শিরোনাম
প্রকাশ : ৪ জানুয়ারি, ২০২১ ১৮:১২
আপডেট : ৪ জানুয়ারি, ২০২১ ২১:১৯
প্রিন্ট করুন printer

জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে যুক্তরাষ্ট্রে না পাঠানোর রায় ব্রিটিশ আদালতের

অনলাইন ডেস্ক

জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে যুক্তরাষ্ট্রে না পাঠানোর রায় ব্রিটিশ আদালতের
জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ

লন্ডনের একটি আদালত রায় দিয়েছেন যে, উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যর্পণ করা যাবে না। অ্যাসাঞ্জের মানসিক স্বাস্থ্য ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আত্মহত্যার ঝুঁকি নিয়ে উদ্বেগের কারণে সোমবার বিচারক এমন রায় দিলেন। 

অ্যাসাঞ্জের নিজের ক্ষতি করা এবং আত্মহত্যা করার চিন্তার আলামত তুলে ধরে লন্ডনের ওল্ড বেইলি আদালতের ডিস্ট্রিক্ট জাজ ভ্যানেসা ব্যার‌্যাজার রায়ে বলেন, ‘এসব কিছুই বিষন্নতায় ভোগা এবং কখনও কখনও নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে হতাশাগ্রস্ত একজন মানুষেরই লক্ষণ।’

২০১২ সালের জুন থেকে লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ। ২০১৯ সালের এপ্রিলে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রত্যাহার করে তাকে ব্রিটিশ পুলিশের হাতে তুলে দেয় ইকুয়েডর। ওইদিনই তাকে জামিন শর্ত ভঙ্গের দায়ে দোষী সাব্যস্ত করে ব্রিটিশ আদালত। তখন থেকে যুক্তরাজ্যের বেলমার্শ নামক কুখ্যাত কারাগারে সাজা ভোগ করছেন অ্যাসাঞ্জ। এখনও সেখানেই রাখা হবে বলে মনে করা হচ্ছে। মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বেগের কারণে অ্যাসাঞ্জকে সেখানে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যে রাখা হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক অ্যাসাঞ্জ ২০১০ সালে পেন্টাগন ও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের লাখ লাখ সামরিক ও কূটনৈতিক গোপন নথি ফাঁস করে দিয়ে বিশ্বজুড়ে হৈ চৈ ফেলে দিয়েছিলেন। ওসব নথির মধ্যে মার্কিন বাহিনীর বিরুদ্ধে আফগান যুদ্ধ সম্পর্কিত ৭৬ হাজার এবং ইরাক যুদ্ধ সম্পর্কিত আরো ৪০ হাজার নথি ছিল, যা যুক্তরাষ্ট্র সরকার ও পেন্টাগনকে চরম বেকায়দায় ফেলে দেয়।

এরই মধ্যে তার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে সরকারি কম্পিউটার হ্যাক ও গুপ্তচর আইন লঙ্ঘনসহ ১৮টি অভিযোগ দায়ের করা হয়। মার্কিন প্রশাসন তাকে বিচারের মুখোমুখি করতে চায়। ব্রিটিশ পুলিশও অ্যাসাঞ্জকে হেফাজতে নিয়েই জানিয়েছিল, যুক্তরাষ্ট্রের অনুরোধেই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সূত্র: বিবিসি

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর