শিরোনাম
প্রকাশ : ২৪ মার্চ, ২০২১ ১২:৪৭
আপডেট : ২৪ মার্চ, ২০২১ ১৫:০৭
প্রিন্ট করুন printer

দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমসের নিবন্ধ

মহামারী ঠেকাতে পারে জনসন অ্যান্ড জনসনের করোনা টিকা, বিশেষজ্ঞের দাবি

অনলাইন ডেস্ক

মহামারী ঠেকাতে পারে জনসন অ্যান্ড জনসনের করোনা টিকা, বিশেষজ্ঞের দাবি

মার্কিন সংবাদমাধ্যম দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমসে The Johnson & Johnson Shot Was My Ticket Out of Hell শিরোনামে একটি মতামতধর্মী নিবন্ধ লিখেছেন মিশেল গোল্ডবার্গ। গতকাল মঙ্গলবার সেটি প্রকাশিত হয়েছে। জনসন অ্যান্ড জনসন উদ্ভাবিত করোনা টিকার ট্রায়ালে অংশ নেওয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন মিশেল। সেই অভিজ্ঞতা ও টিকা নিয়ে বিস্তারিত লিখেছেন সেই নিবন্ধে:

মডার্না এবং ফাইজার ভ্যাকসিনের মতোই জনসন অ্যান্ড জনসনের সিঙ্গেল ডোজ ভ্যাকসিন কোভিড-১৯ এ গুরুতর অসুস্থ হওয়া এবং মৃত্যু ঠেকাতে সক্ষম। তবে জনসন অ্যান্ড জনসনের ট্রায়ালের তথ্যে কার্যকারিতার হার ছিল প্রথমোক্ত দুটি ডাবল ডোজ ভ্যাকসিনের তুলনায় কম। এরফলে অনেকেই ধারণা করেন, হয়তো এটি ফাইজার এবং মডার্নার ভ্যাকসিনের তুলনায় দুর্বল মানের সুরক্ষা তৈরি করে।     

মানবদেহে ট্রায়ালে ফাইজার ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা ছিল ৯৫ শতাংশ। মডার্নার ছিল ৯৪ শতাংশের কিছু বেশি। জনসন অ্যান্ড জনসন কিন্তু কিছুটা ভিন্নভাবে তাদের প্রতিষেধকের কার্যকারিতা যাচাই করেছে। ট্রায়ালে মারাত্মক অসুস্থতা ঠেকাতে তাদের টিকাটি ৮৫ শতাংশ সফল প্রমাণিত হয়। মাঝারি ধরনের সংক্রমণের বিরুদ্ধে এই হার ৬৬ শতাংশ। মার্কিন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা অনুমোদিত যেকোনো একটি টিকা নেওয়ার জন্য সকলের প্রতি পরামর্শ দিচ্ছেন। কিন্তু, সবগুলো টিকা এক রকম নয়।  কোনোটিতে ভ্যাকসিনে আস্থা আছে অন্যটির তুলনায় বেশি।

ফেব্রুয়ারিতে মার্কিন সরকারের কেন্দ্রীয় রোগ নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র সিডিসি পরিচালিত এক জরিপে অংশ নেওয়া ৫৮ শতাংশ নাগরিক দুই ডোজের টিকা নেওয়ার পক্ষে মত দেন। যার বিপরীতে এক ডোজের টিকা নিতে চান মাত্র ৭ শতাংশ। তবে দুই ডোজের পক্ষে মত দেওয়া ৫৮ শতাংশের মধ্যে এক-চতুর্থাংশের কিছু বেশি অংশগ্রহণকারী একমাস অপেক্ষা করে দুই ডোজ টিকা নেওয়ার চাইতে; এই মুহূর্তেই একক ডোজের টিকা নেওয়ার পক্ষে মত দেন। 

ব্রাউন বিশ্ববিদ্যালয়ের জনস্বাস্থ্য বিভাগের ডিন ডা. আশিষ ঝা জানান, ভ্যাকসিন কোথায় এবং কখন ট্রায়াল চালানো হয়েছে তার উপর অনেক কিছু নির্ভর করে। তাই সফলতা হারের তথ্য আসলে এখানে প্রাসঙ্গিক নয়। যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি মহামারিতে জীবাণুর নতুন ও প্রাণঘাতী ধরনের উৎসস্থল দক্ষিণ আফ্রিকা ও ব্রাজিলে ট্রায়াল চালায় জনসন। এসব দেশে নতুন যেসব ধরন সংক্রমণের প্রধান উৎস সেগুলো ইতোপূর্বে আবিষ্কৃত টিকাগুলো, যেমন; অ্যাস্ট্রাজেনেকা, মডার্না ও ফাইজারের টিকা খুব একটা প্রতিরোধ করতে পারে না। তাছাড়া অন্যান্য টিকার ট্রায়ালের পরে অনুষ্ঠিত হয় জনসনের ট্রায়াল- সেসময়ে সার্স কোভ-২ জীবাণুর অধিক প্রাণঘাতী আরও বেশি ধরন তৈরি হয়। তারপরও, ট্রায়ালে অংশ নিয়ে প্রতিষেধক পাওয়া স্বেচ্ছাসেবীদের মধ্যে গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া বা কোনো মৃত্যুর ঘটনা লক্ষ্য করা যায়নি। নিঃসন্দেহে এই অর্জন বিশাল। দক্ষিণ আফ্রিকার নতুন ধরন প্রতিরোধে সবচেয়ে কার্যকর সুরক্ষা দেয়-  জনসন উদ্ভাবিত ভ্যাকসিন।" 

তবে ঝা আশা করেন যে, ফাইজার এবং মডার্নার টিকাও করোনাভাইরাসের অভিযোজিত নতুন ধরনগুলির বিরুদ্ধে কার্যকর হবে। জনসন ভ্যাকসিন সবার সেরা তিনি এমন দাবি করেন না। তবে প্রতিটি প্রতিষেধকের যে নিজস্ব সুবিধা আছে- সেদিকে আলোকপাত করেন। 

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর