শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০২

বিক্রির শীর্ষে সায়েন্স ফিকশন

মোস্তফা মতিহার

বিক্রির শীর্ষে সায়েন্স ফিকশন

আধুনিক জীবনযাপনের সবকিছুতেই রয়েছে বিজ্ঞানের ছোঁয়া ও ভূমিকা। বইমেলায়ও সেই প্রভাব স্পষ্ট। প্রযুক্তির উৎকর্ষতায় মানুষ যখন ছাপানো বইয়ের থেকে দূরে রয়েছে সে সময় বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনি বা সায়েন্স ফিকশন তরুণ পাঠকদের ছাপানো বইয়ের প্রতি অতিমাত্রায় আগ্রহী করে তুলেছে। তরুণদের এক বিরাট অংশের পাঠাভ্যাস তৈরিতে বিশেষ ভূমিকা রাখছে সায়েন্স ফিকশন; যার কারণে গ্রন্থমেলায় সব ধরনের বইয়ের জনপ্রিয়তাকে ছাড়িয়ে যায় সায়েন্স ফিকশন বইগুলো। এতে প্রকাশকদের পাশাপাশি লেখকও জনপ্রিয়তার পথে ধাবিত হন। গল্প, কবিতা, উপন্যাস, প্রবন্ধ, গবেষণা, মুক্তিযুদ্ধ, ভ্রমণকাহিনি, অনুবাদ সব ধরনের বই ছাপিয়ে বিক্রির শীর্ষে রয়েছে বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনি বা সায়েন্সফিকশন বই। স্টল ও প্যাভিলিয়নের সামনে সায়েন্সফিকশন বইয়ের ক্রেতার ভিড়ই প্রমাণ করে এবারও বিক্রির শীর্ষে থাকছে সায়েন্সফিকশন বই। বিশেষ করে কিশোর ও তরুণ পাঠকদের বড় অংশের ভালোলাগা ও ভালোবাসার জায়গা দখল করে আছে সায়েন্সফিকশন। সায়েন্সফিকশন বইয়ের চাহিদা ব্যাপক বলে প্রকাশকরাও সায়েন্সফিকশন বই প্রকাশের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। খুশবন্তনামা : অবশেষে ‘খুশবন্তনামা’ বইমেলায় এসেছে। খুশবন্ত সিং এমন একজন লেখক ছিলেন যাঁর লেখা কেউ একবার পাঠ করার পর পাঠক উদ্গ্রীব থাকেন এরপর কী আসছে! পাঠকদের তিনি বঞ্চিত করেননি। ৯৮ বছর বয়সেও তিনি লিখেছেন এবং তাঁর সর্বশেষ প্রকাশিত বই ছিল ‘খুশবন্তনামা’। ক্যারিয়ারবিষয়ক বই মোটিভেশন প্লাস : শুদ্ধ পরিকল্পনাই ক্যারিয়ার গঠনে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখে। কারণ পরিকল্পনাহীন জীবন দিকপালহীন নৌকার মতো। তাই ছাত্রজীবন থেকে শুরু করে করপোরেট লাইফ, ব্যবসা কিংবা সরকারি চাকরি সর্বত্র নিজের ক্যারিয়ার ও জীবনকে বর্ণময় করে তোলা যায় সঠিক পরিকল্পনার মাধ্যমে। এসব বিষয় নিয়ে বইমেলায় বের হয়েছে সাংবাদিক শামছুল হক রাসেলের ‘মোটিভেশন প্লাস’। বইটি পাওয়া যাচ্ছে অন্বেষা প্রকাশনে (প্যাভিলিয়ন নম্বর ৩৩)। গ্রন্থমেলা বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন : গতকাল সন্ধ্যা ৬টায় বাংলা একাডেমির শহীদ মুনীর চৌধুরী সভাকক্ষে ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা, ২০২০’ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করা হয়। সম্মেলনে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী বলেন, গ্রন্থমেলায় বাংলা একাডেমি প্রকাশিত বঙ্গবন্ধুর ‘আমার দেখা নয়াচীন’ ঘিরে পাঠকের বিপুল আগ্রহ আমাদের আনন্দিত করেছে। একই সঙ্গে আমরা জানিয়ে দিচ্ছি আমাদের পরিকল্পিত বঙ্গবন্ধুবিষয়ক শতগ্রন্থের অংশ হিসেবে আজ পর্যন্ত ১৮টি নতুন গ্রন্থ প্রকাশ পেয়েছে।

 শুধু বাংলা একাডেমির গ্রন্থ নয়; গ্রন্থমেলায় ছোট-বড় যে কোনো প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান থেকে যে কোনো গুরুত্বপূর্ণ গ্রন্থের সংবাদ আপনারাই সাধারণের কাছে তুলে ধরে মানসম্পন্ন গ্রন্থকে প্রণোদনা দিতে পারেন। এ সময় বক্তব্য দেন বাংলা একাডেমির ভারপ্রাপ্ত সচিব ও পরিচালক অপরেশ কুমার ব্যানার্জি, গ্রন্থমেলা, ২০২০-এর সদস্যসচিব ড. জালাল আহমেদ ও স্থপতি এনামুল করিম নির্ঝর।

মূলমঞ্চ : বিকাল ৪টায় গ্রন্থমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় মিনার মনসুর ও দিলওয়ার চৌধুরী সম্পাদিত ‘শেখ মুজিব একটি লাল গোলাপ’ শীর্ষক আলোচনা। এতে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আমিনুর রহমান সুলতান। আলোচনায় অংশ নেন জাহিদুল হক, জাফর ওয়াজেদ ও আসলাম সানী। সভাপতিত্ব করেন সম্পদ বড়ুয়া। প্রাবন্ধিক বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পর পঁচাত্তর-উত্তর সময়ে প্রগতি ও সুস্থ সংস্কৃতির পক্ষে নিজেদের গড়ে তোলা একদল তরুণ বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদে সাহসী হয়ে ওঠেন কবিতা লেখার ভিতর দিয়ে। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকান্ড চট্টগ্রামের সাহিত্য ও সংস্কৃতি অঙ্গনেও আলোড়ন তুলেছিল। বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদে প্রতিবাদী যে সাহিত্যধারাটি সৃষ্টি হয় এ ধারার সঙ্গে কবি মিনার মনসুর ও দিলওয়ার চৌধুরীর নাম অবিস্মরণীয় হয়ে থাকবে। ওই সময় যখন বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারণ করা যেত না তখন তারা বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে স্মারকগ্রন্থ উপহার দিয়েছেন যৌথ সম্পাদনায়। সম্পদ বড়ুয়া বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসের সবচেয়ে নির্মম হত্যাকান্ডের পর সাহসী প্রতিবাদ ধ্বনিত হয়েছে কবিদের কলমেই আর সে প্রতিবাদের প্রতীক হয়ে রয়েছে এ গ্রন্থটি।

স্থাপনা ধারণা প্রদর্শনী : অমর একুশে গ্রন্থমেলা উপলক্ষে স্থাপনা ধারণা প্রতিযোগিতার আয়োজন ছিল এবারের গ্রন্থমেলার উল্লেখযোগ্য সংযোজন। প্রতিযোগীদের উপস্থাপনকৃত স্থাপনাকর্ম নিয়ে গ্রন্থমেলায় গতকাল বিকালে একটি প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন স্থপতি অধ্যাপক সামসুল ওয়ারেস। উপস্থিত ছিলেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী ও স্থপতি এনামুল করিম নির্ঝর।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর