Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ২৪ এপ্রিল, ২০১৯ ১৩:৫৯
আপডেট : ২৪ এপ্রিল, ২০১৯ ১৪:০১

একটি প্রশ্নপত্র ও গণমাধ্যমের ভূমিকা

রাশেক রহমান

একটি প্রশ্নপত্র ও গণমাধ্যমের ভূমিকা

সম্প্রতি দেখলাম ঢাকা শহরের একটি স্কুলের প্রশ্নপত্রে মিয়া খলিফা ও সানি লিওন নামে দু’জনের নাম এসেছে। সেই ঘটনার খবর দেখলাম গণমাধ্যমে। কিছু গণমাধ্যমে এসেছে ছবিসহ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এটা নিয়ে আলোচনা হওয়াটা স্বাভাবিক। কিন্তু এভাবে গণমাধ্যমে আসাকে আমি সঠিক বলে মনে করি না। কারণ বিচ্ছিন্নভাবে ঘটে যাওয়া একটি ঘটনা জানার পর তা শিক্ষামন্ত্রী বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানালে সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া যেতো।  দেশের নাগরিক হিসেবেই সেটি আমাদের দায়িত্ব।

কিন্তু সেটি না করে বিষয়টি দেশের ১৭ কোটি মানুষের সামনে নিয়ে আসায় সবাই আজ মিয়া খলিফা ও সানি লিওনের ব্যাপারে জেনে গেছে। তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির যে শিক্ষার্থী হয়তো খেলার খবর জানার জন্য পত্রিকার পাতা উল্টাতো, সেও আজ তাদের ব্যাপারে জানতে পারছে, যেমন জানতে পারছে দেশের সব মানুষ। যারা তাদের চিনতো না, তারাও এখন গুগল সার্চ দিয়ে তাদের সম্পর্কে জেনে যাচ্ছে। শুধু তাই নয়, কোনো পাবলিক পরীক্ষায় এমন প্রশ্ন হলে কথা ছিল। তখন গণমাধ্যমে এলেও তা নিয়ে আপত্তি থাকতো না। কিন্তু কোনো এক স্কুলের শিক্ষকের এমন ভুল নিয়ে পুরো বিষয়টি গণমাধ্যমে উপস্থাপন আমার কাছে অন্যায় মনে হয়েছে।

‘এক ছাত্রের খসড়া প্রশ্নের সঙ্গে ভুল হয়ে ছাপা হয়ে গেছে। দয়া করে এটিকে খবর বানাবেন না,’— শিক্ষকের এমন উত্তর দেখতে পেলাম গণমাধ্যমে। আমি মনে করি, এ ঘটনার পর ওই শিক্ষক প্রশ্নপত্র তৈরির নৈতিকতা হারিয়েছেন। আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি, ওই শিক্ষক যদি তার কোনো ছাত্রকে দিয়ে প্রশ্নপত্র তৈরি করিয়েও থাকেন, তখন তার শিক্ষক পদে থাকার কোনো অধিকার থাকে না। তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।

এ ঘটনা থেকে আমরা যেটা বুঝি তা হলো—শিক্ষক হওয়ার জন্য যতটা জাগরণ বোধ দরকার, সেটি আসলে এখনো আমাদের এখানে তৈরি হয়নি। ঠিক একইভাবে সমাজ, জাতি বা রাষ্ট্র হয়তো শিক্ষককে সেই সম্মানের স্থানে রাখতে পারছেন না, যেখানে তিনি দায়িত্ববোধের গুরুত্ব অনুভব করবেন।

দুঃখজনক হলেও সত্য, আমাদের এখনে এমন অনেক ঘটনা এখনো শোনা যায় যে স্কুলের গভর্নিং বডি অনৈতিকভাবে উৎকোচ গ্রহণ করার মধ্য দিয়ে অনুপযোগী ও অনুপযুক্ত শিক্ষকের নিয়োগ দেন। এ ক্ষেত্রে এমন ঘটনাগুলো পুরো বাংলাদেশে পর্যবেক্ষণের আওতায় আনা খুবই কষ্টসাধ্য ব্যাপার। কিন্তু যেটা করা যেতে পারে সেটাও আমরা করছি না এখনো। যারা শিক্ষকতার মতো মহান পেশাতে আগ্রহী, তাদের সব বিষয়ে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দেওয়া দরকার আগে। এরপরে পাবলিক সার্ভিস কমিশনের আওতায় যোগ্যতা প্রমাণ দিয়ে যদি শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে আসা যেতো, তবে হয়তো উপকার পাওয়া যেতে পারে।

বঙ্গবন্ধু একটি জ্ঞাননির্ভর সমাজ গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন। কিন্তু জ্ঞাননির্ভর না হয়ে যখন কোনো শিক্ষার্থী কেবল পরীক্ষায় পাস করার জন্য পড়ালেখা করে, সেই পরীক্ষা আমাদের সমাজের বা দেশের উন্নতি আনতে পারে না। জ্ঞাননির্ভর না হওয়ার কারণে শিক্ষার্থীদের জ্ঞান অর্জন করাটা সম্পূর্ণ ক্লাস বা বোর্ডের পরীক্ষাভিত্তিক হয়ে গেছে। সমাজের প্রতিটি স্তরে যদি জ্ঞানের চর্চা না ঘটে, তবে পরীক্ষানির্ভর শিক্ষা কখনোই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন পূরণ করতে পারবে না।

জ্ঞাননির্ভর শিক্ষা বলতে কী বোঝাতে চাচ্ছি, সেটা নিয়ে কেউ কেউ প্রশ্ন তুলতে পারে। আমরা বলছি প্রশ্নপত্রে সৃজনশীলতার কথা। কিন্তু সেটা শিক্ষার মধ্যে আছে কি না, সেটিও ভাবার বিষয়। যে বয়সে শিক্ষাগ্রহণকে শিক্ষার্থীর কাছে আগ্রহী করে তোলার কথা, সেই বয়সীদের মধ্যে কি সেই আগ্রহ তৈরি করতে পারছি আমরা? যোগ, বিয়োগ, গুণ, ভাগ দিয়ে স্কুল জীবনের শুরু থেকেই মুখস্থ বিদ্যা শেখানো হচ্ছে। আদৌ এটা কতটুকু সঠিক? মাঝে মধ্যে কাউকে যখন প্রশ্ন করি, গুণ মানে কী বলুন তো? তখন অনেকেই নিশ্চুপ হয়ে থাকেন। কেউ কেউ বলেন এক সংখ্যা দিয়ে আরেক সংখ্যাকে গুণ করা। যেমন— ২*২ = ৪ বা ২*৩ = ৬, মানে মুখস্থ বিদ্যাকেই অগ্রাধিকার দেওয়া। অথচ গুণ মানে যদি শিক্ষার্থীকে বলা হতো বহু যোগের সমষ্টি, যেমন— ২+২ = ৪ বা ২+২+২ = ৬, তবে শিক্ষার্থী খুব সহজেই সেটা গ্রহণ করে মনে রাখতে পারত মুখস্থ না করেই।

এভাবে যদি কোনো শিক্ষার্থীকে অল্প বয়সের শিক্ষা দিয়ে গড়ে না তোলা যায়, তাহলে গণিত নিয়ে তার ভয়টা ভাঙবে কীভাবে? কিভাবে দেশ পাবে গণিতবিদ? এমসিকিউ পরীক্ষা দিয়ে জিপিএ ফাইভ পাওয়াই যদি তার লক্ষ্য হিসেবে নির্ধারণ করে দেওয়া হয়, তাহলে পরীক্ষার ফল খারাপ হলে বা পাসের হার কম হলে সে তো রাস্তায় নামবেই। তাদের অভিভাবকদের হয়তো অনেকেই জানেন না, স্কুলে তাদের কী শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে।

আগে আমাদের শেখানো হতো—গুরুজনে সম্মান করো, সদা সত্য কথা বলিব, মিথ্যা কথা বলিব না। আমাদের সময় স্কুলে শেখানো হয়েছিল— রাস্তা পার হওয়ার সময়ে আগে ডানে দেখতে হবে ও এর পরে বামে দেখতে হবে। এগুলো যখন ছোট বয়স থেকেই শেখানো হয়, তখন জ্ঞানের চর্চাটা শিশুকাল থেকে বেড়ে ওঠে। এই শিক্ষা কিন্তু একজন শিক্ষার্থী জীবনের প্রতিটি স্তরে মনে রাখে। আর এভাবেই ঘটে জ্ঞানের চর্চা।

কিন্তু এখন কী ঘটছে? ফিরে আসি সেই প্রশ্নপত্রের ঘটনায়। হয়তো দেখা যাবে, সেই শিক্ষক তার দায়িত্ববোধের গুরুত্ব বুঝতেই পারেননি। শিক্ষামন্ত্রীও বলেছেন, ‘বিষয়টি অনাকাঙ্ক্ষিত। সরকার বিষয়টি খতিয়ে দেখবে এবং দায়ীদের বিষয়ে ব্যবস্থা নেবে।’ তিনি চাইলেই আরেকটি প্রশ্ন এখানে তুলতে পারতেন। শিক্ষক যে ভুল করেছে, সেটা প্রকাশ করতে গিয়ে গণমাধ্যমে ছবিসহ খবর করা কতটুকু যুক্তিযুক্ত— তা প্রশ্ন করতে পারতেন শিক্ষামন্ত্রীর।

পাবলিক পরীক্ষার ঘটনা হলে অবশ্যই সেটি গণমাধ্যমে আনা দরকার ছিল বলে আমি মনে করি। কিন্তু একটি অখ্যাত স্কুলের শিক্ষকের এমন ভুলকে শিক্ষামন্ত্রী বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে ছবিসহ গণমাধ্যমে খবর ছাপানোকে আমি দায়িত্বশীল সাংবাদিকতা মনে করি না। এর মাধ্যমে বরং ওই দুই ব্যক্তিকে বাকি সবার সঙ্গে পরিচিত করানোর সুযোগ করে দেওয়া হলো।

আমাদের সবার সংকল্প করা উচিত— ভবিষ্যতে এমন সংবাদ করা যা শিক্ষার্থীদের নেতিবাচক কিছুর দিকে ঝুঁকতে সাহায্য করবে না। একবার ভাবুন তো, যে ভুল সেই শিক্ষক করেছেন, ছবি দিয়ে বা নাম হাইলাইট করে শিরোনাম দিয়ে সেই ভুল তো গণমাধ্যমও করেছে! যে শিরোনাম নেতিবাচক বিষয়ে কাউকে আগ্রহী করতে পারে, সে শিরোনাম কার জন্য?

লেখক: রাজনীতিবিদ

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য