Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১১ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ অক্টোবর, ২০১৯ ২৩:৩০

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা

সন্ত্রাস দুর্নীতির সঙ্গে আপস নয়

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত সফর সম্পর্কে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, দেশের স্বার্থ তিনি বিক্রি করবেন এটা হতে পারে না। ভারতে এলপিজি রপ্তানিসংক্রান্ত চুক্তি নিয়ে যারা সমালোচনা করছেন, যারা বলছেন গ্যাস বিক্রি করে দেওয়া হচ্ছে, তারাই গ্যাস বিক্রির মুচলেকা দিয়ে ২০০১ সালে ক্ষমতায় এসেছিল। তাঁর সরকার সব সময় দেশের স্বার্থকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে। বাংলাদেশ এলপি গ্যাস উৎপাদন করে না। বিদেশ থেকে গ্যাস আমদানি করে তা পরিশোধন করে ভারতে রপ্তানি করা হবে। এ গ্যাস রপ্তানির মাধ্যমে আমাদের রপ্তানি খাতে আরেকটি মাত্রা যোগ হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ফেনী সীমান্তবর্তী নদী। সাবরুম এলাকায় খাওয়ার পানির খুব অভাব। সেজন্য সীমান্তবর্তী ওই নদী থেকে খাবার পানি সরবরাহের চুক্তি হয়েছে। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ত্রিপুরা ছিল আমাদের ঘাঁটি। সেখান থেকে যুদ্ধ পরিচালনা করা হতো। প্রধানমন্ত্রী চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী ও দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি করে বলেছেন, যেখানে অনিয়ম সেখানেই অভিযান চালানো হবে। আবরার ফাহাদ হত্যাকান্ড সম্পর্কে বলেন, বুয়েটের ঘটনা শুনে পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করতে। অপরাধীকে অপরাধী হিসেবে দেখা হবে। অন্যায়কারীর বিচার হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও হলগুলোয় উচ্ছৃঙ্খলতা, অনিয়ম উদ্ঘাটনে তল্লাশি চালানোর নির্দেশ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সামান্য টাকায় সিট ভাড়ায় একেকজন রুমে থাকবে তারপর সেখানে বসে এ ধরনের মস্তানি করবে আর সব খরচ বহন করতে হবে জনগণের ট্যাক্সের পয়সা দিয়ে, তা কখনো গ্রহণযোগ্য না। দেশের প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, প্রতিটি হল সব জায়গায় সার্চ করা হবে। তল্লাশি চালানোর ব্যাপারে তিনি সাংবাদিকদের সহযোগিতা চেয়ে বলেন, ‘কোথায় অনিয়ম, উচ্ছৃঙ্খলতার মতো কর্মকা- কারা করছে সেগুলো জানিয়ে সহযোগিতা করুন এ ব্যাপারে কোনো দলটল আমি বুঝি না। ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবির সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ছাত্র রাজনীতি করেই আমরা এ পর্যন্ত এসেছি। তবে কোনো প্রতিষ্ঠান চাইলে সেখানে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ করা যেতে পারে। সংবাদ সম্মেলনে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের চুক্তি সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রীর ব্যাখ্যা এ সম্পর্কে সৃষ্ট ধোঁয়াশার অবসান ঘটবে বলে আশা করা যায়। পাশাপাশি সন্ত্রাস ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত রাখার ঘোষণা মানুষ-শকুনদের উৎপাত বন্ধে অবদান রাখবে- এমনটিই প্রত্যাশিত।


আপনার মন্তব্য