শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ৮ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ মে, ২০২১ ২৩:৫১

মিয়ানমারে নতুন বাহিনী গড়ার চেষ্টা

Google News

মিয়ানমারে গত ১ ফেব্রুয়ারির সামরিক অভ্যুত্থানের পর ক্ষমতা দখল করা সামরিক শাসকের বিরুদ্ধে লড়তে গত মাসে একটি ঐকমত্যের সরকার গঠন করা হয়। দুই দিন আগে তারা ‘পিপলস ডিফেন্স ফোর্স’ গঠনের ঘোষণা দিয়েছে। ‘সাধারণ নাগরিকদের বিরুদ্ধে সহিংসতা ঠেকাতে’ এই বাহিনী গঠন করা হচ্ছে বলে বিবৃতিতে জানায় তারা। অভ্যুত্থানের প্রতিবাদ করা সাধারণ নাগরিক ও বিভিন্ন বিদ্রোহী গোষ্ঠীর সমন্বয়ে এই বাহিনী গঠন করতে চায় ঐকমত্যের সরকার। সাবেক সংসদ সদস্য, রাজনীতিবিদ, গণতন্ত্রপন্থি গোষ্ঠী ও আদিবাসী সংখ্যালঘু গোষ্ঠীর সমন্বয়ে গত মাসে ‘ন্যাশনাল ইউনিটি গভর্নমেন্ট’ বা এনইউজি নামের ওই সরকার গঠন করা হয়। এখন তারা আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়ার চেষ্টা করছে। বুধবার ডিফেন্স ফোর্স গঠনের ঘোষণা দেওয়ার পর বৃহস্পতিবার অনেক তরুণ সামাজিক মাধ্যমে এই বাহিনীতে যোগ দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছে। ব্রাসেলসভিত্তিক থিংক ট্যাংক ‘ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইসিসি গ্রুপের’ হিসেবে ২০টির কিছু বেশি সশস্ত্র বিদ্রোহী গোষ্ঠী মিয়ানমারের বিভিন্ন সীমান্ত এলাকায় প্রায় এক-তৃতীয়াংশ এলাকা নিয়ন্ত্রণ করে। আরও বেশি স্বায়ত্তশাসনের দাবিতে গ্রুপগুলো সেনাবাহিনীর সঙ্গে বিভিন্ন সময়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এসব গ্রুপের মধ্যে কয়েকটি ইতিমধ্যে অভ্যুত্থানের সমালোচনা করেছে।

বিক্ষোভ দমনের নামে নিরস্ত্র সাধারণ মানুষের ওপর নির্যাতনেরও সমালোচনা করেছে তারা। এই গ্রুপগুলোর সঙ্গে মিলে কাজ করতে আলোচনা শুরু করেছে ঐকমত্যের সরকার। মিয়ানমারের মনিটরিং সংস্থা ‘অ্যাসিস্টেন্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনার্স’ বা এএপিপি জানিয়েছে, দেশটিতে অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে এখন পর্যন্ত কমপক্ষে ৭৬৯ জন প্রাণ হারিয়েছেন। প্রায় ৩ হাজার ৭০০ জনকে আটক করা হয়েছে। এর মধ্যে অনেক সাংবাদিকও আছেন। বিভিন্ন গণমাধ্যম বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স। সামরিক জান্তা সরকার অবশ্য মৃত্যুর সংখ্যা অনেক কম বলে দাবি করেছে। এ ছাড়া এসব মৃত্যুর জন্য ‘দাঙ্গাবাজদের’ দায়ী করছে তারা। এদিকে, দেশের বাইরে সম্প্রচার বন্ধ করতে গত মঙ্গলবার স্যাটেলাইট টেলিভিশন রিসিভারের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে সামরিক সরকার। গত কয়েক মাস ধরে দেশটির ইন্টারনেট পরিষেবায়ও নিয়মিত বাধা দেওয়া হচ্ছে। হিউম্যান রাইটস ওয়াচ, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালসহ ২০০-এর বেশি সংগঠন সম্প্রতি মিয়ানমারের ওপর অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে জাতিসংঘের প্রতি আহ্‌বান জানিয়েছে। ডয়চে ভেলে