Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২৩:৫১

বিমরাডের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

সমৃদ্ধি অর্জনে সমুদ্রসম্পদ কাজে লাগাতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক

সমৃদ্ধি অর্জনে সমুদ্রসম্পদ কাজে লাগাতে হবে

সমুদ্র নিরাপত্তা ও সমুদ্রসম্পদ নিয়ে গতকাল বনানীর নৌবাহিনী সদর দফতরে আয়োজিত এক সেমিনারে বক্তারা বলেন, বিশাল সমুদ্র মৎস্য ও খনিজসহ বিভিন্ন সম্পদে পরিপূর্ণ। দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনে সমুদ্রসম্পদকে কাজে লাগাতে হবে। মেরিটাইম খাতে গবেষণা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব মেরিটাইম রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (বিমরাড)-এর প্রথম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রতিষ্ঠানটির প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল আওরঙ্গজেব চৌধুরী। ঢাকা সফররত ভারতের নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল কর্মবীর সিং বিশেষ অতিথি ছিলেন। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের সমুদ্র নিরাপত্তা ও সমুদ্র সংক্রান্ত বিষয়ে করণীয় সম্পর্কে কি-নোট উপস্থাপন করা হয়।

 বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. রাশেদ উজ জামান এবং রিয়ার এডমিরাল এ এস এম এ আওয়াল (অব.)।

সেমিনারে নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল আওরঙ্গজেব চৌধুরী বলেন, সমুদ্রসম্পদের গুরুত্ব উপলব্ধি করেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৪ সালে প্রথম সমুদ্র অঞ্চলের সীমা নির্ধারণ, সমুদ্র সীমানায় বিভিন্ন কর্মকা  পরিচালনা ও সমুদ্রসম্পদ অনুসন্ধান ও আহরণের জন্য ‘দি টেরিটোরিয়াল ওয়াটার্স অ্যান্ড মেরিটাইম জোন অ্যাক্ট-১৯৭৪’ প্রণয়ন করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে বঙ্গোপসাগরের ১,১৮,৮১৩ বর্গকিলোমিটার এলাকায় বাংলাদেশের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

বিমরাডের চেয়ারম্যান, প্রাক্তন নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল নিজামউদ্দিন আহমেদ দেশ-বিদেশের মেরিটাইম কমিউনিট, সংশ্লিষ্ট সব সংস্থা, গবেষকদের সহযোগিতায় কেন্দ্রীয় থিংক ট্যাংক হিসেবে বিমরাড কাজ করবে বলে আশা প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, নৌবাহিনীর পৃষ্ঠপোষকতায় বিমরাড একটি সেবাধর্মী ও অলাভজনক সামুদ্রিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান হিসেবে গত বছরের ৩ জুলাই যাত্রা শুরু করে।


আপনার মন্তব্য