শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ জুলাই, ২০২০ ০০:৩৩

তিন দিনের রিমান্ডে সাবরিনা

অনুমোদন না থাকলেও জেকেজির নমুনা সংগ্রহের চুক্তি কার্ডিয়াক সার্জারি বিভাগ অনিয়মের স্বর্গরাজ্য, দুদকের তদন্ত শুরু

মির্জা মেহেদী তমাল ও সাখাওয়াত কাওসার

তিন দিনের রিমান্ডে সাবরিনা

জেকেজি হেলথ কেয়ারের একটি ট্রেড লাইসেন্স পর্যন্ত ছিল না। এরপরেও স্বাস্থ্য অধিদফতর করোনাভাইরাসের নমুনা সংগ্রহের জন্য প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে চুক্তি করে। আর নমুনা সংগ্রহের অনুমতি চেয়ে আবেদন করেন জেকেজির চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা চৌধুরী। পুলিশের জেরায় সাবরিনা এসব তথ্য দিয়ে ফাঁস করেছে স্বাস্থ্য অধিদফতরের বেশ কয়েকজন কর্মর্কতার নাম। তদন্ত সংশ্লিষ্টরা বলছে, সাবরিনাকে জিজ্ঞাসাবাদ ও তদন্তে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের কার্ডিয়াক সার্জারি বিভাগকে অনিয়মের স্বর্গরাজ্য করে রেখেছেন এই সাবরিনা। আর ছায়া হয়ে পাশে থেকেছেন ‘ইউনিট প্রধান’ পদের একজন ডাক্তার। সেই ডাক্তারের ছত্রছায়াতেই অনিয়মের চূড়ায় উঠেছিলেন সাবরিনা। দিনের পর দিন কাজ না করেই নিতেন বেতন। সুনজরে থাকায় অনুপস্থিত থাকার পরও সাবরিনার নাম উঠে যেত হাজিরা খাতায়। করোনাভাইরাস পরীক্ষা নিয়ে জেকেজি হেলথ কেয়ারের জালিয়াতির মামলায় গ্রেফতার জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের চিকিৎসক (সাময়িক বরখাস্ত) সাবরিনা শারমিন হুসাইন ওরফে সাবরিনা আরিফ চৌধুরীকে তিন দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে পুলিশ। পুলিশের এই তদন্তের পাশাপাশি দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) সাবরিনার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, সরকারি চাকরি করেও ডা. সাবরিনা বিভিন্ন মাধ্যমে প্রভাব খাটিয়ে নিজের প্রতিষ্ঠানের জন্য কাজ বাগাতেন। এর বাইরে নানা অনৈতিক কর্মকান্ড, বিশিষ্টজনের নাম ভাঙিয়ে ফায়দা নেওয়া, হুমকি-ধমকি, সন্ত্রাসী বাহিনী লালন-পালনসহ নানা অভিযোগ রয়েছে।  জেকেজির সিইও তার স্বামী আরিফ চৌধুরী গ্রেফতারের পর থেকেই নিজের গ্রেফতার এড়াতে বিভিন্ন স্থানে তদবির করছিলেন সাবরিনা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী থেকে শুরু করে সরকারদলীয় নেতা, চিকিৎসক নেতাদের দ্বারস্থ হন তিনি। কেউ কেউ তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন। পুলিশের সূত্রগুলো জানিয়েছে, সাবরিনা  গ্রেফতার এড়াতে প্রভাব সৃষ্টি করেছিলেন। রবিবার তিনি ডিসি কার্যালয়ে আসার পর গ্রেফতার হবেন সেটি ভাবেননি। যখন তিনি জানতে পারেন তাকে গ্রেফতার করা হবে তখন তিনি কিছুটা বিমর্ষ হয়ে পড়েন। গতকাল শুনানিকালে আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে সাবরিনা বিচারকের কাছে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন। বলেন, ‘জেকেজির চেয়ারম্যান আমাকে বলা হচ্ছে। কিন্তু আমি জেকেজির চেয়ারম্যান না। আমাকে ফাঁসানো হয়েছে। আমি নির্দোষ।’ এ সময় আদালতে কেঁদে ফেলেন সাবরিনা। পুলিশের রিমান্ড আবেদনের বিরোধিতা করে সাবরিনার পক্ষে জামিনের আবেদন করেন ওবায়দুল হক, সাইফুল ইসলাম সুমনসহ কয়েকজন আইনজীবী। শুনানিতে আইনজীবী সুমন আদালতকে বলেন, ডা. সাবরিনা ‘সরল ও সৎ বিশ্বাসে’ তার স্বামীর প্রতিষ্ঠানে কাজ করতেন। তিনি  জেকেজির অপকর্মের কথা ‘আগে জানতে পারেননি’। জানলে সম্পর্কোচ্ছেদ করতেন। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে আদালত পুলিশের সাধারণ নিবন্ধন কমকর্তা এসআই ফরিদ মিয়া বলেন, সাবরিনা তার স্বামীর সহযোগী হয়ে কাজ করেছেন। রোগীদের ভুয়া কভিড-১৯ সনদপত্র (সার্টিফিকেট) সরবরাহ করে বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছেন। তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে ঘটনার বিস্তারিত জানা যাবে। শুনানি শেষে বিচারক জামিন আবেদন নাকচ করে এই চিকিৎসককে তিন দিনের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন। এর আগে তেজগাঁও থানা পুলিশ সাবরিনাকে আদালতে হাজির করে তাকে চার দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করে। কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে বেলা ১১টার দিকে ডা. সাবরিনাকে প্রথমে পুরান ঢাকার নিম্ন আদালতের গারদখানায় রাখা হয়। তখন গণমাধ্যমকর্মী ও আইনজীবীদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। তবে ভার্চুয়াল আদালতের গেটগুলো বন্ধ করে   দেওয়ায় আদালত কক্ষে কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। এরপর দুপুর পৌনে ১২টার দিকে সাবরিনাকে আদালতে হাজির করা হয়। প্রতারণা মামলার তদন্তসংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, শুরু থেকেই ডা. সাবরিনা দায় এড়ানোর চেষ্টা করছিলেন।  জেকেজির সঙ্গে তার কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে দাবি করে আসছিলেন। বিভিন্ন গণমাধ্যমেও সাফ বলেছেন তিনি  জেকেজির কেউ না। কিন্তু ব্যাপক তদন্তের মাধ্যমে এটা আগে থেকেই নিশ্চিত হওয়া যায় সরকারি চাকরির পাশাপাশি তিনি জেকেজির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন।

সূত্র জানায়, ডা. সাবরিনা বিভিন্ন স্থানে নিজেকে একাধিক পরিচয় দিয়েছেন। কোনো কোনো স্থানে নিজেকে জেকেজির অনারারি আহ্বায়ক, কোনো স্থানে উপদেষ্টা, আবার জেকেজির অফিসিয়াল কর্মকান্ডে নিজেকে চেয়ারম্যান বলেই পরিচয় দিয়েছেন। এ ধরনের তথ্য প্রমাণাদি এখন পুলিশের হাতে। তিনি নমুনা সংগ্রহের জন্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নির্দেশ দিতেন চেয়ারম্যান হিসেবে। এ ধরনের ম্যাসেজ ও চিঠিপত্র রয়েছে তদন্তকারী সংস্থার কাছে। গুলশান থানায় সাবরিনা একটি জিডি করেন তার একজন কর্মচারীর বিরুদ্ধে। তাতে নিজেকে জেকেজির অনারারি আহ্বায়ক হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

সূত্র জানায়, অনুমোদনহীন জেকেজির সঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদফতর নমুনা সংগ্রহের চুক্তি করে ১৬ এপ্রিল। জেকেজির এ সময় কোনো ট্রেড লাইসেন্স পর্যন্ত ছিল না। চুক্তি করার দু’মাস পর ১৬ জুন জেকেজির ট্রেড লাইসেন্স করা হয়। যার মালিক জেবুন্নেসা রীমা। জেবুন্নেসা হলেন সাবরিনার স্বামী আরিফ চৌধুরীর বোন। তিনিও প্রতারণা মামলার আসামি।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের সঙ্গে চুক্তির পর জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের কার্ডিয়াক সার্জন ডা. সাবরিনা চৌধুরী ও তার স্বামী আরিফ চৌধুরী করোনার ভুয়া টেস্টের মাধ্যমে আট কোটি টাকা হাতিয়ে নেন। জেকেজির হেলথ কেয়ার নামে তাদের প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ২৭ হাজার মানুষের নুমনা সংগ্রহ করে ১৫ হাজার ৪৬০টি জাল সনদ দিয়ে এ টাকা হাতিয়ে নেন তিনি। আর এ অভিযোগেই রবিবার (১২ জুলাই) ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও ডিভিশনের উপকমিশনার (ডিসি) কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে  গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। এর আগে ২৩শে জুন জেকেজির সাবেক দুই কর্মী হুমায়ুন কবির হিমু ও তার স্ত্রী সিস্টার তানজিনাকে করোনা পরীক্ষার জাল রিপোর্ট তৈরির অভিযোগে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাদের দেওয়া তথ্য মতেই জেকেজির গুলশানের অফিসে অভিযান চালিয়ে ডা. সাবরিনা চৌধুরীর স্বামী আরিফ চৌধুরীসহ প্রতিষ্ঠানের আরও কয়েকজন কর্মচারীকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ জানতে পারে জেকেজির সিই্ও হলেন আরিফ চৌধুরী ও চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা চৌধুরী। যদিও আরিফ চৌধুরীসহ অন্যরা গ্রেফতারের পর থেকে সাবরিনা চৌধুরী নিজেকে এই প্রতিষ্ঠানের কেউ না বলে দাবি করে আসছিলেন। কিন্তু পুলিশ ব্যাপক তদন্ত ও নানা তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে জানতে পারে জেকেজির সঙ্গে সাবরিনার সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। এরই প্রেক্ষিতে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও ডিভিশনের উপকমিশনার (ডিসি) হারুন অর রশীদ বলেন, যেহেতু তিনি একজন সরকারি কর্মকর্তা তাই তিনি কখনই আরেকটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান থাকতে পারেন না। আর মুখপাত্র হিসেবে বক্তব্য দিতে পারেন না। তার স্বামীও ইচ্ছা করলেই তাকে চেয়ারম্যান পদবি থেকে বহিষ্কার করতে পারেন না। এ ছাড়া তিনি ফেসবুকে ও তিতুমীর কলেজের ঘটনায় যে বক্তব্য দিয়েছেন একজন সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে মোটেও সম্ভব না। এটার দায় তিনি এড়াতে পারেন না।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর