শিরোনাম
বুধবার, ৪ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা

অন্যকে ফাঁসাতে মেয়েকে বলি

মির্জা মেহেদী তমাল

অন্যকে ফাঁসাতে মেয়েকে বলি

হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ। পুরাইকলা বাজারের কাছেই রয়েছে বড় একটি হাওর। এক সকালে বাজারের লোকজনের চোখে পড়ে এক কিশোরীর লাশ। হাওরের তীরে ভাসছিল লাশটি। পুলিশ আসে। লাশ উদ্ধার করে। শত শত লোকের ভিড় লাশ ঘিরে। গ্রামের ছায়েদ আলী তার মেয়ে বিউটিকে খুঁজে পাচ্ছিলেন না। যখন তিনি শুনলেন কিশোরীর লাশ উদ্ধার হয়েছে তখন অজানা আশঙ্কা নিয়ে ছুটে যান হওরের কাছে। লাশটি দেখেই জড়িয়ে ধরেন। বিউটি বলে চিৎকার করে কাঁদতে থাকেন। ছায়েদ আলী নিখোঁজ স্কুল পড়ুয়া মেয়ে বিউটিকে ঠিকই পেলেন, কিন্তু জীবিত নয়। সন্তানের মৃতদেহ ধরে আহাজারি করতে থাকেন। এ ঘটনায় সেদিনই বিউটিকে হত্যা ও ধর্ষণের অভিযোগে ছায়েদ আলী বাদী হয়ে স্থানীয় বাবুল (৩২) ও তার মা ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য কলমচান বিবির (৪৫) নামে মামলা করেন। এজাহারে অজ্ঞাতনামা আরও কয়েকজনকে আসামি করা হয়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিউটির নিথর দেহের ছবি ছড়িয়ে পড়ার পর এ নিয়ে আলোচনার ঝড় ওঠে। হত্যা ও ধর্ষণে জড়িতদের বিচার দাবিতে দেশজুড়ে নানা কর্মসূচি পালন করা হয়। ২০১৮ সালের ১৭ মার্চের ঘটনা এটি।

পুলিশ ২১ মার্চ কলমচান ও বাবুলের বন্ধু একই গ্রামের ইসমাইলকে আটক করে। ৩১ মার্চ সিলেটের বিয়ানীবাজার থেকে গ্রেফতার করা হয় বাবুলকে। ৬ এপ্রিল হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে বাবুল বিউটি হত্যা ও ধর্ষণের দায় স্বীকার করেন। এর মধ্যে ৫ এপ্রিল গ্রেফতার করা হয় বিউটির চাচা ময়নাকে, ৬ এপ্রিল ধরা হয় ছায়েদকে। এ দুই দিনে দুজনের ১৬৪ ধারায় আদালতে দেওয়া জবানবন্দির বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, বিউটির বাবা ও মামলার বাদী ছায়েদ পাঁচ ঘণ্টাব্যাপী জবানবন্দিতে অকপটে স্বীকার করে নেন মেয়ে হত্যার পেছনে তার জড়িত থাকার কথা। হত্যাকান্ডের রাতে তিনি নিজেই নানাবাড়ি থেকে নিয়ে বিউটিকে তুলে দেন খুনিদের হাতে। ১৬ মার্চ রাত সাড়ে ১০টায় লাখাই উপজেলার গনিপুরের নানাবাড়ি থেকে বিউটিকে নিয়ে যান ময়না, ছায়েদ ও তাদের ভাড়াটে খুনি। রাত ১২টায় ঘটে হত্যাকান্ড। বটতলায় বিউটিকে ধরে রাখেন ভাড়াটে খুনি, ছুরি দিয়ে পাঁচবার আঘাত করেন ময়না। ২০ ফুট দূরে দাঁড়িয়ে দেখছিলেন ছায়েদ! পুলিশ পরে নিশ্চিত হয়, মামলার প্রধান আসামি বাবুল হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত নন। তবে বিউটিকে একটি ভাড়া বাড়িতে রেখে টানা ১৭ দিন ধর্ষণ করেন তিনি। হত্যায় তার সম্পৃক্ততা নেই। ধর্ষণ এবং বাবা ও পড়শি চাচার দ্বারা এ রোমহর্ষক খুনের ছক সম্পর্কে বেরিয়ে আসে খুনের আসল রহস্য। বাবুল মিয়া শায়েস্তাগঞ্জের ওলিপুরে একটি কোম্পানিতে চাকরি করছিলেন। তার মা কলমচান ইউপি নির্বাচনে সংরক্ষিত সদস্য নির্বাচিত হন। আর্থিকভাবে প্রভাবশালী বাবুল এর আগে এক প্রবাসীর স্ত্রীকে বিয়ে করেন। এরই মধ্যে তার নজর পড়ে স্কুলছাত্রী বিউটির ওপর। তার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে বিয়ের প্রলোভন দেখান এবং নিজের কোম্পানিতে চাকরির আশ্বাস দেন। এর ধারাবাহিকতায় ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে ৯ মার্চ পর্যন্ত বাবুল ওলিপুরে ১ হাজার টাকায় একটি রুম ভাড়া নিয়ে বিউটিকে স্ত্রী পরিচয় দিয়ে একসঙ্গে থাকেন। ৯ মার্চ বিউটিকে নিয়ে যান সেই কোম্পানিতে। একই কোম্পানিতে কাজ করেন বিউটির মা হুসনা বেগমও। বিষয়টি জেনে তিনি মেয়েকে বাড়ি নিয়ে আসেন।

এরপর এ নিয়ে দুই দফায় গ্রাম্য সালিশ ডাকা হলেও বিষয়টি অমীমাংসিত থেকে যায়। বিউটিকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানান বাবুল। পরে স্কুলছাত্রীটিকে হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে তিন দিন রাখা হয়। ১৪ মার্চ হবিগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে বিউটিকে অপহরণসহ ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়। পরে মামলাটি শায়েস্তাগঞ্জ থানায় এফআইআর করা হয়। এর মধ্যে ১২ মার্চ বিউটিকে থানায় নেওয়া হয়। মেডিকেল পরীক্ষার পর সে আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি দেয়। এমনকি বাবুল তাকে বিয়ে করলে মামলা তুলে নেবে বলেও জানায়। কিন্তু বিউটিকে বাড়িতে আনার পর দিশাহারা হয়ে পড়েন ছায়েদ। একপর্যায়ে তাকে পাঠিয়ে দেন নিকটস্থ লাখাইয়ের গুনিপুর গ্রামে তার নানি ফাতেমা বেগমের বাড়ি। হত্যাকান্ডের পরিকল্পনা চলে তখন থেকেই। পুলিশ জানায়, বিগত ইউপি নির্বাচনে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড থেকে সংরক্ষিত নারী আসনের মেম্বার পদে নির্বাচন করেন ময়নার স্ত্রী আসমা আক্তার ও বাবুলের মা কলমচান। কথা ছিল কলমচান নির্বাচনে না গিয়ে আসমাকে ছাড় দেবেন। কিন্তু কথা না রেখে কলমচান ভোট করে আসমাকে হারিয়ে দেন। এরপর উভয় পরিবারের মধ্যে দ্বন্দ্ব শুরু হয়। ছায়েদ আলী প্রথম মামলাটি করলে এতে সাক্ষী হন তার ঘনিষ্ঠ ও এলাকার আদম ব্যবসায়ী ময়না। বিউটিকে নানাবাড়ি পাঠানোর পর এই ময়না প্রায়ই ছায়েদ মিয়াকে বোঝাতে থাকেন বিউটিকে বাবুল বিয়ে না করলে তাকে আর কেউ বিয়ে করবে না। অন্য সন্তানদেরও আর বিয়ে হবে না। এরপর বিউটিকে মেরে বাবুল ও তার মাকে ফাঁসানোর ছক বোঝান ছায়েদকে।

একপর্যায়ে ময়নার ফাঁদে পা দেন ছায়েদ মিয়া। তাকে নানাবাড়ি থেকে বের করার সময় চেয়ারম্যানের কাছে নেওয়ার কথা বলা হয়। পরে লাখাইয়ের সেই বটলতায় ঘটে হত্যাকান্ড। বিউটিকে খুনের পর রক্ত ধুয়ে লাশ হাওরে ফেলে রাখা হয়। লাশ উদ্ধারের খবরে নানি বিউটিদের বাড়ি এলে তাকে শাসিয়ে দেওয়া হয় কোনো কিছু না বলার জন্য।

রহস্য উদ্ঘাটনের তথ্য দিয়ে তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, মেয়ে হত্যার পর একজন বাবার যে অনুভূতি থাকার কথা ছিল তা ছায়েদের চেহারায় ছিল না। তার ও ময়নার চলাচল এবং আচরণে সন্দেহ হলে তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে তথ্য ঘেঁটে দুজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।