শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৩ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩ মে, ২০২১ ০০:০২

বাল্যবিয়ে রোধে জেল-জরিমানা

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

বাল্যবিয়ে রোধে সিরাজগঞ্জ প্রশাসন প্রতিনিয়ত ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে জেল-জরিমানা করছে। গভীর রাত হোক আর দুপুর হোক বাল্যবিয়ের সংবাদ জানার পরই প্রশাসন ছুটে যাচ্ছে। বিয়ে বন্ধ করছে। জরিমানা করছে। বর-কনের অভিভাবকদের সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিচ্ছে। আর কাজীদেরও প্রতিনিয়ত বাল্যবিয়ে না পড়ানোর জন্য সতর্ক করে দিচ্ছে।

এতকিছুর পরও সরকারি নির্দেশনা থোড়াই কেয়ার করছেন না কাজীরা। গোপনে বাল্যবিয়ে পড়িয়ে যাচ্ছেন। সম্প্রতি কামারখন্দর উপজেলার জামতৈল ইউনিয়নের কাজী মোজাম্মেল হক শুধু গোপনে বাল্যবিয়েই নয়, কনের বাবার স্বাক্ষর জাল করে কাবিননামা (নিবন্ধন) করেছেন। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর কনের বাবা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। কনের বাবা চরকামারখন্দ গ্রামের শহিদুল ইসলাম অভিযোগে উল্লেখ করেন, কয়েক দিন আগে আমি জানতে পারি আমার ১৪ বছর বয়সী মেয়ে শিখার সঙ্গে নাসির উদ্দিন নামে কিশোরের বিয়ে হয়েছে। এমনকি বিয়ের নিবন্ধনও হয়েছে। আমি তৎক্ষণাৎ কাজী অফিসে গিয়ে নিবন্ধন বই দেখি। নিবন্ধনে বিয়ের কথা উল্লেখ রয়েছে। এমনকি আমার স্বাক্ষরও জাল করা হয়েছে। এ বিষয় জামতৈল ইউনিয়নের কাজী মোজাম্মেল হক জানান, আমি বিয়েটি পড়িয়েছি বা নিবন্ধন করেছি কি না আমার মনে পড়ছে না। কামারখন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেরিনা সুলতানা জানান, বাল্যবিবাহ পড়ানো এবং জাল স্বাক্ষর ব্যবহার করে নিবন্ধনের বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। দুই পক্ষকেই শুনানির জন্য ডাকা হবে। সত্যতা যাচাই করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই বিভাগের আরও খবর