শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২ জুন, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ জুন, ২০১৮ ০২:০৭

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন

জাতিসংঘের সঙ্গে চুক্তিতে রাজি মিয়ানমার

প্রতিদিন ডেস্ক

জাতিসংঘের সঙ্গে চুক্তিতে রাজি মিয়ানমার

রাখাইনে রোহিঙ্গাদের জন্য ‘অনুকূল পরিবেশ তৈরি’ এবং তাদের স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসনে সহযোগিতার বিষয়ে মিয়ানমারের সঙ্গে চুক্তি করতে যাচ্ছে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর ও উন্নয়ন সংস্থা ইউএনডিপি। খবর বিডিনিউজের

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সহযোগিতার জন্য বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে ইউএনএইচসিআরের সমঝোতা স্মারকে সই হওয়ার দেড় মাসের মাথায় মিয়ানমারের সঙ্গে এই ত্রিপক্ষীয় সমঝোতা স্মারক সই হতে যাচ্ছে। সমঝোতা স্মারকে কী থাকবে সে বিষয়ে বৃহস্পতিবার মিয়ানমারের রাজধানী নেপিদোতে দেশটির সরকারের সঙ্গে দুই সংস্থার মতৈক্য হয়েছে বলে ইউএনএইচসিআরের এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ‘যেহেতু পরিস্থিতি এখনো রোহিঙ্গাদের স্বেচ্ছায় ফেরার জন্য সহায়ক নয়, তাই ওই অবস্থার পরিবর্তনের জন্য সরকারের উদ্যোগে সহযোগিতা করতে এই সমঝোতা স্মারক হলো প্রথম ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ।’ রোহিঙ্গারা যাতে স্বেচ্ছায়, নিরাপদে এবং সম্মানের সঙ্গে নিজেদের ভূমিতে ফিরতে পারে এবং প্রত্যাবাসন যাতে স্থায়ী হয় তার অনুকূল পরিবেশ তৈরিতে সহায়তার বিষয়ে একটি ‘ফ্রেমওয়ার্ক’ তৈরি করা হবে এই সমঝোতা স্মারকের আওতায়। সমঝোতা স্মারক সইয়ের দিনক্ষণ এখনো চূড়ান্ত হয়নি জানিয়ে ইউএনএইচসিআর বলছে, আগামী সপ্তাহেই এটা সই হতে পারে। এদিকে মিয়ানমার সরকারের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘শিগগিরই’ সমঝোতা স্মারক সই হবে এবং জাতিসংঘের সংস্থাগুলো রাখাইনে ‘কমিউনিটিভিত্তিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে’ কর্মসংস্থানে সহায়তা করবে। মিয়ানমারের সঙ্গে ত্রিপক্ষীয় ওই সমঝোতা স্মারক সই হলে ইউএনএইচসিআর ও ইউএনডিপি রাখাইনে রোহিঙ্গা বসতিতে যাওয়ার সুযোগ পাবে বলে ইউএনএইচসিআরের বিবৃতিতে জানানো হয়েছে। গত বছর আগস্টে রোহিঙ্গাদের ওপর অভিযান শুরুর পর থেকে ওই এলাকায় আন্তর্জাতিক এসব সংস্থাকে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। যাওয়ার সুযোগ পেলে ইউএনএইচসিআর মাঠ পর্যায়ের অবস্থা সম্পর্কে ধারণা এবং রোহিঙ্গাদের সুরক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে পারবে।

স্বাধীন তদন্ত কমিশন : এদিকে পৃথক এক বিবৃতিতে রাখাইনে সহিংসতায় ‘মানবাধিকার লংঘনসহ’ অন্যান্য অভিযোগ খতিয়ে দেখতে একটি স্বাধীন তদন্ত কমিশন গঠনের ঘোষণা দিয়েছে মিয়ানমার সরকার। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, আন্তর্জাতিক একজন ব্যক্তিত্বকে নিয়ে তিন সদস্যের এই কমিশন গঠন করা হবে। দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞরা কমিশনকে সহযোগিতা করবে।


আপনার মন্তব্য