Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ আগস্ট, ২০১৯ ২৩:৪৪

ভাড়াটে কিলার পাঠায় খুনি রশীদ

মাল্টা থেকে খালি হাতে ফেরত আসে টাস্কফোর্স

বিশেষ প্রতিবেদন

ভাড়াটে কিলার পাঠায় খুনি রশীদ

লিবিয়ায় অবস্থানরত বঙ্গবন্ধুর তিন খুনিকে ধরে আনতে গিয়ে মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে আসেন টাস্কফোর্সের দুই সদস্য। বঙ্গবন্ধুর খুনি কর্নেল (অব.) খন্দকার আবদুর রশীদের পাঠানো ভাড়াটে কিলারদের তাড়া খেয়ে মাল্টা থেকেই ফিরে আসতে হয়েছে তাদের। মাল্টা পুলিশকে তথ্য দিতে আধা ঘণ্টা দেরি হলেই এ দুই সদস্যকে জীবিত পাওয়া যেত কিনা সন্দেহ ছিল। ঘটনাটি ১৯৯৮ সালের। আর এ দুই সদস্য হলেন সাবেক সচিব ওয়ালিউর রহমান ও এনএসআইর তৎকালীন মহাপরিচালক কাজী মশিউর রহমান।

২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের ব্যবস্থা নেওয়া হয়। ১৯৯৮ সালে বিচারের কার্যক্রম শুরু হলে খুনিদের বিদেশ থেকে ফিরিয়ে আনতে গঠিত হয় টাস্কফোর্স। পররাষ্ট্র, স্বরাষ্ট্র, আইন মন্ত্রণালয় ছাড়াও সেই টাস্কফোর্সের সদস্য ছিলেন সিআইডি, এনএসআইসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্য। সাবেক সচিব ওয়ালিউর রহমান ছিলেন টাস্কফোর্সের অন্যতম সমন্বয়কারী। এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে খুনি পাকড়াওয়ের ‘মিশন লিবিয়া’ নিয়ে কথা হয় টাস্কফোর্সের সমন্বয়কারী সাবেক সচিব ওয়ালিউর রহমানের সঙ্গে। তিনি বলেছেন তাদের সেই মিশনের কথা। কথায় ফুটে উঠেছে রশীদকে ফেরত আনতে না পারার আক্ষেপের বিষয়টিও। ওয়ালিউর রহমান বলেন, ‘১৯৯৮ সালে কর্নেল (অব.) রশীদের অবস্থান সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট তথ্য পাওয়া যায়। আমরা জানতে পেলাম, বঙ্গবন্ধুর খুনি রশীদ লিবিয়ায় রয়েছেন। বাংলাদেশ সরকার টাস্কফোর্সকে লিবিয়া পাঠানোর উদ্যোগ নেয়। আমাকে বলা হয় লিবিয়া যেতে। আমি আরেকজনের কথা বলায় টিমে যুক্ত করা হয় অত্যন্ত সৎ অফিসার এনএসআইর তৎকালীন ডিজি কাজী মশিউর রহমানকে।’ তিনি বলেন, ‘আমি একসময় রোমের রাষ্ট্রদূত ছিলাম। লিবিয়ার রাষ্ট্রদূত তখন ছিলেন আবদুর রহমান আল শলগাম। আমার ভালো বন্ধু। এ শলগামই তখন লিবিয়া পার্লামেন্টের স্পিকার। আমি তার সঙ্গে যোগাযোগ করি। ঢাকা থেকে বেশ কয়েকবার কথা বলি শলগামের সঙ্গে। শলগাম আশ্বস্ত করে বলেন, খুনিদের ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে মুয়াম্মার গাদ্দাফির সঙ্গে তার কথা হয়েছে। তিনি এও বলেন, বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলকে অত্যন্ত গোপনে লিবিয়ায় যেতে হবে। শুধু তাই নয়, সরাসরি ফ্লাইটের পরিবর্তে লিবিয়া যেতে হবে সড়কপথে। দারুণ উত্তেজনা আর অজানা আশঙ্কা নিয়ে যাত্রা করলাম দুজন। আমরা কায়রো হয়ে লিবিয়া বর্ডারে অপেক্ষা করি। শলগামের সঙ্গে যোগাযোগ করি। তিনি বলেন, গাদ্দাফি ত্রিপোলিতে নেই। তিনি বেনগাজি গিয়েছেন। তিন-চার দিন পর আসতে হবে। আমরা সেখান থেকে মিলানে ফেরত যাই। পরে সেখান থেকে যোগাযোগ করি। শলগাম আমাদের মাল্টা হয়ে আসতে বলেন। শলগামের দিকনির্দেশনা অনুযায়ী আমরা মাল্টা পৌঁছি। মাল্টার পুলিশ কমিশনার আমাদের স্বাগত জানান। কেউ যাতে কিছু বুঝতে না পারে সেজন্য আমরা মাল্টার একটি অখ্যাত হোটেলে অবস্থান করি।’ সাবেক এই সচিব বলেন, ‘মাল্টা হলো ক্রাইম সেন্টার। তাই আমাদের মনে একটু ভয়ও ছিল। আমি সেখান থেকে আবারও শলগামের সঙ্গে কথা বলি। এবার শলগাম বলেন, সেখান থেকে সড়কপথে তাদের লিবিয়া যাওয়া যাবে না। নৌকায় চড়ে নদী পাড়ি দিয়ে লিবিয়ায় পৌঁছতে হবে। আমাদের জন্য একটি লঞ্চের মতো দেখতে নৌকার ব্যবস্থা করে রাখা হয়েছে। পরদিন সকালেই রওনা হব লিবিয়ার ত্রিপোলির উদ্দেশে। কিন্তু মধ্যরাতে সেই পুলিশ কমিশনার ৪০-৫০ জন ফোর্স নিয়ে হোটেলে হাজির। তিনি হন্তদন্ত হয়ে বললেন, “কোনো কথা হবে না। এখন এই মুহূর্তে আপনাদের মাল্টা ত্যাগ করতে হবে। রশীদ ভাড়াটে কিলার পাঠিয়েছে। ইতিমধ্যে রাস্তায় আমরা একজনকে ধরে ফেলেছি। বাকিরা পালিয়ে গেছে। তারা কোথায় কী অবস্থায় কোথায় যাচ্ছে আমরা জানতে পারিনি। যাকে গ্রেফতার করা হয়েছে, তার কাছ থেকে রশীদের খবর জানতে পেরেছি।” পুলিশ কর্মকর্তা আমাদের তখনই মাল্টা ত্যাগের পরামর্শ দেন। অন্যথায় তিনি আমাদের কোনো নিরাপত্তা দিতে পারবেন না। যে কোনো মুহূর্তে হামলা হতে পারে। আমাদের পক্ষে ঠেকানো সম্ভব নয়।’ এরপর ওয়ালিউর রহমান কথা বলেন স্পিকার শলগামের সঙ্গে। শলগাম তার অসহায়ত্ব প্রকাশ করে বলেন, ‘আপনাদের আসার খবর রশীদের কাছে চলে গেছে। রশীদ ভাড়াটিয়া কিলার পাঠিয়েছে আপনাদের হত্যা করতে। তাই আপনারা এখনই চলে যান। আমরা এসব ঝামেলায় জড়াতে চাই না।’ ওয়ালিউর রহমান স্পিকারের কাছে সাহায্য চেয়েও তখন পাননি। তাদের একরকম জোর করেই একটি বিশেষ বিমানে করে ইতালির মিলানে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

টাস্কফোর্সের সদস্যরা যে হোটেলে উঠেছিলেন, সেই হোটেলের বিল মেটানোর সময়ও তাদের দেওয়া হয়নি। তারা যে পায়জামা পরা ছিলেন, তা পরনে রেখেই প্রথমে পুলিশ কমিশনারের অফিসে যান। সেখান থেকে এয়ারপোর্ট। মিলান থেকেই টাস্কফোর্স লন্ডন হয়ে ফেরত আসে ঢাকায়।

জানা গেছে, বঙ্গবন্ধুর খুনিরা মাফিয়া চক্রের সঙ্গে জড়িত রয়েছে। রশীদের ব্যবসা রয়েছে গাদ্দাফির ছোট ভাইয়ের সঙ্গে। যে কারণে লিবিয়ায় তার রয়েছে প্রচ- প্রভাব। ওই সময় জিম্বাবুয়ে, শাদসহ বেশ কয়েকটি দেশে গৃহযুদ্ধ চলছিল। লিবিয়ার নেতা গাদ্দাফি সেসব দেশকে সাহায্য করতেন সামরিক প্রশিক্ষণ দিয়ে। গাদ্দাফি এই প্রশিক্ষণের দায়িত্ব দেন বঙ্গবন্ধুর খুনি রশীদ, ফারুক, ডালিমদের। ফলত গাদ্দাফির সঙ্গে তাদের সম্পর্ক ছিল ঘনিষ্ঠ।

ওয়ালিউর রহমান বলেন, ‘একটা আক্ষেপ রয়েই গেছে। লিবিয়ার কাছাকাছি গিয়েও রশীদদের ধরে আনতে পারিনি।’

(প্রতিবেদনটি তৈরিতে সহায়তা করেছেন : মির্জা মেহেদী তমাল, সাখাওয়াত কাওসার, গোলাম রাব্বানী ও মাহবুব মমতাজী।)


আপনার মন্তব্য