শিরোনাম
প্রকাশ : ৪ ডিসেম্বর, ২০২০ ১৩:০১
আপডেট : ৪ ডিসেম্বর, ২০২০ ১৪:১৬
প্রিন্ট করুন printer

দেশে ফিরতে করোনা নেগেটিভ সনদ বাধ্যতামূলক

অনলাইন ডেস্ক

দেশে ফিরতে করোনা নেগেটিভ সনদ বাধ্যতামূলক

বিশ্বব্যাপী চলছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ। এই ভাইরাসের প্রকোপ মোকাবেলায় বিদেশফেরত যাত্রীদের করোনা নেগেটিড সনদ বাধ্যতামূলক করল সরকার।

এর ফলে এখন থেকে দেশে আসতে চাইলে অবশ্যই ৭২ ঘণ্টা আগের করোনামুক্তির সনদ লাগবে। যেসব যাত্রী সনদ জোগাড় করতে পারবেন না তাদের টিকিট-ভিসা থাকলেও বোর্ডিং কার্ড ইস্যু করবে না সংশ্লিষ্ট এয়ারলাইনস। 

বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) নতুন নির্দেশনায় সনদ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ইউরোপ-আমেরিকায় শুরু হওয়া করোনা মহামারীর দ্বিতীয় ঢেউ যাতে বাংলাদেশে আছড়ে পড়তে না পারে, সে ব্যাপারে সতর্কতামূলক কঠোর অবস্থান নিয়েছে সরকার। তবে প্রায় প্রতিদিনই বিভিন্ন এয়ারলাইনসের ফ্লাইটে সনদ ছাড়াই যাত্রী দেশে আসছে। এ অবস্থায় দেশের করোনা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা করছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সূত্র জানায়, বিদেশগামী যাত্রীদের করোনা নেগেটিভ সনদ আগেই বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। কিন্তু বিদেশফেরত বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী যাত্রীদের ক্ষেত্রে করোনা নেগেটিভ সনদ আনার কথা বলা হলেও বাধ্যতামূলক ছিল না। যদি কেউ সনদ না নিয়ে আসেন তাহলে তাকে দেশে এসে লক্ষণ অনুযায়ী হোম কিংবা প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হতো। কিন্তু সম্প্রতি সনদ ছাড়া যাত্রী আসার হার বাড়তে থাকে। শুধু নভেম্বরেই চার হাজারের বেশি যাত্রী আসেন করোনা নেগেটিভ সনদ ছাড়া। তাই এই আগমনের রাশ টানতে এবার সনদ বাধ্যতামূলক করা হল।

সূত্র জানায়, গত ৩০ নভেম্বর বিভিন্ন এয়ারলাইনস সংশ্লিষ্ট সংস্থার কাছে বেবিচকের সদস্য, ফ্লাইট স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড রেগুলেশন্স গ্রুপ ক্যাপ্টেন চৌধুরী এম জিয়াউল কবীর স্বাক্ষরিত নতুন নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে। নতুন নির্দেশনায় কূটনৈতিক ও ইউএন মিশনের সদস্যদের ক্ষেত্রেও পিসিআর টেস্ট বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। প্রবাসী শ্রমিকদের ক্ষেত্রে যেসব দেশে পিসিআর টেস্টের ব্যবস্থা নেই, সেখান থেকে অ্যান্টিজেন কিংবা গ্রহণযোগ্য কোনো করোনা নেগেটিভ সনদ সঙ্গে নিয়ে আসতে বলা হয়েছে। তবে ১০ বছরের কম বয়সী শিশুদের ক্ষেত্রে এই নির্দেশনা শিথিল করা হয়েছে।

এ বিষয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন এ এইচ এম তৌহিদ উল আহসান গণমাধ্যমকে বলেন, ‘বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের সার্কুলার আমরা পেয়েছি। আগামী শনিবার থেকে করোনা সনদ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।’

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৯:৪৪
আপডেট : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ২০:২৯
প্রিন্ট করুন printer

দেশ উন্নত হওয়ায় মানুষ ভোটে আগ্রহ হারিয়েছে : ইসি সচিব

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশ উন্নত হওয়ায় মানুষ ভোটে আগ্রহ হারিয়েছে : ইসি সচিব
ইসি সচিব মো. আলমগীর। ফাইল ছবি

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর বলেছেন, ভোটদানের প্রতি নাগরিকদের অনীহা রয়েছে। হয়তো দেশ উন্নত হ‌ওয়ার সাথে সাথে মানুষও ভোটদানে আগ্রহ হারিয়েছে। বুধবার চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন সম্পর্কে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এসব কথা বলেন তিনি।

চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচন সম্পর্কে ইসি সচিব বলেন, ভালো নির্বাচন হয়েছে। স্বাভাবিকভাবে নির্বাচন হয়েছে। তবে দুটি কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলা হয়েছে, সে দুটি স্থগিত রয়েছে। অভিযোগ পেলে নির্বাচন কমিশন ব্যবস্থা নেবে। তবে আগের তুলনায় এই নির্বাচনে কম সহিংসতা হয়েছে। ভোটার উপস্থিতি‌ও কম। 

তিনি বলেন, কোনো কোনো কেন্দ্র ৫০ থেকে ৮০ ভাগ ভোট পড়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে কোনো কেন্দ্রে আবার ৫ ভাগ ভোটও পড়তে পারে।

বিএনপির অভিযোগ সম্পর্কে মো. আলমগীর বলেন, বিএনপির অভিযোগের সুনির্দিষ্ট কোনো প্রমাণ নেই। উপযুক্ত প্রমাণসহ অভিযোগ করা হলে বিষয়টা ভেবে দেখা হবে, ভিডিও থাকলে ভালো হয়।

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৯:২৭
আপডেট : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৯:৩২
প্রিন্ট করুন printer

৪৩তম বিসিএসে আবেদনের সময় বাড়ল

অনলাইন ডেস্ক

৪৩তম বিসিএসে আবেদনের সময় বাড়ল
ফাইল ছবি

৪৩তম বিসিএস পরীক্ষার অনলাইন আবেদনের সময় বাড়ানো হয়েছে। সেইসঙ্গে পেছানো হয়েছে প্রিলিমিনারি পরীক্ষার সম্ভাব্য তারিখ।

বুধবার পিএসসির কমিশনের সভায় এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। পাবলিক সার্ভিস কমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যান সোহরাব হোসাইন গণমাধ্যমকে এতথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘৪৩তম বিসিএসের আবেদনের সময় বাড়ানো হয়েছে। আগামী ৩১ জানুয়ারি আবেদন কার্যক্রম শেষ হওয়ার কথা থাকলেও সেটি পরবর্তী দুই মাস বাড়ানো হয়েছে। ইউজিসির পাঠানো আবেদনকে গুরুত্ব দিয়ে সময় বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

পিএসসির চেয়ারম্যান বলেন, ‘আবেদন প্রক্রিয়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রিলিমিনারি পরীক্ষার সম্ভাব্য সময় পিছিয়ে দেয়া হয়েছে। এটি আগামী ৬ আগস্ট নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলেও এ সময়ে প্রিলিমিনারি পরীক্ষা শুরু করা হবে।’

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৯:২৬
প্রিন্ট করুন printer

ভোট দেয় প্রশাসন, আর দেখে জনগণ : সংসদে রুমিন ফারহানা

অনলাইন ডেস্ক

ভোট দেয় প্রশাসন, আর দেখে জনগণ : সংসদে রুমিন ফারহানা
ফাইল ছবি

চট্টগ্রামে সিটি নির্বাচনের উত্তাপ ছড়িয়েছে জাতীয় সংসদেও। এ প্রসঙ্গ আজ বুধবার সংসদে আইন প্রণয়নের আলোচনায় উঠে আসে। এসময় সংশোধনী প্রস্তাবে বিএনপির সংরক্ষিত আসনের সদস্য রুমিন ফারহানা বলেন, ভোট দেয় প্রশাসন। আর দেখে জনগণ। 

তিনি আরও বলেন, ভোটটা সুষ্ঠু করে করলেই হয়। কারও থেকে ভোট শিখতে হবে না। ভোট কীভাবে দিতে হয়, সেটা সবাই জানে। ভোটটা দিতে দিলেই হয়।

উল্লেখ্য, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। এবারের নির্বাচনে ৪১টি ওয়ার্ডে মোট ৭৩৫টি কেন্দ্রে ৪ হাজার ৮৮৬টি বুথে ইভিএম’র মাধ্যমে একযোগে ভোটগ্রহণ শুরু হয়।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৮:৪০
প্রিন্ট করুন printer

করোনার ভ্যাকসিন প্রদানে অগ্রাধিকারপ্রাপ্তদের তালিকা প্রকাশ

অনলাইন ডেস্ক

করোনার ভ্যাকসিন প্রদানে অগ্রাধিকারপ্রাপ্তদের তালিকা প্রকাশ
ফাইল ছবি

জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রদানের পরিকল্পনায় অগ্রাধিকারপ্রাপ্তদের বিবরণ প্রকাশ করেছেন। আজ বুধবার জাতীয় সংসদে টাঙ্গাইল-৬ আসনের সংসদ সদস্য আহসানুল ইসলাম টিটুর প্রশ্নের জবাবে এ বিবরণ প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী। এসময় ভ্যাকসিন নিয়ে সরকারের পরিকল্পনাসমূহও তুলে ধরেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে ভ্যাকসিনপ্রাপ্তদের কোভিড-১৯ স্বাস্থ্যসেবায় সরাসরি সম্পৃক্ত সব সরকারি স্বাস্থ্যকর্মী ৪ লাখ ৫২ হাজার ২৭ জন টিকা পাবেন। একইসঙ্গে ভ্যাকসিন বিতরণের প্রথম পর্যায়ে দেশের জনসংখ্যার মোট ১ কোটি ৫০ লাখ (৮.৬৮ %) লোককে দুই সপ্তাহের ব্যবধানে ২ ডোজ করে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে।

এছাড়া পর্যায়ক্রমে যাদের ভ্যাকসিন দেয়া হবে তারা হলেন- কোভিড-১৯ স্বাস্থ্যসেবায় সরাসরি সম্পৃক্ত সব অনুমোদিত বেসরকারি ৬ লাখ স্বাস্থ্যকর্মী, দুই লাখ ১০ হাজার বীর মুক্তিযোদ্ধা, সম্মুখসারির আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাঁচ লাখ ৪৬ হাজার ৬২০ জন সদস্য, সামরিক ও বেসামরিক প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৩ লাখ ৬০ হাজার ৯১৩ জন সদস্য, রাষ্ট্র পরিচালনায় অপরিহার্য কার্যালয়ে কর্মরত ৫০ হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী, সম্মুখসারির গণমাধ্যমকর্মী ৫০ হাজার, নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি ১ লাখ ৭৮ হাজার ২৯৮, সিটি করপোরেশন ও পৌরসভার সম্মুখসারির কর্মচারী ১ লাখ ৫০ হাজার, ৫ লাখ ৪১ হাজার ধর্মীয় প্রতিনিধি। মৃতদেহ সৎকার কাজে নিয়োজিত ৭৫ হাজার ব্যক্তি, জরুরি পানি, গ্যাস, পয়ঃনিষ্কাশন, বিদ্যুৎ, ফায়ার সার্ভিস ও পরিবহন কর্মচারী ৪ লাখ, স্থল, নৌ ও বিমানবন্দর কর্মী ১ লাখ ৫০ হাজার, প্রবাসী অদক্ষ শ্রমিক ১ লাখ ২০ হাজার, জেলা ও উপজেলাসমূহে জরুরি জনসেবায় সম্পৃক্ত সরকারি কর্মচারী ৪ লাখ, ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারী ১ লাখ ৯৭ হাজার ৬২১, স্বল্প রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার জনগোষ্ঠী (যক্ষ্মা, এইডস ও ক্যান্সার রোগী) ৬ লাখ ২৫ হাজার, ৬৪ থেকে ৭৯ বছর বয়স্ক জনগোষ্ঠী ১ কোটি ৩ লাখ ২৬ হাজার ৬৫৮, ৮০ বছর ও তদূর্ধ্ব বয়স্ক জনগোষ্ঠী ১৩ লাখ ১২ হাজার ৯৭৩, জাতীয় দলের খেলোয়াড় (ফুটবল, ক্রিকেট, হকি ইত্যাদি) ২১ হাজার ৮৬৩, বাফার, ইমার্জেন্সি, আউটব্রেক ১ লাখ ৭০ হাজার জন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ ডাব্লিওএইচও’র কোভাক্স সুবিধা থেকে তার জনসংখ্যার ২০ শতাংশ অর্থাৎ ৩.৪০ কোটি লোকের জন্য ৬.৮০ কোটি টিকা পাবে।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ভারতের উপহার হিসেবে ২০ লাখ টিকা পেয়েছে বাংলাদেশ। ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট থেকে ক্রয়কৃত ৫০ লাখ করোনার টিকা গত ২৫ জানুয়ারি ঢাকা পৌঁছেছে। ৭০ লাখ টিকা সংরক্ষণ ও বিতরণের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। সিরামের সাথে চুক্তি অনুযায়ী আগামী ছয় মাসে সব টিকার সরবরাহ পাওয়া যাবে। এর বাইরে প্রয়োজন মোতাবেক আরো টিকা ক্রয়ের জন্য সরকারের পরিকল্পনা রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের ৬৪টি জেলা ইপিআই স্টোর এবং ৪৮৩টি উপজেলা ইপিআই স্টোরে এ ভ্যাকসিন সংরক্ষণ করা হবে।
চুক্তি অনুযায়ী ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট থেকে প্রাপ্ত ৩ কোটি বা ততোধিক ডোজ ভ্যাকসিন ছয়টি ধাপে সরাসরি বাংলাদেশের নির্ধারিত জেলার ইপিআই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

সূত্র : বাসস।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৮:৩০
প্রিন্ট করুন printer

নিজে করোনা ভ্যাকসিন নেয়ার বিষয়ে যা বললেন প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

নিজে করোনা ভ্যাকসিন নেয়ার বিষয়ে যা বললেন প্রধানমন্ত্রী

অবশেষে বহুল প্রতীক্ষিত করোনা ভাইরাসের টিকাদান কার্যক্রম শুরু হলো। এসময় যারা টিকা নিতে এসেছেন তাদের হাসিমুখে অভয় দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নিজেও টিকা নেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন। তার আগে সকলের জন্য টিকা দেওয়ার কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। 

এসময় যারা টিকা নিতে এসেছেন তাদের হাসিমুখে অভয় দেন প্রধানমন্ত্রী। নিজেও টিকা নেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন। করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নেওয়ার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আগে আগে নিলে বলবে আগে নিজেই নিল, কাউকে দিল না। সবাইকে দিয়ে নেই তারপর আমি নেব। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের মানুষের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করা আমাদের কর্তব্য। যখন অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকা আসলো, আমরা বললাম যত দ্রুত এই টিকা নেওয়া যায়। আমি ১ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রেখেছিলাম ভ্যাকসিন কেনার জন্য।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর