শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৫ জুন, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৫ জুন, ২০২১ ০০:০৩

ঢাবি শিক্ষার্থী ধর্ষণ

নূরসহ চারজনকে অব্যাহতি দিয়ে চার্জশিট

আদালত প্রতিবেদক

Google News

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ ও ধর্ষণে সহযোগিতার মামলা থেকে ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নূরসহ চারজনকে অব্যাহতির সুপারিশ করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেছে পুলিশ। এ ছাড়া চার্জশিটে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের সাবেক যুগ্ম-আহ্বায়ক নাজমুল হাসান সোহাগ ও সাবেক আহ্বায়ক হাসান আল মামুনকে আসামি করে চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে। এ বিষয়ে আদালত পুলিশের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতোয়ালি থানার পুলিশ পরিদর্শক  মো. ওয়াহিদুজ্জামান গতকাল আদালতে এ চার্জশিট দাখিল করেন। করোনা মহামারীর কারণে আদালতের স্বাভাবিক কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। তবে আদালত নিয়মিত খুলে দিলে বিচারকের কাছে চার্জশিট উপস্থাপন করা হবে।

এদিকে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় নূর ছাড়া অব্যাহতি পাওয়া মামলার অপর আসামিরা হলেন- বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক মো. সাইফুল ইসলাম (২৮), বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের সভাপতি নাজমুল হুদা (২৫) এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আবদুল্লাহিল বাকি (২৩)।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত বছর ২০ সেপ্টেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী লালবাগ থানায় বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুনকে প্রধান আসামি করে ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলায় অভিযোগ করা হয়, বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন ২০২০ সালের ৩ জানুয়ারি দুপুর আড়াইটার দিকে বাদীকে তার লালবাগের বাসায় যেতে বলেন। সেখানে বিয়ের প্রলোাভন দেখিয়ে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে  জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন তিনি। এ ঘটনার পরদিন বাদী অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে একই বছরের ১২ জানুয়ারি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আসামি নাজমুল হাসান সোহাগের মাধ্যমে ভর্তি হন। এরপর থেকে আসামি হাসান আল মামুন আত্মগোপন করেন। আসামি নাজমুল হাসান সোহাগ আসামি হাসান আল মামুনের সঙ্গে দেখা করিয়ে দেবে বলে গত বছর ৯ ফেব্রুয়ারি কৌশলে লঞ্চযোগে বাদীকে চাঁদপুর নিয়ে যান। চাঁদপুর পৌঁছার পর হাসান আল মামুনকে দেখতে না পেয়ে দ্রুত ঢাকা ফেরার জন্য বলেন বাদী। নাজমুল তাকে নিয়ে বিকালে লঞ্চে কেবিনে অবস্থান করেন। সেখানে নাজমুল হাসান তাকে ধর্ষণ করেন।