শিরোনাম
প্রকাশ : ৩১ মে, ২০২১ ০৮:৪০
প্রিন্ট করুন printer

সরকারি নিষেধাজ্ঞা নেই

জোর করে বন্ধ করা হচ্ছে সিনেমা হল

শোবিজ প্রতিবেদক


জোর করে বন্ধ করা হচ্ছে সিনেমা হল
Google News

করোনাকালীন স্বাস্থ্যবিধি মেনে সিনেমা হল চালানোর সরকারি অনুমতি থাকলেও সম্প্রতি ঈদে বিভিন্ন স্থানে জেলা প্রশাসক পুলিশ দিয়ে জোর করে সিনেমা হল বন্ধ করে দেওয়ায় চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছে চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতি। ঈদে ১১৫টি সিনেমা হল খোলা হয়েছিল। এটি ছিল চলচ্চিত্র শিল্পের জন্য একটি শুভ লক্ষণ। কিন্তু অন্যায়ভাবে স্থানীয় প্রশাসন অলিখিত আদেশে সারা দেশে বেশ কিছু সিনেমা হল বন্ধ করে দেওয়ায় ফের ধ্বংসের মুখে পড়ল এই শিল্পটি।

চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির প্রধান উপদেষ্টা সুদীপ কুমার দাস বলেন, ঈদে ডিপজল প্রযোজিত নতুন ছবি ‘সৌভাগ্য’ মুক্তি দেওয়া হয়। মুক্তির প্রথম দিনই ঢাকার আনন্দ, ছন্দ এবং চিত্রামহল, দিনাজপুরের মডার্ন,  সৈয়দপুরের তামান্না, সিলেটের নন্দিতা বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন। যদিও এবারের লকডাউনের সরকারি নির্দেশনায় সিনেমা হল বন্ধের কোনো নির্দেশ নেই।

তিনি আরও বলেন, ঈদের দুই দিন আগে তথ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে আমি সিনেমা হল বন্ধ না করার লিখিত আবেদন জানাই। এতে সরকার সিনেমা হল খোলার আদেশ বহাল রাখে। তা সত্ত্বেও জেলা প্রশাসক কেন পুলিশ দিয়ে সিনেমা হল বন্ধ করলেন? 

চলচ্চিত্র-সংশ্লিষ্ট নেতৃবৃন্দ জানান, করোনায় সিনেমা হল খোলা থাকলেও তাতে ১৫ ভাগের বেশি দর্শক উপিস্থিতি নেই। ঈদে হাউসফুল তো দূরের কথা হলের অর্ধেক আসনও পূর্ণ হয়নি। তাই এ ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘনের মতো কোনো ঘটনা ঘটেনি বা ঘটার আশঙ্কাও নেই।  এমন অবস্থায় যদি অহেতুক সিনেমা হল বন্ধ করা হয় তাহলে এর মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব পড়বে চলচ্চিত্র শিল্পের ওপর- জানান সুদীপ কুমার।

এই বিভাগের আরও খবর