শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ৩১ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩০ মার্চ, ২০২১ ২৩:১২

সাইনবোর্ডে হেফাজতের সহিংসতায় ছয় মামলা

নারায়ণগঞ্জ ও সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি

হেফাজতে ইসলামের সকাল-সন্ধ্যা হরতালের সমর্থনে নারায়ণগঞ্জের হেফাজতে ইসলামের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দিনভর সংঘর্ষে ছয়টি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে পুলিশের দায়ের করা পাঁচটি পৃথক মামলায় ১২৫ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত ২ হাজার ৩০০ জনকে আসামি করা হয়েছে। অপরদিকে র‌্যাবের মামলায় কারও নাম  উল্লেখ না করে অজ্ঞাত ৫০০ জনকে আসামি করা হয়েছে। ২৯ মার্চ সোমবার রাতে পৃথকভাবে এসব মামলা দায়ের করা হয়। হরতালের দিন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে চার হাজার রাউন্ড গুলি ছুড়তে হয়েছিল বলে জানিয়েছেন পুলিশ। ৩০ মার্চ সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান বলেন, ‘রবিবারের ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা, সরকারি কাজে বাধা, গাড়ি ভাঙচুর করে অগ্নিসংযোগ, সাধারণ মানুষের জানমালের ক্ষতি, সরকারি সম্পদের ক্ষতি ইত্যাদি বিভিন্ন অভিযোগে পুলিশের পক্ষ থেকে পাঁচটি ও র‌্যাবের পক্ষ থেকে একটি মামলা দায়ের হয়েছে। সোমবার রাতেই মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।’ ‘মামলায় হেফাজতের ব্যানারে নাশকতাকারীদের নামও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। আসামিদের কাউকে এখনো গ্রেফতার করা হয়নি। গ্রেফতারে অভিযান চলছে।’ রবিবার ভোর ৬টা থেকে হেফাজতে ইসলামের নেতা-কর্মীরা মহাসড়কের শিমরাইল, সানারপাড় এলাকায় গাছের গুঁড়ি ফেলে, বালুর বস্তা রেখে, টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে ও লাঠিসোঁটা নিয়ে অবরোধ করে রাখে। এ সময় কয়েকটি ট্রাক চলাচল করতে চাইলে হরতাল সমর্থনে বিক্ষোভকারীরা ঢিল ছুড়ে ট্রাকের গ্লাস ভাঙচুর করে। এ সময় র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি, সাদা পোশাকে গোয়েন্দা পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কয়েকবার মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দিতে গিয়ে ব্যর্থ হয়। সকাল ১১টায় বিক্ষোভকারী হেফাজতে ইসলামের নেতা-কর্মীদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দিতে চাইলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় শাকিল (৩২) নামে এক ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হন। এরপর থেকে দফায় দফায় হেফাজতে ইসলামের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও টিয়ারসেলসহ গুলি ছুড়তে দেখা যায়। সন্ধ্যায় সাতটি কাভার্ড ভ্যান, ছয়টি ট্রাক, চারটি বাস, একটি হাইস গাড়ি, তিনটি পিকআপে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। রাত ৯টায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। নারায়ণগঞ্জে পুলিশের চার হাজার গুলি : নারায়ণগঞ্জে হেফাজতের হরতাল চলাকালে নেতা-কর্মীদের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দিনভর সংঘর্ষে পুলিশ চার হাজার রাউন্ড গুলি ছুড়েছিল। সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশসহ ২৪ জন আহত হয়েছেন। যার মধ্যে বিক্ষোভকারী চারজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান বলেন, ‘পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে চার হাজার রাউন্ডের ওপরে গুলি ছোড়া হয়েছে। যার মধ্যে চায়নাগান, শটগান, গ্যাসগানসহ রাবার বুলেট আছে। পুলিশের নয়জন চিকিৎসা নিয়েছেন। এ ছাড়া আরও অনেক সদস্য আহত হয়েছেন কিন্তু হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে হয়নি। সব মিলিয়ে ১৮ থেকে ২০ জন আহত হয়েছেন। তাছাড়া অন্যান্য বাহিনীর আহতদের খবর পাওয়া যায়নি। এর বাইরে বিক্ষোভকারী চারজন আহত হয়েছেন। তারা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তবে এ ঘটনায় নিহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম জানান, হরতালের দিন নাশকতাকারীদের বিভিন্ন ভিডিও ফুটেজ ও ছবি দেখে প্রকৃত দোষীদের বের করে আইনের আওতায় আনার চেষ্টায় আছি। কোনোমতেই নারায়ণগঞ্জকে অশান্ত হতে দেব না। নারায়ণগঞ্জ পুলিশ যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত রয়েছে।


আপনার মন্তব্য