শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২৮ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৭ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:৩৬

কৃষি

কুড়িগ্রামে এক থোকায় ৩৮ লাউ

খন্দকার একরামুল হক সম্রাট, কুড়িগ্রাম

কুড়িগ্রামে এক থোকায় ৩৮ লাউ

এবার কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীতে এক কৃষকের বাড়িতে জাঙলায় একই থোকায় ৩৮টি লাউ ধরেছে। এতে অবাক এলাকাবাসীসহ উপজেলা কৃষি বিভাগ। তবে কৃষি বিভাগ লাউয়ের এ রকম ফলনের ছবি ও তথ্য কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটে পাঠিয়েছে বলে জানান উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান। তিনি বলেন, ‘ইতিমধ্যে এ বিষয়ে আমাদের জানানো হয়েছে জিনগত সমস্যা বা অনিয়মিত ফল ধারণে এরূপ হয়েছে। তবে আরও গবেষণা প্রয়োজন।’

ভূরুঙ্গামারী উপজেলার বলদিয়া ইউনিয়নের পূর্ব কেদার গ্রামের কৃষক আবদুস সালামের বাড়ির পেছনে লাগানো লাউ গাছের একটি থোকায় ছোট বড় ৩৮টি লাউ ধরার ঘটনায় উৎসুক মানুষের ঢল দেখা যায়। কৃষক আবদুস সালামের স্ত্রী জয়নব বেগম বলেন, ‘আমি নিজে এ লাউ গাছ লাগাই। কিন্তু ধীরে ধীরে গাছ বড় ও পরিণত হলে প্রথম দফায় এতে ছোট বড় অর্ধশত লাউ ধরে। আমরা খেয়েছি, বিক্রিও করেছি। লাউ শেষ হলে ওই একটি থোকায় পুনরায় অসংখ্য ফুল আসে। সে ফুল থেকে লাউ বেরিয়ে আসতে থাকে। এখন থোকার মতো করে লাউ ঝুছে। এতগুলো লাউ আবার ধরবে ভাবতে পারিনি।’

এ ব্যাপারে কৃষি কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান বলেন, ‘আমি নিজে স্পটে গিয়ে ওই লাউগুলো দেখেছি। প্রথম দিকে ৪০টি লাউ ছিল। এখন লাউ আছে ৩৫টি। ৪টি লাউ বড় এগুলোর ওজন ৫০০-৭০০ গ্রাম এবং ছোটগুলোর ওজন ৫০, ১০০, ১৫০ ও ২০০ গ্রাম হবে। অস্বাভাবিক এ ফলনের বিষয়ে বৈজ্ঞানিক গবেষণার জন্য ছবি তুলে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর ও বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটে পাঠানো হলে তারা ফল জানান। জিনগত সমস্যা বা অনিয়মিত ফল ধারণে এরূপ হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে অধিদফতর জানিয়েছে।’ এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক মঞ্জুরুল ইসলাম জানান, জিনগত সমস্যার কারণে এরূপ হয়ে থাকতে পারে।