Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২৪ জুন, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ জুন, ২০১৯ ২৩:১২

পিরোজপুরে এবার কলেজছাত্রকে থানায় নিয়ে নির্যাতন

পিরোজপুর প্রতিনিধি

পিরোজপুরে এবার কলেজছাত্রকে থানায় নিয়ে নির্যাতন

এক কলেজপড়–য়া ছাত্রকে থানায় নিয়ে মারধর করে অমানুষিক নির্যাতন চালানোর অভিযোগ উঠেছে স্বরূপকাঠি থানা পুলিশের বিরুদ্ধে। নির্যাতনের শিকার একাদশ শ্রেণির ছাত্র রহমত উল্লাহ (১৮) এখন স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

পরিবারের অভিযোগ, রহমতের সঙ্গে পাশের আরেক ছেলের ঝগড়ার জেরে পুলিশ এ কা- করেছে।       খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নেছারাবাদ উপজেলার জগৎপট্টি এলাকার বাসিন্দা জামাল হাওলাদারের ছেলে রহমত উল্লাহর সঙ্গে গত বুধবার বাড়ির পাশের মোশাররফের ছেলের ঝগড়া হয়। রহমত ওই ছেলেটিকে একটি ঘুসি মারেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মোশাররফসহ তার আত্মীয়রা রহমতকে মারধর করেন ও পুকুরে চুবিয়ে শাস্তি দেন। রহমত উল্লাহর মা জানান, এতসব করার পরও স্বরূপকাঠি থানার এএসআই শাহ আলী ঘুষের বিনিময়ে রহমতকে ধরে নিয়ে যান। এরপর থানায় ওসির রুমে চারজন পুলিশ মিলে প্রথমে বাঁশ ও লাঠি দিয়ে ছেলেকে পিটিয়ে আধমরা করা হয়। পরে যৌনাঙ্গে বিদ্যুৎ শক দেওয়া হয়। খবর পেয়ে তিনি থানায় গিয়ে পুলিশ ও মোশাররফের হাত-পায়ে ধরে তার ছেলেকে ছেড়ে দিতে বলেন। কিন্তু পুলিশ রহমতকে থানায় আটকে রেখে পরদিন স্থানীয় মেম্বারের মধ্যস্থতায় ছেড়ে দেয়। থানা থেকে ছেড়ে দেওয়ার সময় পুলিশ তার ছেলেকে মারধরের কথা কাউকে না বলতে হুমকি দেয়। তিনি আরও বলেন, তার কলেজ পড়–য়া ছেলের উপার্জনে তাদের সংসার ও তার স্বামীর চিকিৎসা চলে। থানা থেকে ফেরার পর তার ছেলে অসুস্থ হয়ে পড়লে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদিকে এ অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছেন পুলিশের এএসআই শাহ আলী। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম তরিকুল ইসলাম জানান, তার রুমে কাউকে মারধর করা বা এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেনি। এমনকি রহমত উল্লাহ নামে কাউকে থানায় আনাও হয়নি।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর