শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৬ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৫ মে, ২০২১ ২৩:২৭

কক্সবাজার থেকে হেফাজত নেতা জাকারিয়া গ্রেফতার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুজনের বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি

Google News

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে দেশের বিভিন্ন জায়গায় নাশকতার ঘটনার অন্যতম মদদদাতা ও হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক মাওলানা জাকারিয়া নোমান ফয়জীকে গ্রেফতার করেছে চট্টগ্রাম জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। গতকাল বিকালে কক্সবাজার জেলার চকোরিয়া থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার এস এম রশিদুল হক বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে দেশের বিভিন্ন জায়গায় নাশকতার ঘটনার অন্যতম মদদদাতা ছিলেন জাকারিয়া নোমান ফয়জী। ঘটনার পর থেকেই তিনি পলাতক ছিলেন। গতকাল বিকেলে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কক্সবাজারের চকোরিয়া থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলা হেফাজতে ইসলামের সহসভাপতি মাওলানা মেহেদী হাসান ও সহ-সাধারণ সম্পাদক মুফতি আমজাদ হোসাইন আশরাফীর বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়েরের জন্য দেওয়া এজাহারটি মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করেছে সদর মডেল থানা পুলিশ। গত মঙ্গলবার রাত সোয়া ১১টায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাটি নথিভুক্ত করা হয়। এ মামলায় মেহেদী ও আমজাদসহ তিনজনকে আসামি করা হয়েছে। অপর এক আসামি হলেন-ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরের কে. দাস মোড়ের বাসিন্দা সানাউল হক চৌধুরী (৫৫)। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) মুহাম্মদ শাহজাহান জানান, ছাত্রলীগ সভাপতির দেওয়া এজাহারটি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে নথিভুক্ত করা হয়েছে।

গত সোমবার রাতে সদর মডেল থানায় এজাহার জমা  দেন জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রবিউল হোসেন রুবেল। এজাহারে বলা হয়, আসামিরা গত ২৬ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংগঠিত হেফাজতে ইসলামের তান্ডবের প্রত্যক্ষ মদদদাতা। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর ও বিজয়নগর) আসনের সংসদ সদস্য র. আ. ম. উবায়দুল  মোকতাদির চৌধুরীর মানহানি এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট বা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি এবং আইনশৃঙ্খলা অবনতির জন্য মাওলানা মেহেদী হাসান তাঁর ফেসবুক আইডি  থেকে একটি পোস্ট দেন। মেহেদী তাঁর সেই পোস্টে  মোকতাদির চৌধুরীকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের জামিয়া ইসলামিয়া ইউনুছিয়া মাদরাসায় হামলাকারী উল্লেখ করে তাঁর ফাঁসি দাবি করেন। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতি ঘটানোর অভিপ্রায়ে বাকি দুই আসামি মেহেদীর ওই  পোস্ট প্রচার করেন বলে এজাহারে উল্লেখ করেন বাদী।

এই বিভাগের আরও খবর