গড়ের চেয়ে কম মানুষ মারা যান। এপ্রিলে স্বাভাবিকের চেয়ে ১ হাজার মানুষ বেশি মারা যান টোকিওতে। ২০১৯ সালের তুলনায় ২০২০ সালে সামগ্রিক মৃত্যুহার এখন কম জাপানে। কিন্তু জাপান কখনোই সেসব ব্যবস্থা নেয়নি যা বিশ্বের অনেক দেশে নেয়া হয়েছে, যেমন লকডাউন নিয়ে কড়াকড়ি।

এই দেশটিতে কোভিড-১৯ সংক্রমণ ও মৃত্যুর অনেক ধরণের সম্ভাবনাই ছিল। উহানে যখন সংক্রমণ শীর্ষে তখন বিশ্বের অনেক দেশ চীনের সাথে সীমান্ত বন্ধ রাখলেও জাপান খোলা ছিল। কোভিড-১৯ এ মারা যান যারা তাদের একটা বড় অংশই ৫০ বা ৬০ এর বেশি বয়স।

এমনকি জাপান খুব বেশি টেস্টও করায়নি, জাপানে মাত্র ৩ লাখ ৪৮ হাজার টেস্ট হয়েছে যেটা মোট জনসংখ্যার ০.২৭%। জাপানে ইউরোপের মতো লকডাউনও দেয়া হয়নি। এপ্রিলে জরুরী অবস্থা ঘোষণা হয়েছিল ঠিক কিন্তু দেশটির নাগরিকরা নিজেদের ইচ্ছামতো বাড়ি থেকে বের হতে পেরেছেন।

কোভিড-১৯ সংক্রমণ যখন বিশ্বজুড়ে ছয় মাসের বেশি সময় পার করেছে ঠিক তখন জাপানে সংক্রমণ ২০ হাজারের মতো এবং ১ হাজারের কম মানুষ মারা গেছেন। টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপক টাটসুহিকো কোদামা বলেন, জাপানের মানুষের মধ্যে ঐতিহাসিকভাবেই একটা ইম্যুনিটি শক্তি আছে।

একটা ভাইরাস যখন দেহে আঘাত হানে তখন শরীর সে অনুযায়ী সাড়া দেয় এবং ভাইরাসের কার্যক্ষমতা কমে যায়। সার্সের মতো একটি ভাইরাস যেটি জাপান, চীনের কিছু এলাকা, দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ান এবং দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় আগেও আঘাত হানে যার কারণে এই ভাইরাসের সাথে একটা অভ্যস্ততা তৈরি হয়ে গেছে।

সূত্র : বিবিসি বাংলা।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর