শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২১ মে, ২০১৬ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ মে, ২০১৬ ০০:০৮

কান-এ বাংলাদেশ

শোবিজ ডেস্ক

কান-এ বাংলাদেশ

কান চলচ্চিত্র উৎসবের বাণিজ্যিক শাখা মার্শে দ্যু ফিল্মে প্রদর্শিত হলো বাংলাদেশের দুটি ছবি— আয়নাবাজি ও অজ্ঞাতনামা। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় একই সঙ্গে দুটি ছবিরই প্রদর্শনী হয়েছে। অমিতাভ রেজার ‘আয়নাবাজি’ দেখানো হয়েছে গ্রে-থ্রি প্রেক্ষাগৃহে। আর তৌকীর আহমেদের ‘অজ্ঞাতনামা’ দেখানো হয়েছে প্যালেস আই প্রেক্ষাগ্রহে। 

‘অজ্ঞাতনামা’র প্রদর্শনীতে নির্মাতা তৌকীর আহমেদ তো বটেই সঙ্গে ছিলেন তার সহধর্মিণী বিপাশা হায়াতও। বাংলাদেশ থেকে আরও গিয়েছিলেন ছবিটির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ইমপ্রেস টেলিফিল্ম লিমিটেডের একদল প্রতিনিধি। তাদের মধ্যে ছিলেন প্রযোজক ফরিদুর রেজা সাগর ও তার সহধর্মিণী কনা রেজা, নির্বাহী প্রযোজক ইবনে হাসান খান, চ্যানেল আইয়ের কর্মী মৃত্তিকা গুণ। ছবিটি দেখেছেন বাংলাদেশি নির্মাতা সামিয়া জামান ও স্বপন আহমেদ। অস্ট্রেলিয়া থেকে সস্ত্রীক এসেছেন ফরিদুর রেজা সাগরের ছোটভাই প্রবাল। প্রদর্শনীতে বিদেশি বেশ কয়েকজন সাংবাদিকও ছিলেন। তারা ছবিটির ভূয়সী প্রশংসা করেন। হাস্যরসের মোড়কে বিদেশে জনশক্তি রপ্তানির অন্ধকার দিকটি দারুণভাবে তুলে ধরেছেন তৌকীর।

এদিকে ‘আয়নাবাজি’র প্রদর্শনী উপলক্ষে কান-এ ছুটে গিয়েছেন নির্মাতা অমিতাভ রেজা এবং দুই প্রযোজক গাউসুল আলম শাওন ও জিয়াউদ্দিন আদিল। এখানেও বিদেশি সাংবাদিকদের উপস্থিতি ছিল বেশ।

ছবিটির গল্পে দেখা যায়, যাত্রার নায়িকার সন্তান আয়না মায়ের চিকিৎসার জন্য তিন মাস আরেকজনের বদলি জেল খাটতে রাজি হয়। কিন্তু তার বের হতে লেগে যায় তিন বছর। যৌথভাবে চিত্রনাট্যও রচনা করেছেন তিনি। ‘আয়নাবাজি’র প্রদর্শনী শেষে বিদেশি সাংবাদিকরা অমিতাভ রেজার ভূয়সী প্রশংসা করলেন। তাদের সঙ্গে দুই প্রযোজক শাওন আর আদিল বেশ কিছুক্ষণ কথা বলেন। এই ইতিবাচক প্রতিক্রিয়ায় তারা অভিভূত। এটা বাংলাদেশি ছবির জন্য ইতিবাচক।


আপনার মন্তব্য