শিরোনাম
মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২২ ০০:০০ টা

টেস্ট বাণিজ্যে নাজেহাল রোগী

জয়শ্রী ভাদুড়ী

টেস্ট বাণিজ্যে নাজেহাল রোগী

দীর্ঘদিন পিঠের ব্যথায় ভুগছিলেন ফেরদৌসী বেগম (৪৮)। ব্যথা তীব্র হলে গ্রাম থেকে ঢাকায় এসে বেসরকারি ক্লিনিকে এক চিকিৎসকের অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিয়ে দেখাতে যান তিনি। চিকিৎসক সমস্যা শুনে প্রথমে বেশকিছু টেস্ট, এক্স-রে করে নিয়ে আসতে বলেন। সেই হাসপাতালে বিল পরিশোধের সময় কী কী টেস্ট দিয়েছে জিজ্ঞেস করলে বিল কাউন্টার থেকে বলা হয়- বিভিন্ন টেস্টের সঙ্গে পায়ের হাঁটুর হাড়ের এক্স-রে করতে দিয়েছে।

ফেরদৌসী বেগম বলেন, আমি বিল পরিশোধ না করে পুনরায় চিকিৎসকের কাছে পিঠের ব্যথায় পায়ের এক্স-রের বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে চিকিৎসক ভীষণ বিরক্ত হন। তিনি যে টেস্টগুলো দিয়েছেন তার প্রয়োজনীয়তা আমাকে না বুঝিয়ে বরং বলেন- চিকিৎসক কে? আপনি নাকি আমি। যেগুলো দিয়েছি সে টেস্টগুলো করে নিয়ে আসেন, পছন্দ না হলে অন্য চিকিৎসককে দেখান। অন্য রোগী, তাদের স্বজনদের সামনে আমাকে এভাবে অপমান করেন। আমি ভীষণ কষ্ট পাই। টেস্ট না করিয়ে ফিরে আসি। শুধু সরকারি হাসপাতালেই নয়, উন্নত চিকিৎসার জন্য অনেকে অর্থ খরচ করে যেসব বেসরকারি হাসপাতালে যান, সেখানেও রোগীদের অভিযোগ রয়েছে। রোগীদের চিকিৎসা, ওষুধ বা অপারেশনের ব্যাপারে ঠিকমতো অবহিত করা হয় না। এমনকি চেম্বারে চিকিৎসকরাও রোগীদের কথা ভালোভাবে না শুনেই চিকিৎসাপত্র দেন বলে অভিযোগ আছে। ঢালাও টেস্টের খরচে বেড়ে যায় চিকিৎসা ব্যয়। অনেক চিকিৎসক নির্দিষ্ট ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে টেস্ট করাতে বলেন। কিংবা যেখানে তিনি রোগী দেখেন সেই ক্লিনিক থেকে টেস্ট করাতে বলেন। ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও বেসরকারি ক্লিনিক-হাসপাতালগুলোর আয়ের বড় উৎস এই টেস্ট। এই টেস্ট বাণিজ্য নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা হলেও এখন পর্যন্ত হয়নি কোনো নীতিমালা। টেস্টের সর্বোচ্চ-সর্বনিম্ন দামের কোনো নির্ধারিত মানদণ্ড না থাকায় রোগীদের কাছ থেকে ইচ্ছামতো দাম রাখছে বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো।

বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার অপারেটর পদে কর্মরত আছেন শাহরিয়ার মাহমুদ (৩৫)। তিনি বলেন, আমার স্ত্রীর দুটি কিডনি দুই বছর ধরে বিকল। সপ্তাহে দুই দিন সরকারি হাসপাতালে ডায়ালাইসিস করাতে খরচ হয় ১ হাজার ১২০ টাকা। মাসে শুধু স্ত্রীর কিডনি ডায়ালাইসিসে খরচ হয় ৬ হাজার ৭২০ টাকা। এর সঙ্গে ওষুধ, চিকিৎসক, যাতায়াত মিলিয়ে মাসে ১০ হাজার টাকার বেশি খরচ হয়ে যায় চিকিৎসার পেছনে। ওষুধ খরচ, চিকিৎসা খরচ চালাতে হিমশিম অবস্থায় পড়েছেন বলে জানান তিনি। ক্যান্সার, কিডনি, লিভারের মতো জটিল রোগের খরচ জোগাতে বিপাকে পড়ছেন গরিব রোগীরা। করোনা-পরবর্তী জটিলতায় ভুগছিলেন সাঈদা বেগম (৭৫)। কভিড নেগেটিভ হওয়ার পর থেকেই বেশকিছু সমস্যা দেখা দেয় তার। তার ছেলে তাকে রাজধানীর একটি পাঁচতারকা হাসপাতালে নিয়ে যান। বাইরের ওয়েটিং রুমে বসিয়ে রেখে একের পর এক টেস্টের নমুনা নিতে থাকেন টেকনোলজিস্টরা। সাঈদা বেগমের ছেলে শরিফুল ভূঁইয়া বলেন, ‘মায়ের শারীরিক অবস্থা খারাপ থাকায় তাকে ভর্তির জন্য একাধিকবার রিসিপশনে গিয়ে বলি। কিন্তু তারা বলছেন টেস্ট না করে আমরা ভর্তি করব না। কর্মকর্তার কক্ষে গিয়ে অনুরোধ করলে তারা বলেন, দুঃখিত আমরা আসলে ঝুঁকি নিতে চাইছি না। এভাবে প্রায় চার ঘণ্টা কেটে যায়। মা অস্থির হতে থাকেন। রোগীকে চেয়ারে বসিয়ে রাখা যাচ্ছে না। তাকে ভর্তি করে বেডে শুয়ে টেস্টগুলো করালে সমস্যা কোথায় ছিল সেটাই বুঝলাম না। ২৪ ঘণ্টা আগের কভিড নেগেটিভ সনদ আমরা সঙ্গে করেই এনেছিলাম। সেটাও তাদের হাসপাতাল থেকেই টেকনোলজিস্ট গিয়ে বাসায় থেকে নমুনা নিয়ে এসে রিপোর্ট দিয়েছিলেন। আমরা তো বেড কিংবা কেবিন ভাড়া দিতে কার্পণ্য করিনি, কিংবা অগ্রিম চাইলেও দিতাম। পকেটের টাকা খরচ করেও যদি সেবা না মেলে তাহলে কার কাছে গিয়ে বিচার জানাব।’

চিকিৎসার জন্য ফের বিদেশমুখী ভিড় বেড়েছে। ভারত, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুরসহ বিভিন্ন দূতাবাসে মেডিকেল ভিসার জন্য যাওয়া মানুষের ভিড় বাড়ছে। দেশের সরকারি হাসপাতালে অব্যবস্থাপনা, সংকট, প্রযুক্তিগত সীমাবদ্ধতা। বেসরকারিতে রয়েছে আস্থার সংকট, প্রতারণার ফাঁদ। উচ্চবিত্তের বিদেশ যাওয়ার প্রবণতাকে এসব কারণ আরও উসকে দিচ্ছে। ভালো সেবার আশায় মধ্যবিত্ত এমনকি নিম্ন-মধ্যবিত্ত মানুষও ছুটছেন বিদেশ।

বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ডা. রশিদ-ই-মাহবুব বলেন, ‘দেশের মানুষ নানা কারণে বিদেশে চিকিৎসা নিতে যায়। এর মধ্যে মানসিক আস্থার সংকট অন্যতম। আবার ১৬ কোটি মানুষের জন্য যত ভালো মানের হাসপাতাল থাকার কথা, সেটা সরকারি কিংবা বেসরকারিভাবে নেই। ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে অনেকে প্রতিবেশী দেশে যায়।’

দাম নির্ধারণ করে দেওয়া জরুরি

হাসপাতালে খরচ ভোগান্তি বেশি

ওষুধ-টেস্ট দিলে বুঝিয়ে বলতে হবে

 

সর্বশেষ খবর