শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ২৩:৫৩

স্বাস্থ্য খাত নিয়ে সংসদে ব্যাপক সমালোচনা

নিজস্ব প্রতিবেদক

Google News

দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থার নানা সংকট নিয়ে কঠোর সমালোচনা করেছেন জাতীয় পার্টি, বিএনপিসহ বিরোধীদলীয় সংসদ সদস্যরা। তারা অভিযোগ করেন, চিকিৎসকরা রাজনীতি করার কারণে রোগীরা সেবাবঞ্চিত। বেসরকারি হাসপাতালগুলো চিকিৎসার বিল দিতে না পারায় রোগী আটকে রাখে বলেও অভিযোগ করেন তারা।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে গতকাল জাতীয় সংসদের ১৪তম অধিবেশনের বৈঠকে মেডিকেল কলেজ (গভর্নিং বডি) (রিপিল) বিল এবং বাংলাদেশ শিশু হাসপাতাল ও ইনস্টিটিউট বিলের ওপর আনা জনমত যাচাই ও সংশোধনী প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে বিরোধী দলের এমপিরা এসব অভিযোগ করেন। জবাবে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বাস্থ্য খাতে সরকারের সফলতার চিত্র তুলে ধরেন। একইসঙ্গে দেশের নাগরিক হিসেবে রাজনীতি করার অধিকার সবার আছে বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ডাক্তারদের অ্যাসোসিয়েশন রয়েছে। স্বাচিপ, বিএমএ। রাজনীতিতো সবাই করতে পারেন। প্রকৌশলী, আইনজীবীরা রাজনীতি করতে পারেন। সে অনুযায়ী চিকিৎসকরা তাদের অ্যাসোসিয়েশন করলে, তাতে কোনো দোষ বা অন্যায় দেখি না। তারা তো সেবা দিচ্ছেন। তিনি বলেন, আমি সমালোচনা পছন্দ করি। কারণ, এটা আমাকে শক্তিশালী করে। জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদ বলেন, বিএনপি করে গিয়েছিল ড্যাব, আওয়ামী লীগ এসে করেছে স্বাচিপ। সেক্ষেত্রে আমরা কী কারণে বসে থাকছি? এই আইনের মধ্যে যদি থাকত যে ডাক্তাররা এবং বৈজ্ঞানিকরা রাজনীতি করতে পারবেন না তাহলে খুব খুশি হতাম। ডাক্তাররা যদি এই দেশে রাজনীতি করেন তাহলে আমরা কী করব? ওনারা চলে আসুক রাজনীতি করতে। যারা ভালো ছাত্র তারা ডাক্তারি পড়েন, কিন্তু তারা যদি রাজনীতি করেন তাহলে আমরা সেবাবঞ্চিত হব। জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য মুজিবুল হক বলেন, ডাক্তাররা বিসিএস অফিসার হয়ে তার ডিউটির পর যদি প্রাইভেট প্র্যাকটিস করেন সেক্ষেত্রে তার যে মূল কাজ তা ঠিক থাকে না। এটা দীর্ঘদিনের একটা সমস্যা। মন্ত্রীকে বলব যদি উপকার করতে চান তাহলে ডাক্তারদের প্রাইভেট প্র্যাকটিসটা আপনারা দয়া করে বন্ধ করার চেষ্টা করুন। জনগণের পয়সা দিয়ে তাদের বেতন দেবেন, তারা প্রাইভেট প্র্যাকটিস করবেন; এটা আমরা করতে পারি না। ভর্তির জন্য বেসরকারি মেডিকেল কলেজে অন্যায়ভাবে টাকা নেওয়া বন্ধের দাবি জানান তিনি।

স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় বেহাল দশা চলছে উল্লেখ করে জাতীয় পার্টির ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী বলেন, স্বাস্থ্য খাতে কেনাকাটায় অনেক উৎসাহ। দেশের জেলা ও উপজেলা হাসপাতালগুলোর জন্য কেনাকাটা হয়, কিন্তু সেসব যন্ত্রপাতি ব্যবহারের জনবল না থাকায়  সেগুলো নষ্ট হয়ে যায়। রোগীরা চিকিৎসাসেবা পায় না। তিনি দেশের জেলা শহরগুলোতে হৃদরোগ চিকিৎসা ইউনিট চালুর দাবি জানান। জাতীয় পার্টির পীর ফজলুর রহমান বলেন, বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা করতে গিয়ে অনেক মানুষ নিঃস্ব হয়েছেন। এসব হাসপাতালে চিকিৎসা ব্যয় নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা নেই। টেকনোলজিস্টের ব্যাপক সংকট। ২০২০ সালের টেকনোলজিস্ট পরীক্ষার ফলাফল এখনো দেওয়া হয়নি। অনেক মেশিন নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। প্রত্যেক এয়ারপোর্টে পিসিআর ল্যাব দিতে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দেওয়ার পরও প্রবাসীদের ঘেরাও করতে হয়েছে। বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্যরা বলেন, দেশে ৫০ বছরেও সরকারি হাসপাতাল ও বেসরকারি হাসপাতালের মধ্যে কোনো পার্থক্য করা যায়নি। যারা আজ সরকারি হাসপাতালে কর্মরত তারাই বেসরকারি হাসপাতালের ব্যবসা করছেন। তিনি বলেন, এতগুলো বেসরকারি মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে, এগুলো মানসম্মত? বেসরকারি মেডিকেল কলেজ থেকে যারা শিক্ষা অর্জন করছেন, তারা কজন বিসিএসে টিকছেন? ২০১৩ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত মেডিকেল কলেজে ভর্তির ক্ষেত্রে যে অনিয়ম-দুর্নীতি হয়েছে, এ ব্যাপারে কী ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন? সিআইডির রিপোর্ট অনুযায়ী, সেখানে লাগাতার সাত বছর অনিয়ম-দুর্নীতি হয়েছে।

ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা বলেন, করোনাকালে অর্থনৈতিকভাবে কতগুলো পরিবার পঙ্গু হয়ে গেছে সে খবর কী আমাদের কাছে আছে? করোনায় সংকটাপন্ন অবস্থায় পড়ে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা না পেয়ে নিরুপায় হয়ে মানুষ বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে গিয়ে একেবারে সর্বস্বান্ত হয়ে গেছে। অনেকে প্রাণে বেঁচে গেলেও অর্থনৈতিকভাবে পঙ্গু হয়ে গেছে। জমানো টাকা শেষ হওয়া থেকে শুরু করে বিরাট ঋণের জালে আটকা পড়েছে বহু মানুষ। করোনার আগে যেখানে মধ্যবিত্ত ছিল ৭০ শতাংশ সেখানে মধ্যবিত্ত নেমে দাঁড়িয়েছে ৫০ শতাংশ। দরিদ্র মানুষ যেখানে ছিল ২০ শতাংশ সেটা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪০ শতাংশ।

বিরোধী দলের সদস্যদের বক্তব্যের জবাবে মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, সমুদ্রের মধ্যে দুই বালতি ময়লা ফেললে সমুদ্র নষ্ট হয়ে যাবে না, পানি নষ্ট হয়ে যাবে না। বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্যের উদ্দেশে তিনি বলেন, শেখ হাসিনার সরকারের সময়ে আমরা কী করেছি স্বাস্থ্য খাতে আর আপনারা কী করেছেন- এ বিষয়টি একটু তুলে ধরতে চাই জনগণের সামনে। তিনি বলেন, কমিউনিটি ক্লিনিক ১৪ হাজার ছিল, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেখানে ৩০ রকমের ওষুধ ফ্রি দেওয়ার ব্যবস্থা করেছিলেন। স্বাস্থ্যসেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে গিয়েছিল। কিন্তু আপনারা এসে ওটা বন্ধ করে দিয়েছিলেন। এটা হলো স্বাস্থ্যসেবায় আপনাদের ব্যবস্থা।

স্বাস্থ্যসেবায় উন্নয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তর্জাতিক পুরস্কার পাওয়ার কথা তুলে ধরে বিএনপির সংসদ সদস্যদের উদ্দেশে মন্ত্রী আরও বলেন, আপনাদের সময় কী হয়েছে আমরা কি জানি না। আপনাদের সময় দুর্নীতির কারণে মানুষ মারা গেছে, গুলি করে মানুষ হত্যা করা হয়েছে। বাংলাদেশে আমরা তো উন্নয়ন করে পুরস্কার পেয়েছি। আর আপনারা পুরস্কার পেয়েছেন পাঁচবার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়ে। আমরা আর কিছু বলতে চাই না। স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন, বিমানবন্দরে পিসিআর ল্যাব স্থাপনের বিষয়ে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় ব্যবস্থা নেবে। আর বিমানবন্দর জায়গা দেবে। আমরা শুধু কারিগরি সহযোগিতা দেব। দুই-এক দিনের মধ্যে বিমানবন্দরে পিসিআর ল্যাব স্থাপন করা হবে। তিনি আরও জানান, প্রধানমন্ত্রীর ওয়াদা দেশের প্রতিটি কলেজে মেডিকেল কলেজ হবে। তা পর্যায়ক্রমে হবে। সে অনুযায়ী ৩৮টি মেডিকেল কলেজের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। আস্তে আস্তে সব জেলায় হয়ে হবে। তিনি আরও বলেন, বেসরকারি হাসপাতালগুলো করোনায় সেবা দিয়েছে। সেখানকার চিকিৎসা ফি নির্ধারণে আমরা বৈঠক করছি। আশাকরি তার সমাধান হবে।