শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ৯ নভেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা
আপলোড : ৮ নভেম্বর, ২০১৬ ২৩:১৪

নাসিরনগরে হামলাকারীরা শনাক্ত

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি

নাসিরনগরে হামলাকারীরা শনাক্ত

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, দেশে কোনো ধরনের সাম্প্রদায়িক শক্তিকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে দেওয়া হবে না। হিন্দু-বৌদ্ধ-মুসলমান-খ্রিস্টান সবাই মিলে বাংলাদেশ। যারা ধর্মের নামে নাসিরনগরে তাণ্ডব চালিয়েছেন তাদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। হামলাকারীরা কেউ রেহাই পাবে না। সব অপরাধীকে খুঁজে বের করা হবে। দেশের উন্নতিকে বাধাগ্রস্ত করতেই এমন সাম্প্রদায়িক তাণ্ডব চালানো হয়। গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নাসিরনগরে ক্ষতিগ্রস্ত মন্দিরসহ বাড়িঘর পরিদর্শনের পর বিকাল সাড়ে ৩টায় নাসিরনগরে জেলা পুলিশ আয়োজিত সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, আমরা কোনো ঘটনাকে ছোট মনে করি না। তবুও কেন রামুর মতো ঘটনা বারবার দেখতে হচ্ছে। সে কারণগুলো আমরা খুঁজে বের করছি। এসবের মূল কারণ হলো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব মানুষকে সঙ্গে নিয়ে বাংলাদেশকে যেভাবে উন্নয়নের দিকে নিয়ে যাচ্ছেন সেই ধারাকে বিপর্যস্ত করার জন্যই এসব হামলার ঘটনা ঘটছে। আগুন সন্ত্রাস, বিদেশি হত্যা, ধর্মগুরুদের হত্যা প্রচেষ্টার মাধ্যমে দেশকে অস্থিতিশীল করার চক্রান্তে ব্যর্থ হয়ে একটি গোষ্ঠী নতুন করে এসব ঘটনা ঘটাচ্ছে। দেশে সংখ্যালঘু বলতে কেউ নেই। যারা জঙ্গি তারাই সংখ্যালঘু। আমরা সবাই বাংলাদেশি, বাঙালি। মত্স্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী ছায়েদুল হক বলেন, ঘটনার দিন পাশের জেলার মাধবপুর উপজেলা থেকে ১৪টি ট্রাকে করে হাফপ্যান্ট পরা লোকজন এসে হামলা করেছে। কারা লোকজন আনল তাদের খুঁজে বের করতে হবে। বিশেষ অতিথি যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ড. বীরেন শিকদার বলেন, এখানে যারা তাণ্ডব চালিয়েছে তারা পশুর চেয়ে অধম। তাদের দেশ থেকে নির্মূল করতে হবে। পুলিশের আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক বলেন, যারা হামলা করেছে তারা কোনো ধর্মের লোক নয়। র‌্যাব ডিজি বেনজীর আহমেদ বলেন, আমরা বলেছিলাম, ইঞ্চি ইঞ্চি মাটি খুঁড়ে জঙ্গিদের বের করে আনব। আজ আমরা জঙ্গিদের ছিন্নভিন্ন করে দিয়েছি। মত্স্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ছায়েদুল হকের সভাপতিত্বে সুধী সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (এসবি) জাবেদ পাটোয়ারী, চট্টগ্রাম রেঞ্জ পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মোহা. শফিকুল ইসলাম, জেলা প্রশাসক রেজওয়ানুর রহমান, পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান, চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি শফিকুল ইসলাম, রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের অধ্যক্ষ স্বামী ধ্রুবেশান্দজী মহারাজ, কেন্দ্রীয় পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি জয়ন্ত সেন দিপু, খ্রিস্টান অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি নির্মল রোজারিও, ইসকন-এর উপদেষ্টা কৃষ্ণ ক্রীর্তন ব্রহ্মচারী, জামিয়া ইউনুছিয়া মাদ্রাসার মোহাদ্দেস ও দারুল আহকাম মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল সাজেদুর রহমান প্রমুখ।


আপনার মন্তব্য