শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১১ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ মার্চ, ২০২১ ২৩:৩০

নওগাঁয় ভাঙনের কবলে তিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান

বাবুল আখতার রানা, নওগাঁ

নওগাঁয় ভাঙনের কবলে তিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান

ছোট যমুনা ও আত্রাই নদীবেষ্টিত নওগাঁর আত্রাই উপজেলা। এই উপজেলার তিনটি ঐতিহ্যবাহী প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নদীর ভাঙনের ফলে বিলীনের পথে। প্রত্যন্ত অঞ্চলের এসব ঝুঁকিপূর্ণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো রক্ষার কোনো পদক্ষেপ নেই কর্তৃপক্ষের। শুকনো মৌসুমে বিদ্যাপীঠগুলো রক্ষার পদক্ষেপ দ্রুত গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা না হয় তাহলে আগামী বর্ষা মৌসুমে নদীতে বিলীন হওয়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। সরেজমিনে দেখা যায়, ১৭৫৭ সালে প্রতিষ্ঠত আটগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এই বিদ্যালয়টির পূর্ব পাশ দিয়ে বয়ে গেছে এক সময়ের খরস্রোতা ছোট যমুনা নদী। বছরের পর বছর নদীর ভাঙনে বিদ্যাপীঠটি বর্তমানে নদীগর্ভে চলে যাচ্ছে। কয়েকটি গাছ বিদ্যালয়টিকে পুরোপুরি বিলীনের হাত থেকে রক্ষা করে আসছে। এছাড়াও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও এলাকাবাসী মিলে বিদ্যালয়টি নদীর ভাঙনের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য সীমিত অর্থ দিয়ে একটি সুরক্ষা প্রাচীর তৈরি করলেও কোনো লাভ হয়নি। নদী ও বিলবেষ্টিত কয়েকটি গ্রামের শিশুদের প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণের এটিই একমাত্র বিদ্যাপীঠ। শুকনো মৌসুমেই বিদ্যালয়টি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হলেও আগামী বর্ষা মৌসুমে বিদ্যাপীঠটি কোমলমতি শিশুদের জন্য একটি মরণ ফাঁদে পরিণত হবে। নিভে যাবে প্রায় ২০০ বছরের পুরনো প্রাথমিক শিক্ষার বাতিঘরটি। এছাড়াও উপজেলার বাউল্লাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও গুড়নই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একই অবস্থা। স্থানীয় বাসিন্দা মতিউর রহমান, রফিকুল ইসলামসহ অনেকেই বলেন, বিদ্যালয় সংলগ্ন নদীর তীরবর্তী ভাঙন অংশ মেট্রোসিম, ব্লক কিংবা জিওব্যাগ দিয়ে সুরক্ষা প্রাচীর নির্মাণ করতে হবে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুকুল উদ্দিন বলেন, বিদ্যাপীঠটি বিলীন হয়ে গেলে এই অঞ্চলের শিশুরা অপূরণীয় ক্ষতির মুখে পড়বে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার লিখিতভাবে জানিয়েছি কিন্তু আজ পর্যন্ত কোনো লাভ হয়নি। আটগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ব্যবস্থা কমিটির সভাপতি শহীদুল ইসলাম বলেন, বিদ্যালয় ও স্থানীয় গ্রামবাসীদের সহযোগিতায় কয়েক বছর আগে একটি নামমাত্র সুরক্ষা প্রাচীর তৈরি করা হয়েছিল। কিন্তু সেটি নদীর পানির তোড়ে ভেঙে গেছে। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সিদ্দীক মোহাম্মদ ইউসুফ রেজা বলেন, ইতিমধ্যেই নদীর ভাঙনে বিলীনের পথে আটগ্রাম, বাউল্লাপাড়া ও গুড়নই বিদ্যালয়গুলো পরিদর্শন করে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন পাঠিয়েছি। প্রকৃতপক্ষে নদীর তীর সংক্রান্ত বিষয়গুলো পানি উন্নয়ন বোর্ডের আওতায়। নওগাঁ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফউজ্জামান খাঁন বলেন, ইতিমধ্যেই আমরা আটগ্রাম বিদ্যালয়টি পরিদর্শন করে পরবর্তী করনীয় বিষয়ে একটি চাহিদাপত্র ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর পাঠিয়েছি। অর্থ বরাদ্দ ও পরবর্তী নিদের্শনা পেলেই আমরা কাজ শুরু করব।