শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ৪ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩ আগস্ট, ২০২১ ২৩:৫২

ঠিকাদারকে হাতুড়িপেটা কুষ্টিয়ায় তিনজন আটক

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

Google News

কুষ্টিয়ায় প্রকাশ্যে ঠিকাদারকে হাতুড়ি পেটানোর ঘটনায় তিনজনকে আটক করেছে র‌্যাব। গতকাল দুপুরে র‌্যাব সদস্যরা অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে। তারা হচ্ছেন- ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানা এলাকার হাতিয়া গ্রামের হানিফ মন্ডলের ছেলে মো. মোকাদ্দেস হোসেন (৪১), শহরের চৌড়হাসের মৃত রওশন আলী বিশ্বাসের ছেলে আমিরুল ইসলাম বিল্টু (৪৫) ও পূর্ব মজমপুর সকাল-সন্ধ্যা গলির শওকত ইসলামের ছেলে মো. জহুরুল ইসলাম (২৮)।

র‌্যাব-১২ কুষ্টিয়া ইউনিটের কোম্পানি কমান্ডার স্কোয়াড্রন লিডার মো. ইলিয়াস খান তিনজনকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা ঠিকাদার শাহিদুর রহমান মিন্টুকে হামলার কথা স্বীকার করেছেন। একই সঙ্গে হামলার হুকুমদাতা হিসেবে স্থানীয় দুই রাজনৈতিক নেতাসহ কয়েকজনের নাম বলেছেন।

এ বিষয়ে মামলা হওয়ার পর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। র‌্যাব জানায়, ভয়ে নির্যাতনের শিকার ঠিকাদার শাহিদুর রহমান মিন্টু প্রথমে মামলা করতে রাজি হয়নি। পরে অভয় দেওয়ায় তিনি এ ঘটনায় থানায় মামলা করেন।

কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাব্বিরুল আলম জানান, ঠিকাদারকে নির্যাতনের ঘটনায় কুষ্টিয়া মডেল থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। প্রসঙ্গত, সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কুষ্টিয়া এলজিইডি অফিসের সামনেই প্রকাশ্য দিবালোকে ঠিকাদার শাহিদুর রহমান মিন্টুকে (৪৮) একদল সন্ত্রাসী হাতুড়িপেটা করে। এই দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সমালোচনার ঝড় ওঠে। নির্যাতনের শিকার ওই ঠিকাদার শাহিদুর রহমান মিন্টু (৪৮) কুমারখালী উপজেলার চাপড়া ইউনিয়নের শানপুকুড়িয়া গ্রামের আহম্মদ আলীর ছেলে। তিনি শহরের পুলিশ লাইনসের সামনে ভাড়া থাকেন। ঠিকাদার শাহিদুর রহমান মিন্টু জানান, দীর্ঘদিন ধরে তিনি ঠিকাদারি করে আসছেন। এলজিইডি, সড়ক ও জনপথ বিভাগ, পানি উন্নয়ন বোর্ড, বিএডিসিসহ প্রায় সব দফতরেরই তার নিজ নামে লাইসেন্স রয়েছে। হামলার কারণ হিসেবে তিনি জানান, কুষ্টিয়া এলজিইডির অধীনে প্রায় ৭ কোটি টাকার মিরপুর সড়কের ঘোড়ামারা আরএসডি হতে পোড়াদহ জিসি ভায়া মসেন রোডের দরপত্র দাখিলের শেষ তারিখ ছিল চলতি বছরের ৩ মার্চ। কাজটি তিনি না পেলেও দরপত্র দাখিল করার পর থেকেই কুষ্টিয়ার প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা একজন ঠিকাদার তাকে মুঠোফোনে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে আসছিলেন। হুমকির কারণে তিনি গত তিন মাস ধরে মিরপুর উপজেলার কুর্শা মসজিদ হতে সুতাইল জোড়া ব্রিজ রোড পর্যন্ত এলজিইডির প্রায় ১ কোটি টাকার রাস্তার কাজ শুরু করতে পারছেন না বলেও জানান।