শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ ডিসেম্বর, ২০১৯ ২৩:০৮

ওষুধের দাম নিয়ে নয়ছয়

প্রতারণার শিকার ক্রেতারা

জয়শ্রী ভাদুড়ী

ওষুধের দাম নিয়ে নয়ছয়

রাজধানীর পদ্মা জেনারেল হাসপাতালে অপারেশনের এক রোগীর কাছে গত ২৪ এপ্রিল দুই বক্স ফেডরিন ইনজেকশন বিক্রি করা হয়েছে ৮০০ টাকায়। অথচ পপুলার ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানির এই ইনজেকশনের প্যাকেটের গায়ে প্রতিটির দাম লেখা রয়েছে ২৫ টাকা। ১০টির বক্সের দাম ২৫০ টাকা। আর দুই প্যাকেটের দাম রাখা হয় ৫০০ টাকার বদলে ৮০০ টাকা। স্বপ্না বেগম নামে ওই রোগীর স্বজনদের কাছ থেকে এরকম গলা কাটা দাম রাখা হয়েছে। ওই হাসপাতালেই ২৭ এপ্রিল একই ইনজেকশন প্রতি বক্স ফারুক হাওলাদার নামে আরেক রোগীর স্বজনদের কাছে বিক্রি করা হয়েছে ৪১৫ টাকা করে। তাদের কাছে দুই বক্স ইনজেকশন বিক্রি করা হয় ৮৩০ টাকায়। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের অভিযানে বেরিয়ে আসে ওষুধের দাম নিয়ে প্রতারণার এই চিত্র।  রাজধানীর সোনারগাঁও সড়কের পদ্মা জেনারেল হাসপাতালের ফার্মেসিতে অভিযান চালালে উঠে আসে ওষুধের দাম নিয়ে ক্রেতাদের সঙ্গে প্রতারণার এ ঘটনা। এ অভিযানে উপস্থিত ছিলেন কলাবাগান থানার উপ-পরিদর্শক আদনান বিন আজাদ। তিনি বলেন, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের নিয়মিত মনিটরিংয়ের অংশ হিসেবে পদ্মা জেনারেল হাসপাতালে অভিযান চালানো হয়েছিল। হাসপাতালের ফার্মেসির শিট বের করলে দেখা যায়, এরকম আকাশ-পাতাল দাম রাখা হয়েছে ক্রেতাদের কাছ থেকে। পরবর্তীতে দায়িত্বপ্রাপ্ত ম্যাজিস্ট্রেট তাদের জরিমানা করেছেন। ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল ডা. মাহবুবুর রহমান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ফার্মেসিতে ওষুধের নির্ধারিত দাম টানানোর নিয়ম রয়েছে। কিন্তু তারা এটা রাখে না। এত ধরনের ওষুধ যে সবগুলোর দাম টানানোও কঠিন। আমরা সমস্যা সমাধানের জন্য পরিকল্পনা করছি। ক্রেতাদের সঙ্গে প্রতারণা ঠেকানোই আমাদের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ওষুধের বাজার ক্রমশ নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়েছে। দেশজুড়ে ওষুধ বাণিজ্যে গড়ে উঠেছে সংঘবদ্ধ সিন্ডিকেট। বাজারে প্রচলিত বিভিন্ন ওষুধের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে নির্ধারিত মূল্যের কয়েকগুণ বেশি দাম রাখা হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ওষুধের মূল্য নিয়ে নৈরাজ্য দীর্ঘদিনের। ২০০৮ সালে অপরিহার্য ওষুধের ক্যাটাগরিতে সরকার যে ১১৭টি ওষুধের মূল্য নির্ধারণ করে দিয়েছে, সেই ওষুধগুলোর মূল্যেরই কোনো ঠিক নেই। একেক কোম্পানি একেক রকম দাম রাখছে। আগের মতোই বিভিন্ন অজুহাতে যেমন খুশি মূল্য রাখছে ফার্মেসিগুলো। এই নির্ধারিত মূল্যের বাইরে শত শত ওষুধের যথেচ্ছ দাম রাখা হচ্ছে। রাজধানীর শাহবাগ, মিটফোর্ড এলাকার বিভিন্ন ওষুধের ফার্মেসি ঘুরে দেখা যায় অরাজকতার চিত্র। কনট্যাব নামক ব্যথানাশক ওষুধটি বিদেশ থেকে আমদানি করে সিটি ওভারসিজ নামে একটি কোম্পানি। ওষুধটির ৫০টির প্যাকেটের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য (এমআরপি) ৩০০ টাকা আর প্রতি পিস ওষুধের দাম ৬ টাকা। এক পাতায় থাকে ১০ পিস। প্রতি পাতার দাম ৬০ টাকা। আর এক বক্সে থাকে ৫ পাতা। সে হিসেবে প্রতি বক্সের দাম দাঁড়ায় ৩০০ টাকা। বিভিন্ন ফার্মেসিতে ওষুধগুলো প্রতি বক্সের দাম চাওয়া হচ্ছে ৪৫০-৫০০ টাকা। ক্যান্সার প্রতিরোধকারী ওষুধ ত্রাসতুজুমা এ দেশের বিকন ফার্মাসিউটিক্যালস ও টেকনোড্রাগস উৎপাদন করে। এর মধ্যে বিকন ফার্মাসিউটিক্যালসের উৎপাদিত ত্রাসতুনিক্সের মূল্য ৯০ হাজার টাকা ও টেকনোড্রাগসের হেরটিনের মূল্য ৮০ হাজার টাকা। একই ব্র্যান্ডের ওষুধ হারসেপটিন বিদেশ থেকে আমদানি করে এ দেশে বিক্রি হচ্ছে ১ লাখ ৬০ হাজার টাকায়। দেশি কোম্পানির সঙ্গে বিদেশি কোম্পানির দামের পার্থক্য দ্বিগুণ। বিকন ফার্মাসিউটিক্যালসের উৎপাদিত ফিলগ্রাস্ট ইনজেকশন দেশীয় বাজারে ২ হাজার ৭৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বিদেশ থেকে আমদানি করা একই ওষুধ নিওলাস্টের দাম পাঁচ হাজার টাকা। বিকন ফার্মাসিউটিক্যালসের জোলেরন ৫ হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। একই সঙ্গে ইনসেপটা ফার্মাসিউটিক্যালসের জোলেনিকও একই দামে বিক্রি হচ্ছে। একই ব্র্যান্ডের আমদানিকৃত ওষুধ নিওলাস্ট বিক্রি হচ্ছে ২৭ হাজার ৫০০ টাকায়। মাত্র ১১৭টি ওষুধ ছাড়া বাকিগুলোর মূল্য নির্ধারণের ওপর কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই ওষুধ প্রশাসনের। ফলে কারণে-অকারণে ওষুধের এই দাম বাড়ানোর নির্যাতন সহ্য করতে হয় ক্রেতাদের। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ওষুধের প্যাকেটে খুচরা মূল্য উল্লেখ থাকলেও সে দামে বিক্রি হচ্ছে না। এভাবে দেশব্যাপী বৈধ ও অবৈধ উপায়ে পরিচালিত দুই লাখ খুচরা ওষুধ বিক্রেতা অনেক ওষুধ ‘ওভার রেটে’ বিক্রি করছেন। রোগীদের আত্মীয়-স্বজন অনেকটা বাধ্য হয়েই এই ওভার রেটে ওষুধ কিনছেন। বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সাবেক সভাপতি ও স্বাস্থ্য আন্দোলন জাতীয় কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. রশিদ ই মাহবুব বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ক্রেতাদের সঙ্গে ওষুধের দাম নিয়ে প্রতারণা বন্ধে মনিটরিং বাড়ানো জরুরি। ফার্মেসিতে ওষুধের দাম টাঙানো থাকলে ক্রেতাদেরও যাচাই করতে সুবিধা হবে। এভাবে ক্রেতা ঠকানোর প্রবণতা সব ক্ষেত্রেই বন্ধ করতে হবে।


আপনার মন্তব্য