শিরোনাম
প্রকাশ : ১৮ মে, ২০২১ ২০:৫৪
প্রিন্ট করুন printer

গুরুদাসপুরে ২০ বছর পর লিচুর হাট ইজারা

নাটোর প্রতিনিধি

গুরুদাসপুরে ২০ বছর পর লিচুর হাট ইজারা
Google News

অবশেষে লিচুর রাজ্য খ্যাত নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের বেড়গঙ্গারামপুর লিচুর হাটটি সরকারিভাবে গণ্য হলো। গত ২০ বছর ধরে লিচুর হাটটি ব্যক্তি স্বার্থে নিয়ন্ত্রণ করে আসছিলো আড়তদার সমিতির সিন্ডিকেট। প্রতি মৌসুমে অন্তত ২০ থেকে ৩০ কোটি টাকার লিচু এখানে বেচাকেনা হয়ে থাকে। এবারই প্রথম সরকারিভাবে ৯ লাখ ১২ হাজার টাকায় হাটটি ইজারা দেওয়া হয়েছে।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, আড়তটি ব্যক্তি মালিকানার জায়গায় প্রতিষ্ঠিত এমন অজুহাতে এতদিন স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন হাটটি ইজারা দিতে পারেনি। এ যাবৎ বেড়গঙ্গারামপুর লিচু আড়ত মালিক সমিতি কমিশনের নামে ১০০ লিচু বিক্রয়ের ওপর বাগান মালিক ও পাইকারীদের কাছ থেকে খাজনা আদায়ের নামে ১৫-২০ টাকা করে চাঁদা আদায় করছিল। এতে কৃষকের লাভের টাকা ঢুকতো আড়ত মালিকদের পকেটে।

অবশেষে জেলা প্রশাসক মো. শাহরিয়াজের হস্তক্ষেপে ৯ লাখ ১২ হাজার টাকায় লিচুর হাটটি এই প্রথম ইজারা নেন স্থানীয় মাহাবুব হোসেন নামে এক আড়ত মালিক। এতে লিচু বাগান মালিকদের আর কোনো কমিশন বা চাঁদা দিতে হবে না। তবে যারা লিচু ক্রয় করবেন তাদের প্লাস্টিকের ক্যারেট প্রতি ৫ টাকা, বড় ঝুঁড়ি ২০ টাকা এবং ছোট ঝুঁড়ি প্রতি ১০ টাকা ইজারা দিতে হবে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলার হাট পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আবু রাসেল বলেন, জেলা প্রশাসকের আদেশ বলে প্রতিবছর ওই হাটটি দুই মাসের জন্য ইজারা দেওয়া হবে। এবারই প্রথম হাট হওয়ায় টেন্ডার ছাড়া ইজারা দেওয়া হয়েছে।

ইজারাদার মাহবুবুর রহমান বলেন, লিচুর ভরা মৌসুমে প্রতিদিন ৮০ থেকে ১০০ ট্রাক বোঝাই লিচু দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে। কিন্তু এ বছর খরায় লিচু ঝরে পড়ায় সরবরাহ কম হচ্ছে। এই মৌসুমে ২৫ কোটি টাকার বেশি লিচু বিক্রি হবে না। হাটে লিচু বিক্রি করতে এসে ভাল দাম পাচ্ছেন চাষিরা।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. হারুনর রশিদ জানান, এ বছর ৫৭০টি ছোটবড় বাগান মিলে ৪১০ হেক্টর জমিতে লিচু উৎপাদন হয়েছে। ফলন ভালো হয়েছে। আশা করছি লিচু চাষিরা ভাল দাম পাবেন। উপজেলার পার্শ্ববর্তী বড়াইগ্রাম ও সিংড়া উপজেলা থেকে চাষিরা এই হাটে প্রচুর পরিমাণ লিচু বিক্রি করে থাকেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তমাল হোসেন বলেন, বেড়গঙ্গারামপুর বটতলা মোড়ে খাস জায়গাটি উদ্ধার করে সেখানেই সৃজন করা হয়েছে লিচুর হাট। জ্যৈষ্ঠ ও আষাঢ় মাসের জন্য সরকারিভাবে ইজারা দেওয়া হয়েছে। আগামী বছর এই লিচুর হাট থেকে সরকার আরও বেশি রাজস্ব পাবে বলে আশা করছি।

বিডি প্রতিদিন/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর