শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২৩:৪৬

কান্না থামছে না ফারহার দেড় বছরের মেয়ে ইশরার

নিজস্ব প্রতিবেদক

জীবন নিয়ে অনেক পরিকল্পনা ছিল ফারহার। ভালোই কাটছিল সময়। অন্যদিনের মতো বৃহস্পতিবারও বেরিয়েছিলেন স্বামীর সঙ্গে। কিন্তু প্রতিদিনের মতো এদিন ঘরে ফেরা হয়নি তার। মাত্র ২৮ বছর বয়সে তিনি চলে গেলেন এ পৃথিবীর মায়া ছেড়ে। একই সঙ্গে এক স্বপ্নের অপমৃত্যু ঘটে। অকালে মায়ের এমন বিদায়ে কান্না থামছে না ফারহার দেড় বছরের মেয়ে তাহরিন হাসান ইশরার। ফারহাদের বাসা মিরপুরের মনিপুরে। স্বামী-স্ত্রী দুজনই চাকরিজীবী। স্বামী নাজমুল হাসান পল্লী বিদ্যুতে চাকরি করেন। আর ফারহা নাজ বনানী এলাকায় ইউপিএল নামের একটি কোম্পানির হিসাবরক্ষক। ক্যান্টনমেন্ট মিনিবাস সার্ভিসের ধাক্কায় তার মৃত্যু হয়।

 বৃহস্পতিবার বিকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে তার লাশ নেওয়া হয় মিরপুরের মনিপুরের বাসায়। লাশ দেখতে ভিড় করে স্বজনরা। নেমে আসে এক শোকাবহ পরিবেশ। সৃষ্টি হয় আবেগঘন দৃশ্যের। ফারহা নাজের দেড় বছরের মেয়েটি এখনো বোঝেওনি চিরদিনের জন্য মাকে হারাতে হলো।

স্বজনরা জানিয়েছেন, ফারহা নাজ অফিস শেষে সন্ধ্যায় বাসায় ফেরার সঙ্গে সঙ্গে ছোট্ট মেয়ে ছুটে আসত মায়ের কোলে। কিন্তু বৃহস্পতিবার ফেরেননি তার মমতাময়ী মা। রাতেও মায়ের দেখা না পেয়ে কান্না শুরু করে শিশুটি। তারা নানাভাবে তার কান্না থামাতে চেষ্টা করেন।  

ফারহা নাজের বোনের স্বামী সরফরাজ জানান, নাজমুল-ফারহা নাজ দম্পতি প্রতিদিন একই সঙ্গে অফিসে যাওয়া-আসা করতেন। 

পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে দাফন করা হয় ফারহার লাশ। তার বাবা মো. ইসরাইল। গ্রামের বাড়ি ঢাকার ধামরাইয়ের বাথুলি এলাকায়। তবে তার বাবা-মা থাকেন ডেমরার কোনাপাড়ায়। 


আপনার মন্তব্য