Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ২১ অক্টোবর, ২০১৯ ১৮:৩২

তিন বছরেও সংষ্কার হয়নি বিধ্বস্ত পাহাড়ি সড়ক

ফাতেমা জান্নাত মুমু, রাঙামাটি

তিন বছরেও সংষ্কার হয়নি বিধ্বস্ত পাহাড়ি সড়ক

এখনো বিধ্বস্ত রয়েছে রাঙামাটির বিভিন্ন পাহাড়ি সড়ক। সংস্কার হয়নি একটিও। তবুও ভাঙা সড়কে ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন। এতে ক্ষোভ বাড়ছে স্থানীয়দের মাঝে। তবে সংশ্লিষ্টরা বলছে, খুব শিগগিরই শুরু করা হবে সড়ক সংস্কার কাজ। 

জানা গেছে, ২০১৭ সালে অতিবৃষ্টির কারণে রাঙামাটি-চট্টগ্রাম, রাঙামাটি-বান্দরবান ও রাঙামাটি-খাগড়াছড়ি সড়কে ১৪৫টি স্থানে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তার মধ্যে ১১৩টি স্থানে সড়কে একেবারেই চলাচলের অযোগ্য হয়ে  যায়। কিন্তু গেলো তিন বছরেও সংষ্কারের উদ্যোগ নেইনি কেউ। এতে মৃত্যুর ফাঁদে পরিণত হয়েছে ঝুঁকিপূর্ণ সড়কগুলো। নানা শঙ্কা মধ্যে চাল চলছে করছে ভারি, মাঝারি ও ছোট-বড় যানবাহন। 

স্থানীরা বলছে, ‘আঁকাবাঁকা পাহাড়ি সড়কগুলো ভেঙে গিয়ে মারাত্মক রূপ ধারণ করেছে। প্রায় প্রতিদিনই ঘটছে ছোট-বড় দুর্ঘটনা। সড়কের প্লাস্টার, ইট, কংক্রিট উঠে গিয়ে বড় বড় গর্তে পরিণত হয়েছে। আবার কোথাও ভেঙে পড়েছে সড়কের বিরাট অংশ। এসব সড়কের স্থায়ী সংস্কারের উদ্যোগ না নিয়ে বালির বস্তা দিয়ে দায় সেরেছে সংশ্লিষ্টরা। তারপরও কোনো রকম যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু রাখা হলেও এড়ানো যাচ্ছে না সড়ক দুর্ঘটনা। তাই পর্যটন শহর হিসেবে পরিচিত রাঙামাটির সড়কগুলো দীর্ঘ দিন ধরে বেহাল অবস্থায় থাকায় ক্ষোভ দেখা দিয়েছে স্থানীয়দের মধ্যে।

এ ব্যাপারে রাঙামাটি সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের উপসহকারী প্রকৌশলী মো. আবু মুছা বলেন,  ক্ষতিগ্রস্ত সড়কের স্থায়ী কাজের জন্য এরই মধ্যে প্রকল্প অনুমোদন হয়েছে। অনুমতি পাওয়া গেলে আগামী নভেম্বর ও ডিসেম্বর মাসের মধ্যে সড়ক সংস্কার কাজের জন্য টেন্ডার আহ্বান করা হবে। টেন্ডার হয়ে গেলে কাজও দ্রুত চালু করা যাবে।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন


আপনার মন্তব্য