শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:৪৬

টিকা কাহিনী

তসলিমা নাসরিন

টিকা কাহিনী

নানা রকম টিকা এসেছে কভিড সামাল দিতে। আমার মনে হয় নানা রকম টিকা না এসে এক রকম টিকাই, যে টিকা সবচেয়ে ভালো, সেটিই বিশ্বময় আসা উচিত ছিল। নানা বিজ্ঞানীর নানা মত। সে কারণে টিকাও নানা রকম। আমেরিকায় এ নিয়ে সমস্যা নেই। আমেরিকার দুটো টিকাই আরএনএ টিকা। নতুন ভাবনা, নতুন বিজ্ঞান, নতুন পদ্ধতি, নতুন প্রযুক্তির টিকা। আমেরিকায় দুটো টিকার মধ্যে একটি পছন্দ করার নিয়ম নেই। ভাগ্যে যে টিকা থাকে, সে টিকাই নিতে হবে। আসলে এক অঞ্চলে মডার্না দেওয়া হচ্ছে তো আরেক অঞ্চলে ফাইজার দেওয়া হচ্ছে। টিকা পছন্দ করতে পার না, কিন্তু অঞ্চল পছন্দ করতে পার। যে টিকা পছন্দ কর, সে টিকা যে অঞ্চলে দেওয়া হচ্ছে, সে অঞ্চল পছন্দ করে চলে যাও সেখানে সেই টিকা নিতে। মানুষ মডার্নার টিকা নিলেও যা, ফাইজারের টিকা নিলেও তা। দুটোই কাজ করবে শতকরা ৯৫ ভাগ। দুটোই একই নিয়মে তৈরি। সংরক্ষণের জন্য তাপমাত্রার তফাৎ ছাড়া অন্য তফাৎ মূলত নেই।

পছন্দ করার সুযোগও অন্যান্য দেশে নেই। ব্রিটেনের কথাই ধরি। সেখানে দুটো টিকা আছে। একটি যুক্তরাজ্যে তৈরি আস্ট্রাজেনেকার অক্সফোর্ড টিকা। দ্বিতীয় টিকাটি ফাইজারের টিকা, যেটি যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে কিনে নিয়েছে যুক্তরাজ্য। এখন যুক্তরাজ্যের সাধারণ জনগণ দুই টিকাকে দুই নামে ডাকে। অক্সফোর্ড টিকাকে ‘ইংলিশ টিকা’, আর ফাইজারকে ‘পশ টিকা’। সবাই পশ টিকা নিতে চায়। কিন্তু সবাইকে তো পশ টিকা দেওয়া সম্ভব নয়। সবাই পশ টিকা নিলে পশ টিকার অঞ্চল উপচে উঠবে, ইংলিশ টিকার বদনাম হবে। তা ছাড়া টিকার অপ্রতুলতা তো আছেই। যেটি যখন হাতে আসছে, সেটিই জনতাকে দেওয়ার ব্যবস্থা হচ্ছে। প্রথম-বিশ্ব টিকা চাইছে, কিন্তু তড়িঘড়ি পাচ্ছে না- কারখানা থেকে তৈরি হয়ে আসার অপেক্ষা করছে। তৃতীয় বিশ্বে অবশ্য টিকা এত প্রচুর এসেছে যে টিকার অভাবে হাত গুটিয়ে বসে থাকতে হচ্ছে না।

পৃথিবীর ৮০ ভাগ মানুষ টিকা না নিলে হার্ড ইমিউনিটি সৃষ্টি হবে না। আমরা হার্ড ইমিউনিটির অপেক্ষা করছি। এ ছাড়া এই ভাইরাসকে হঠানো প্রায় অসম্ভব। যে হারে এ রূপ আর চরিত্র পাল্টাচ্ছে, যে হারে মিউটেট করছে, তা ভয়ঙ্কর। করোনাভাইরাসের চেয়ে আরও পাঁচ গুণ বেশি এর সর্বনাশ করার শক্তি। এর মধ্যেই এই ভ্যারিয়েন্ট দেখা গেছে যুক্তরাজ্যে, দেখা গেছে ব্রাজিলে, দক্ষিণ আফ্রিকায়। এদিকে আমাদের উপমহাদেশেও সর্বনাশা ভ্যারিয়েন্ট ঢুকে গেছে। দক্ষিণ আফ্রিকা আর ব্রাজিলের ভ্যারিয়েন্টই ঢুকেছে। ঢুকে ভারতের মহারাষ্ট্রে, কেরালায়, তেলেঙ্গানায় দিব্যি নাচানাচি করছে। ভারতের ভয়ানক ভিড়ের মধ্যে এই ভাইরাস যদি আগুনের মতো ছড়িয়ে যায়, তবে একে রুখবে কে? ভারতে যে দুটো টিকা দেওয়া হচ্ছে, কোনোটিই তো ভ্যারিয়েন্টের টিকিটি স্পর্শ করতে পারবে না। ভারতের দুটো টিকার মধ্যে একটি ভারতেই ভারত-বায়োটেকের বানানো কোভ্যাক্সিন, আর একটি আস্ট্রাজেনেকার সেই অক্সফোর্ড টিকা, নাম কভিশিল্ড। ভারতেও মানুষের টিকা পছন্দ করার জো নেই। যেটি কপালে আছে সেটিই নিতে হবে। অন্তত সরকারি টিকা কেন্দ্রগুলোতে তো এমনই বলা হচ্ছে। দুটো টিকার মধ্যে ট্রায়াল হয়েছে অক্সফোর্ডের, ট্রায়ালে দেখা গেছে, টিকা কাজ করে ৬২ থেকে ৯০ ভাগ পর্যন্ত। ট্রায়াল হয়নি কোভ্যাক্সিনের। কিন্তু কোভ্যাক্সিন ভাগ্যে থাকলে এটিই নিতে হবে, সবাইকে আপাতত গোপাল হয়ে যেতে হবে। গোপাল বড় ভালো ছেলে, তাহাকে যে টিকা দেওয়া যায় সে টিকাই সে নেয়। কোভ্যাক্সিন দেওয়ায় টপ টপ করে বেশ কিছু মানুষ মারা গেছে। গর্ভবতীকে কোভ্যাক্সিন টিকা দেওয়া যাবে না, অতি বৃদ্ধদের দেওয়া যাবে না, অসুখ-বিসুখ থাকলে দেওয়া যাবে না, রক্ত জমাট না বাঁধার ওষুধ খেলে দেওয়া যাবে না-এসব শর্ত হয়তো মানা হয়নি। ট্রায়াল রাশিয়ার টিকা স্পুটনিকেরও হয়নি। তবে কাজ নাকি করে ৯২ ভাগ পর্যন্ত। কে জানে। আমাদের তো আর উপায় নেই চোখ বন্ধ করে টিকা নেওয়া ছাড়া। টিকা নিলে কী হবে না হবে-ভাবার আর সময় কোথায়। অতিমারী তো কম মানুষকে হত্যা করল না। টিকা যদি জীবন বাঁচায়। বিশ্বে প্রায় একুশ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছে করোনাভাইরাসে। এক আমেরিকাতেই পাঁচ লাখেরও বেশি মানুষকে করোনা খেলো। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে আর ভিয়েতনাম যুদ্ধে আমেরিকার যত মানুষ মারা গিয়েছিল, তার চেয়ে বেশি মারা গেছে এক করোনাভাইরাসের ছোবলে।

মডার্না আর ফাইজার ছাড়া বাজারে যত টিকা আছে, সব পুরনো পদ্ধতিতে তৈরি, মৃত অথবা জীবিত ভাইরাস দিয়ে। কিন্তু ওদের, বিশেষ করে ফাইজারকে সংরক্ষণ করার যে তাপমাত্রা ব্যবহার করতে হবে, তা অনেক দেশের পক্ষে নিয়ন্ত্রণ করা মুশকিল। ভারতের সঙ্গে ফাইজারের একটা চুক্তি হয়েছিল, কী এক অদ্ভুত কারণে সেই চুক্তি নাকচ হয়ে গেছে। মাঝে শুনেছিলাম টাটা নাকি আমেরিকা থেকে মডার্না টিকা নিয়ে আসবে। সে দিনটি কবে আসবে তা কেউ বলতে পারে না। আদৌ আসবে কিনা কে জানে। সেটিও তো আবার মাইনাস কুড়ি ডিগ্রি সেলসিয়াসে রাখতে হয়। কোনো বিজ্ঞানীই জানেন না কী হবে শেষ অবধি, টিকা কতদিন কাজ করবে জানেন না। এত যে রূপ-চরিত্র বদল করছে ভাইরাস- বদল করছে আর শক্তিশালী হচ্ছে, এ থেকেও বা কী করে বাঁচবে মানুষ জানেন না। এই নতুন ভ্যারিয়েন্ট কি আবার মহামারী দেবে, তাও জানেন না। এদিকে আবার টিকা-বিরোধী লোকও বাড়ছে। টিকা-বিরোধীরা টিকা না নিলে কি হার্ড ইমিউনিটি তৈরি হবে, তাও জানেন না। টিকাই বা শরীরে কোনো সমস্যা করে কি না ভবিষ্যতে তাও জানেন না। কভিড-১৯ এ যারা আক্রান্ত হয়েছে, তাদের শরীরের কলকব্জা কতটা নষ্ট হলো তাও ঠিক জানা নেই। নতুন ভ্যারিয়েন্ট দ্বারা শিশুরা কেন আক্রান্ত হচ্ছে বেশি, জানা নেই। এসব দেখে আমরা যদি উদ্বিগ্ন হই, বুঝে না পাই কী করা উচিত, আমরা যদি হতাশায় ডুবে যাই- তবে অবাক হওয়ার কি কিছু আছে?

করোনাভাইরাস গত এক বছর থেকে আমাদের হাড়ে হাড়ে বুঝিয়ে দিচ্ছে আমরা সবাই এক পৃথিবীর সন্তান। যতই আমরা দেয়াল তুলি ভূখন্ডে, যতই আমরা ধনী গরিবে, উন্নত অনুন্নতয়, সাদা কালোয়, শিক্ষিত অশিক্ষিতয় পৃথিবী ভাগ করি- ভাইরাস এসে আমাদের সবাইকে এক কাতারে দাঁড় করিয়ে দেয়। আমাদের জীবন একই রকম তছনছ করে দেয়। আমরা সবাই এক হয়ে যাই দুর্যোগে দুঃসময়ে। কিন্তু যত আমাদের এক হওয়ার দরকার ছিল, তত কি আসলেই হয়েছি?

টিকা বেচাকেনা চলছে। রাশিয়ার যে স্পুটনিক-ভি টিকাকে মানুষ সন্দেহের চোখে দেখত, বিখ্যাত মেডিক্যাল জার্নাল ল্যানসেট একে সায় দেওয়ার পর রাশিয়া এখন বিশ্বময় স্পুটনিক-ভি’র কোটি কোটি ডোজ দিব্যি বিক্রি করে চলেছে। লাতিন আমেরিকায় এখন আমেরিকার টিকার চেয়ে রাশিয়ার টিকা কেনার ধুম চলছে। শুধু রাশিয়ার নয়, চীনের সিনোভ্যাক আর সিনোফার্মও কিনছে ওরা। এতে ক্ষুব্ধ কারা? অবশ্যই আমেরিকা। আমেরিকার গায়ের সঙ্গে লেপ্টে আছো, নামও আমেরিকা ধারণ করে আছো, আর কিনছো দূর দেশের সন্দেহজনক টিকা, যে টিকাকে প্রথম বলা হয়েছে ৯০ ভাগ কাজ করে, আবার কিছুদিন পর বলা হয়েছে ৯২ ভাগ। এ তো মোটেও বিজ্ঞানসম্মত ব্যবহার নয়। রাশিয়ার টিকার কোনো ট্রায়ালই হয়নি, যেখানে ট্রায়ালের পুঙ্খানুপুঙ্খ ফল প্রকাশ করতে হয়, তারপর ফল ভালো হলে টিকা অনুমোদন পায় মানুষের ব্যবহারের জন্য। লাতিন আমেরিকা শুধু নয়, ইউরোপের হাঙ্গেরিও কিনছে রাশিয়ার টিকা। যেখানে স্পুটনিক-ভি বের হওয়ার পর রাশিয়ার অধিকাংশ নাগরিকই ঘোষণা করেছিল তারা স্পুটনিক-ভি টিকা নেবে না, সেখানে বাইরের দেশ এত ঝুঁকলো কেন রাশিয়ার টিকার দিকে। এমনকী চীনের টিকার দিকে? এর কারণও কিছু বের করা গেছে। মডার্না আর ফাইজারের বিরুদ্ধে নাকি কিছু প্রচারণা চলেছে ওসব দেশে। ধারণা করা হচ্ছে রাশিয়া এবং চীনই প্রচারণার ষড়যন্ত্র করেছে।

কে আগে টিকা বানাতে পারে, কে আগে টিকা বেচতে পারে- রীতিমতো প্রতিযোগিতা চলছে। এই প্রতিযোগিতা দেখলে মনে হয় আমরা মানুষ, মানুষের চরিত্র এমনই, পৃথিবী শ্মশান হয়ে গেলেও মানুষ তার চরিত্র বদলাবে না। ঠান্ডা যুদ্ধ কে বলেছে শেষ হয়েছে!

মানুষ শুধু স্বার্থপর আর কুচক্রীই নয়, মানুষ উদারও, মহানও। মানুষ মানুষকে বাঁচাতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে। সারা পৃথিবীর কম ডাক্তার আর কম নার্স প্রাণ দেয়নি, শুধু কভিড থেকে রোগীকে বাঁচাতে গিয়ে নিজে কভিডে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে। তবে এই দুর্যোগের সময় টিকা বেচে লাভবান যে হতে চায় হোক, টিকা যেন কার্যকরী এবং নিরাপদ হয়। আমাদের বিশ্বাস নিয়ে ছিনিমিনি না খেলে আমাদের যেন বাঁচতে সাহায্য করে, আমরা বাঁচলেই তো প্রজাতি বাঁচবে। হতভাগা প্রজাতির প্রতি যত রাগ হয়, তারও চেয়ে বেশি মায়া হয়।

            লেখক : নির্বাসিত লেখিকা।


আপনার মন্তব্য