শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৬ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৫ আগস্ট, ২০১৯ ২৩:২১

বিনা প্রশ্নে ১৫০০ ডলার পর্যন্ত রেমিট্যান্স পাঠাতে পারবে : অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিনা প্রশ্নে ১৫০০ ডলার পর্যন্ত রেমিট্যান্স পাঠাতে পারবে : অর্থমন্ত্রী

রপ্তানি ক্ষেত্রে নতুন করে ১৩টি খাতে প্রণোদনা দেবে সরকার। এ ছাড়া প্রবাসী বাংলাদেশিরা এখন থেকে ১ হাজার ৫০০ মার্কিন ডলার পর্যন্ত রেমিট্যান্স বিনা প্রশ্নে দেশে পাঠাতে পারবেন। সেই সঙ্গে রেমিট্যান্সের ক্ষেত্রে ২ শতাংশ প্রণোদনা দেওয়ার বিষয়ে এর আগেই সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। যা অর্থমন্ত্রীর চলতি বছরের বাজেট বক্তৃতাতেও উল্লেখ ছিল। গতকাল সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সংক্রান্ত বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।  বৈঠক শেষে অর্থসচিব আবদুর রউফ তালুকদার সাংবাদিকদের বলেন, রপ্তানি প্রণোদনায় প্রতি বছরই কিছু না কিছু আনা পরিবর্তন হয়। সে আলোকেই বৈঠকে এবার ১৩টি পণ্য যোগ হয়েছে। এ ছাড়া প্রবাসীরা রেমিট্যান্স পাঠালে ২ শতাংশ নগদ সুবিধা দেওয়া হবে। এটি অনুমোদন হলো। কীভাবে এ সুবিধা দেওয়া হবে তা জানিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক চলতি সপ্তাহেই সার্কুলার জারি করবে। তিনি বলেন, গার্মেন্ট খাতে চার ধরনের প্রণোদনা দেওয়া হয়ে থাকে। এটি যথাক্রমে, চার, চার এবং দুই শতাংশ হারে। যারা ইউরোপ, আমেরিকা, কানাডায় রপ্তানি করে তারা এ সুবিধা পায় না। বাজেটের ঘোষণা অনুযায়ী, যারা তৈরি পোশাক রপ্তানিতে কোনো সুবিধা পায় না তাদের এবার ১ শতাংশ সুবিধা দেওয়া হবে। অর্থাৎ ইউরোপ, আমেরিকায় তৈরি পোশাক রপ্তানিতে এখন থেকে ১ শতাংশ নগদ সহায়তা দেওয়া হবে। এর জন্য ২ হাজার ৮০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। যেসব যন্ত্রপাতি ওষুধ খাত সংশ্লিষ্ট ছিল কিন্তু এতদিন ধরা হয়নি এমন পণ্যকে ওষুধ খাতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। অর্থাৎ মেডিকেল যন্ত্রপাতি এবং অপারেশন সামগ্রী ওষুধ খাতের মতোই ১০ শতাংশ প্রণোদনা পাবে। গরু-মহিষের নাড়ি, ভুঁড়ি, শিং ও হাড় দিয়ে তৈরি পণ্য রপ্তানিতে নগদ সহায়তা দেওয়া হবে। তবে এগুলো বিদেশে পাঠানোর আগে শতভাগ যাচাই-বাছাই করা হবে। সব ঠিক থাকলে ১০ শতাংশ নগদ সহায়তা দেওয়া হবে। হালকা প্রকৌশলী পণ্যের ক্ষেত্রেও একই হার বজায় থাকবে। ওয়ালটন বিভিন্ন গৃহস্থালি পণ্য (হোম অ্যাপ্লায়েন্স) বিদেশে রপ্তানি করে। এটি উৎসাহিত করতে কাস্টমসের মাধ্যমে শতভাগ যাচাই সাপেক্ষে এবার ১০ শতাংশ প্রণোদনা দেওয়া হবে। কারণ, অতীত অভিজ্ঞতা বলে, শতভাগ যাচাই ছাড়া শুধুমাত্র কাগজ দেখিয়ে অনেকে নগদ প্রণোদনার টাকা নিয়ে গেছেন। তাই এবার আর সে ব্যবস্থা থাকছে না। যাচাইয়ের কাজটি করবে কাস্টমস। পাটকাঠি থেকে উৎপাদিত পণ্য রপ্তানি প্রণোদনা পায়। এবার তার সঙ্গে যোগ হচ্ছে পার্টিক্যাল বোর্ড। এ ছাড়া সুপারির পাতার খোল দিয়ে তৈরি বিভিন্ন পণ্য, (ওয়ানটাইম প্লেট, কাপ ও গ্লাস) গার্মেন্টের ঝুট কাপড় দিয়ে তৈরি পণ্যও এই সুবিধা পাবে। এ ছাড়া কুঁচিয়া রপ্তানির বেলায় ছাড়পত্রের ক্ষেত্রে শিথিল করা হয়েছে। এখন থেকে পরিবেশ অধিদফতরের পরিবর্তে মৎস্য অধিদফতরের ছাড়পত্র নিতে হবে। সরকারের এসব উদ্যোগের ফলে দেশে কর্মসংস্থান বাড়বে বলে মনে করেন অর্থসচিব। তিনি বলেন, কারিগরি শিক্ষিতদের একজনও বেকার নেই। তবে যারা সাধারণ শিক্ষায় শিক্ষিত তাদের একটা অংশ বেকার রয়ে গেছে বলে জানান তিনি।


আপনার মন্তব্য