২ আগস্ট, ২০২১ ২০:০২

সাতক্ষীরায় জলাবদ্ধতা নিরসনে ১৩ দফা প্রস্তাবনা

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

সাতক্ষীরায় জলাবদ্ধতা নিরসনে ১৩ দফা প্রস্তাবনা

সাতক্ষীরায় জলাবদ্ধতা নিরসনে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হুমায়ুন কবিরের সাথে মতবিনিময় করে ১৩ দফা প্রস্তাবনা দিয়েছেন জেলা নাগরিক কমিটির নেতৃবৃন্দ। সোমবার দুুপুরে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাতক্ষীরা জেলা নাগরিক কমিটির আহবায়ক অধ্যাপক মো. আনিসুর রহিম, সদস্য সচিব এ্যাড. আবুল কালাম আজাদ, অধ্যক্ষ আব্দুল হামিদ, এ্যাড আজাদ হোসেন বেলাল, অধ্যাক্ষ আশেক ই এলাহী, শেখ হারুন-অর রশীদ, ওবাদুস সুলতান বাবলু, এম কামরুজ্জামান, আলীনুর খান বাবুল প্রমুখ।

নাগরিক কমিটির ১৩ দফা প্রস্তাবনার মধ্যে ছিল ইছামতি নদীর সাথে মরিচ্চাপ নদীর সংযোগ পুনঃস্থাপনে লাবন্যবতীর দু’মুখে স্থাপিত শাখরা-টিকেট এবং সাপমারার দু’মুখে স্থাপিত হাড়দ্দহা-কামালকাটি স্লুইসগেট অপসারণ অথবা দুই
নদীর সরাসরি সংযোগ স্থাপনের জন্য স্লুইসগেটের পার্শ্ব দিয়ে বেড়িবাঁধ কেটে বিকল্প চ্যানেল তৈরী। সাতক্ষীরা শহরের মধ্যদিয়ে প্রবাহিত প্রাণসায়র খালের সাথে বেতনা নদীর পুনঃসংযোগ স্থাপনে খেজুরডাঙ্গী স্লুইসগেট এবং মরিচ্চাপ নদীর পুনঃসংযোগ স্থাপনে এল্লারচার স্লুইসগেট (বর্তমানে অস্তিত্বহীন) অপসারণ অথবা পাশ দিয়ে বেড়িবাঁধ কেটে বিকল্প চ্যানেল তৈরী করাসহ লাবন্যবতী সাপমারা, মরিচ্চাপ, কোলকাতার খাল ও শ্রীরামপুর-বাঁকাল খালের
বেড়িবাঁধ যেখানে প্রয়োজন সেখানে উঁচু ও মজবুত করে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের
দাবি জানান।

মতবিনিময় সভায় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির বলেন, দুই দিনের বৃষ্টিতে পুরো জেলা শহর জলাবদ্ধ হয়ে গেছে। ঘরে ঘরে পানি উঠে গেছে। সাতক্ষীরা প্রথম শ্রেণির পৌরসভা হওয়া সত্বেও নাগরিক সেবার মান এমন হতে
পারে না। সাতক্ষীরায় পানি নিস্কাষনের জন্য পরিকল্পিত কোন ড্রেনেজ সিস্টেমই নেই। জেলা প্রশাসকের বাংলো এবং ইপজেলা নির্বার্হী অফিস চত্বও পানিতে নিন্মজিত। পানি নিস্কাশনের কোন পথ নেই। এ চিত্র এখন সাতক্ষীরা শহরের অধিকাংশ জায়গায়। জলাবদ্ধতা সমস্যা দীর্ঘদিনের সমস্যা। সমস্যা সমাধানে সমন্বিত প্লান করে সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে। দীর্ঘ মেয়াদী সমাধান দরকার। এজন্য সবার কাছ থেকে পরামর্শ নিয়ে কাজ করা হবে।

বিডি প্রতিদিন/আল আমীন

এই বিভাগের আরও খবর