Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২২ মে, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ মে, ২০১৯ ২৩:২৩

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চাল সংগ্রহে অনিয়ম

মোশাররফ হোসেন বেলাল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চাল সংগ্রহে অনিয়ম

চলতি বোরো মৌসুমে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সরকারিভাবে সিদ্ধ ও আতপ চাল সংগ্রহে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সিন্ডিকেটের কাছ থেকে মোটা অংকের অর্থ নিয়ে নির্দিষ্ট কিছু মিল মালিকের কাছ থেকে সংগ্রহ করা হচ্ছে চাল। তবে চাল সংগ্রহে অনিয়মের তথ্য সঠিক নয় বলে দাবি জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের। জানা যায়, চলতি বোরো মৌসুমে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নয়টি উপজেলায় সরকারিভাবে ৩৩ হাজার ৯২৩ মেট্রিক টন চাল সংগ্রহ করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে সিদ্ধ ২৪ হাজার ৪৩৭ মেট্রিক টন ও আতপ চাল ৯ হাজার ৪৮৬ মেট্রিক টন। প্রতি কেজি আতপ চাল ৩৫ এবং সিদ্ধ ৩৬ টাকা দরে সংগ্রহ করতে খাদ্য অধিদফতরের নির্দেশনা রয়েছে।  নিয়মানুযায়ী সংশ্লিষ্ট উপজেলার সব চালকলের মাধ্যমে চাল সংগ্রহ করার কথা। নবীনগর, আখাউড়া ও বাঞ্ছারামপুর উপজেলায় কোনো সিদ্ধ চালের কল নেই। অপরদিকে নাসিরনগর, বিজয়নগর, বাঞ্ছারামপুর ও আখাউড়ায় নেই আতপ চালের কল। যেসব উপজেলায় সিদ্ধ ও আতপ চালের কল নেই সেসব উপজেলার প্রায় পাঁচ হাজার মেট্রিক টন সিদ্ধ ও আতপ চাল সংগ্রহের বরাদ্দ সিন্ডিকেটের মাধ্যমে আশুগঞ্জ ও সরাইলের নির্দিষ্ট কিছু কলমালিককে দেওয়ার অভিযোগ আছে। এছাড়াও সবকটি উপজেলার পুরো বরাদ্দের প্রতি কেজি চালে এক টাকা করে কমিশন নেওয়ারও অভিযোগ পাওয়া গেছে। জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক সুবীর নাথ বলেন, চাল সংগ্রহে কোনো অনিয়ম হয়নি।’ নেত্রকোনায় দুর্নীতি : নেত্রকোনা প্রতিনিধি জানান, জেলায় ধান-চাল ক্রয়ের নামে দুর্নীতি ও সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ধান ও চাল ক্রয়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রতিবাদে খাদ্য মন্ত্রণালয় বরাবর লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।


আপনার মন্তব্য