শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ এপ্রিল, ২০২১ ২২:৪৫

করোনা টিকা

সবার জন্য নিশ্চিত করা জরুরি

Google News

কভিড-১৯ প্রতিরোধের জন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশে টিকার ব্যবহার শুরু হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য প্রভৃতি দেশে গণটিকাদান কর্মসূচি বেশ সফলও হয়েছে। বাংলাদেশও একই পথে এগিয়ে চলেছে। ইতিমধ্যে প্রথম ডোজের টিকা দেওয়া হয়েছে। এ পর্যন্ত প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ মিলে টিকা দেওয়া হয়েছে ৭৪ লাখ ২৩ হাজার ২৭৪ ডোজ। সরকারের হাতে মোট টিকা ছিল ১ কোটি ২ লাখ ডোজ। এখন হাতে আছে ২৭ লাখ ৭৬ হাজার ৭২৬ ডোজ। সুতরাং একই সঙ্গে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ চালু রাখলে হাতে থাকা টিকা দিয়ে আর দুই সপ্তাহের মতো চলতে পারে। কিন্তু পরের জন্য টিকা সংগ্রহ নিয়ে ক্রমেই চিন্তা বাড়ছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের। ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে বাংলাদেশ সরকারের চুক্তি অনুযায়ী পাওনা বাকি ২ কোটি ৩০ লাখ ডোজ টিকা তাড়াতাড়ি দেশে আনার চেষ্টা চলছে। পাশাপাশি নতুন করে তোড়জোড় শুরু হয়েছে অন্যান্য দেশ থেকেও টিকা সংগ্রহের। এ ক্ষেত্রে সরাসরি সরকারি পর্যায়েও বিভিন্ন দেশের সঙ্গে যোগাযোগ চলছে। আমেরিকা থেকে মডার্না ও জনসন অ্যান্ড জনসনের টিকা দেশে আনার জন্য এরই মধ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন জমা দিয়েছে একাধিক ওষুধ প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান। রাশিয়া ও চীন থেকেও টিকা আনার জন্য দেনদরবার শুরু হয়েছে সরকারি পর্যায়েই। এ ক্ষেত্রে দেশের একাধিক প্রতিষ্ঠান ওই দুই দেশের টিকা দেশে উৎপাদনের প্রস্তুতি নিয়েছে। আমরা মনে করি সম্ভাব্য সব উৎস থেকে করোনার টিকা সংগ্রহের সরকারি ভাবনাটি যথাযথ, তবে টিকার গুণগতমান, কার্যকারিতা ও নিরাপত্তার বিষয়গুলো নিশ্চিত করা অত্যন্ত জরুরি। মানুষকে টিকা নিশ্চিত করতে হবে। টিকা আমদানি, পরিবহন ও সংরক্ষণের ক্ষেত্রে বিজ্ঞানসম্মত পদ্ধতি অনুসরণ করা হচ্ছে কি না সেদিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখা একান্ত জরুরি। সুরক্ষার জন্য স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে।