শিরোনাম
মঙ্গলবার, ২ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

মাঠে দুলছে সোনালি স্বপ্ন

বাবুল আখতার রানা, নওগাঁ

মাঠে দুলছে সোনালি স্বপ্ন

দেশের উত্তর জনপদের খাদ্যভান্ডর বলে খ্যাত নওগাঁয় চলতি মৌসুমে বিস্তীর্ণ মাঠ জুড়ে আমন ধানের সোনালি শীষ বাতাসে দোল খাচ্ছে। দৃষ্টিসীমা ছাপিয়ে চারদিকে দুলছে আমনের শীষ। আর এ দোলায় লুকিয়ে আছে হাজারও কৃষকের রঙিন স্বপ্ন। দিগন্তজোড়া সোনালি ফসলের মাঠ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যকে আরও বিকশিত করে তুলেছে। জেলার হাজারও কৃষক পরিবারের চোখে মুখে এখন স্বপ্ন পূরণের প্রত্যাশা। প্রাকৃতিক দুর্যোগ কিংবা কোনো বিপর্যয় না ঘটলে কৃষকদের বাড়ির আঙ্গিনা ভরে উঠবে সোনালি ধানের হাসিতে। আগামী সপ্তাহের মধ্যে ধান কাটা-মাড়াই শুরু হবে। নতুন ধান উঠবে কৃষকের গোলায়। ধান ঘরে তোলার স্বপ্নে চাষিরা বিভোর। গৃহস্থ আর কিষাণ-কিষাণিরা গোলা, খলা, আঙ্গিনা পরিষ্কার করায় ব্যস্ত। সরকারের কৃষিবান্ধব কর্মসূচি, কৃষি অফিসের ব্যাপক তৎপরতা, কৃষকের অক্লান্ত পরিশ্রম, অনুকূল আবহাওয়া, সার, কীটনাশকসহ বাজারে কৃষি উপকরণের পর্যাপ্ত সরবরাহ, সহনশীল দাম, সহজলভ্যতা ও সেচের জন্য প্রয়োজনীয় বিদ্যুতের সরবরাহ এবং আবাদ উপযোগী পরিবেশ ইত্যাদি বিবেচনায় চলতি মৌসুমে আমন ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। জানা গেছে, কৃষকরা তাদের ক্ষেতের ধান কাটার অপেক্ষায় রয়েছে। খুশিতে কৃষক পরিবারসহ ব্যবসায়ীরা। খেতের মধ্যে পোতা বাঁশের কঞ্চি ও গাছের ডালের উপর ফিঙ্গে, শালিক, দোয়েলসহ বিভিন্ন প্রজাতির পাখি বসে আছে। সুযোগ বুঝে ধান খেতের ক্ষতিকারক পোকা ওইসব পাখিরা খেয়ে ফেলছে। আবার অনেকে অধিক ধান পাওয়ার আশায় নিজ নিজ জমিতে রাসায়নিক ও জৈব সার প্রয়োগ করছে। উপজেলার ধর্মপুর গ্রামের কৃষক রহমান বলেন, গতবারের চেয়ে এবার ধান ভালো হয়েছে। আর কয়েকদিন পর কাটা শুরু করা যাবে। প্রকৃতি অনুকূলে থাকলে স্বপ্নের সোনালি ধান যথা সময়ে ঘরে তুলতে পারব। সুলতানপুর গ্রামের কৃষক তারেক বলেন, সেচ খরচ এবং শ্রমের অধিক মূল্য ও কৃষি শ্রমিকের কিছু সমস্যা থাকলেও অনুকূল আবহাওয়ায় সঠিক সময়ে পর্যাপ্ত সার, কীটনাশক ও বিদ্যুৎ সরবরাহ পাওয়ায় এ বছর আমন ধান খুবই ভালো হয়েছে। তিনি আরও বলেন, ধান খেতের পাশে দাঁড়ালে বুক জুড়িয়ে যায়। এ বছর তিন একর জমিতে আমন আবাদ করেছি। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক শামসুল ওয়াদুদ বলেন, ক্ষতিকর পোকা ও রোগের আক্রমণ থেকে ফসল রক্ষায় আলোচনা সভা, লিফলেট বিতরণসহ নানা সচেতনতামূলক কর্মকা  চালিয়ে যাচ্ছে কৃষি বিভাগ। উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা খেতের আইলে আলোক ফাঁদ পেতে ক্ষতিকর পোকার উপস্থিতি নিশ্চিত করে কৃষকদের বালাইনাশক প্রয়োগের পরামর্শ দিচ্ছেন। বাম্পার ফলন ও উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্য নিয়ে আমরা মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন ধরনের কাজ করে আসছি। কৃষকরা যাতে লাভবান হতে পারে এবং কোনো প্রকার সমস্যায় না পড়েন এজন্য আমরা সার্বক্ষণিক নজর রাখছি। আশা করি বিগত মৌসুমের মতো এবারও আমন ধানের বাম্পার ফলন হবে।

সর্বশেষ খবর