শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ এপ্রিল, ২০২০ ০০:৩৭

দখল বর্জ্যে ডাকাতিয়া এখন মরা খাল

রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি

দখল বর্জ্যে ডাকাতিয়া এখন মরা খাল

এক সময়ের খরস্রোতা ডাকাতিয়া নদী মরা খালে পরিণত হয়েছে। তলদেশ ও দুই পাড় ভরাট হয়ে কমে গেছে গভীরতা। এদিকে নদী দখল করে অনেকে গড়ে তুলেছেন দোকান, ঘরবাড়ি। পাশাপাশি পৌর শহরের সব বর্জ্য ফেলা হচ্ছে এই নদীতে। এতে পানিই শুধু দূষিত হচ্ছে না, নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ। ডাকাতিয়া নদীর দৈর্ঘ্য ১২৭ কিলোমিটার। নদীটি ভারতের ত্রিপুরা পাহাড় থেকে উৎপন্ন হয়ে লাকসাম, চাঁদপুর ও লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর উপজেলার ওপর দিয়ে বয়ে গেছে। ডাকাতিয়া নদী ঘিরেই রায়পুরের কৃষি ও কৃষিভিত্তিক ব্যবসা-বাণিজ্যের বিকাশ ঘটেছিল। এই নদীকে কেন্দ্র করেই গড়ে উঠেছিল রায়পুর মৎস্য প্রজনন ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। প্রতিবছর এখানে অবমুক্ত করা হতো লাখ লাখ রেণু পোনা- যা মুক্ত জলাশয়ে মাছের চাহিদা পূরণ করত। সেই সঙ্গে নদীটি জীবিকার প্রধান অবলম্বন ছিল এ উপজেলার বিশাল জেলে পল্লীর মানুষগুলোর। ডাকাতিয়া নদী হয়ে এক সময় ঢাকাসহ সারা দেশ থেকে পণ্য পরিবহন করা হতো। ছিল যাত্রীবাহী লঞ্চঘাট। আজ ডাকাতিয়া শুধুই বর্জ্যরে ভাগাড়। হারিয়ে ফেলেছে স্রোতধারা। এখন আর নদী থেকে ভেসে আসে না মাঝি-মাল্লার ভাটিয়ালি, জারি-সারি গানের সুর। দেখা মেলে না রঙিন পাল তোলা নৌকা। ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে এ নদীর পানি। ডাকাতিয়ার স্বাভাবিক প্রবাহ ঠিক রাখা, নদীকে দূষণমুক্ত রাখার দাবিতে এরই মধ্যে জাতীয় প্রেস ক্লাবসহ রায়পুরে বিভিন্ন সময়ে মানববন্ধন হয়েছে। ‘ডাকাতিয়া সুরক্ষা আন্দোলন’ সম্প্রতি রায়পুর পৌর শহরে মানববন্ধন করেছে। এতে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশ নেন। তাদের দাবি, ডাকাতিয়া নদী দখল ও দূষণমুক্ত করার জন্য সরকারি-বেসরকারি, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোকে একযোগে কাজ করতে হবে। প্রভাবশালীদের হাত থেকে দখলমুক্ত করে ফিরিয়ে আনতে হবে ডাকাতিয়ার নাব্য। এটি করতে পারলে অর্থনৈতিক দিক থেকে রায়পুরে দৃশ্যপট পাল্টে যাবে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর