শিরোনাম
প্রকাশ : ১২ মার্চ, ২০২১ ০৮:৫৩
আপডেট : ১২ মার্চ, ২০২১ ১০:৩২
প্রিন্ট করুন printer

তবে স্বপ্নটাই হয়তো মানুষের বেঁচে উঠার শক্তি

অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী

তবে স্বপ্নটাই হয়তো মানুষের বেঁচে উঠার শক্তি
অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী

স্বপ্ন দেখাটা যত বড় তার থেকেও বড় স্বপ্ন  দেখানো। সব মানুষ স্বপ্ন দেখতে পারেনা, অন্যকে দেখাতেও পারেনা। তবে কেউ কেউ পারে। যারা দু'টোই পারে তারাই পৃথিবী বদলে দেয়। ইতিহাসের গতানুগতিক ধারা বদলে দিয়ে ইতিহাসকে নতুন করে লিখে। স্বপ্ন বড় না মানুষ বড়। খুব কঠিন একটা দর্শন। তবে দর্শন যেমন স্বপ্ন হয়, স্বপ্নও তেমনি দর্শন হয়। মানুষ যেমন দর্শন হয়, দর্শনও তেমনি মানুষ হয়। 

তবে কোথায় যেন একটা অদেখা শুন্যতা সবকিছুকে তুচ্ছ করে স্বপ্নের সমীকরণটা মেলানোর যুদ্ধে নামে। অনেকটা হেলাল হাফিজের এখন যৌবন যার যুদ্ধে যাবার তার শ্রেষ্ঠ সময়ের মতো। একটা কাল্পনিক ঘটনার কথা ভাবা যেতে পারে। একটা মানুষ স্বপ্নের পিছনে ছুটছে আর স্বপ্ন মানুষটার পিছনে ছুটছে। কিন্তু কেউ কাউকে ধরতে পারছেনা। বরং যদি মানুষটা দৌড়ানো অবস্থায় মাঝখানে থাকে তবে দেখা যাবে দু'পাশের স্বপ্নের সাথে মানুষটার ব্যবধান বাড়ছে তো বাড়ছেই। 

এমনটা ঘটার কি কারণ থাকতে পারে? সেটা ব্যাখ্যা করতে গিয়ে মনে হচ্ছে মানুষটার পিছনে তার যা স্বপ্ন হওয়া উচিত সেগুলো ছুটছে কিন্তু মানুষটার যেগুলো স্বপ্ন নয় মানুষটা সেগুলোর পিছনে ছুটছে। তাহলে মানুষকে তার স্বপ্নকে চিনতে হবে। তার নিজের স্বপ্নকে জানতে হবে। মানুষ যদি তার নিজের স্বপ্নকে চিনতে ও জানতে পারে তবেই স্বপ্নকে সার্থক ও সফল করার সম্ভাবনা বাড়বে।

আনসার্টেনিটি বা অনিশ্চয়তা যতটুকু সেখানে থাকবে তা পূরণ করার চেষ্টা মানুষকে করতে হবে। এখন মনে হচ্ছে মানুষ আর স্বপ্নের মধ্যে গাণিতিক একটা সম্পর্ক হয়তো তৈরি করা যাবে। থিওরি অফ রিলেটিভিটির একটা ধারণাও এর সাথে যুক্ত করা যেতে পারে। কোয়ান্টাম মেকানিক্সের থিওরি বলছে, মানুষের আশেপাশের পৃথিবী মানুষের তৈরি করা পৃথিবী। মানুষ তা দেখছে বলেই মানুষের  পৃথিবীর অস্তিত্ব আছে। এভাবেই স্বপ্ন মানুষের গড়া এক একটা পৃথিবী হয়ে যায়। একটা একটা অদৃশ্যমান অস্তিত্ব ক্রমাগত নিজেকে গড়তে গড়তে একদিন দৃশ্যমান অস্তিত্বে পরিণত হয়। 

মেসোপটেমিয়ান এবং ব্যবিলনিয়ানরা বিশ্বাস করতেন, ঘুমের সময় আমাদের খণ্ডিত আত্মা শরীর থেকে বের হয়ে এসে আমাদের সামগ্রিক আত্মার সাথে যুক্ত হয় এবং স্বপ্নই আমাদের ঈশ্বরের সাথে যুক্ত হবার রাস্তা দেখায়। গ্রিকরা বিশ্বাস করতেন, ঘুমের সময় শরীর থেকে আত্মা বের হয়ে যায় এবং স্বপ্নের মাধ্যমে দেবতা বা দানবরা মানুষের কাছে তাদের বার্তা পাঠান। স্বপ্নের সাথে মানুষের  আত্মার কোরিলেশন তৈরির ধারণাটা অনেক পুরাতন হলেও তা একদম ফেলে দেবার মতো নয়। এখানে প্রমাণের চেয়ে বেশি কাজ করেছে মানুষের বিশ্বাস। তবে যেটাই হোক না কেন মানুষের আত্মা যদি বিশুদ্ধ হয় তখন সেখানে বিশুদ্ধ চিন্তাকে আধিপত্য বাড়ে। হয়তো সেখান থেকে শুভ স্বপ্নরা মানুষের ভালোত্বকে আঁকড়ে ধরে জন্ম নেয়। সে চিন্তা ও আত্মায় যদি বিশুদ্ধতা না থাকে তবে মানুষ যেটা দেখে সেটা স্বপ্ন নয় বরং তা মানুষের ভিতরের পঙ্কিলতা। কিংবা মানুষের মনের ভঙ্গুরতা। 

সুফি কবি রুমি লিখেছিলেন, "এই পৃথিবীটা হল একটা স্বপ্ন, শুধু একজন ঘুমন্ত ব্যক্তিই একে বাস্তব মনে করে। এরপর ভোরের মত করে মৃত্যু আসে, আর যা কিছুকে দুঃখ বা কষ্ট বলে ভাবতে- তা নিয়ে হাসতে হাসতে তুমি জেগে ওঠো।" হয়তো এটাই মানুষের স্বপ্নের দর্শন। ঘুম যদি খণ্ডিত মৃত্যু হয়, তবে স্বপ্নটাই  হয়তো মানুষের বেঁচে উঠার শক্তি। মানুষ দিনের পর দিন স্বপ্ন দেখে, রাতের পর রাত স্বপ্ন দেখে। একটা ঘুমের জড়তায় চোখ বুজে থাকা স্বপ্ন। সে স্বপ্নের অনেকগুলোই মানুষ ভুলে যায়। হয়তো মানুষের মাথা বিবেকের সাথে হেরে গিয়ে সেটা মনে রাখতে চায়না। 

যেমন- মানুষ নিজে মন্দ হলেও মন্দ বলে নিজেকে স্বীকার করতে চায়না। তবে বিবেকটা তখন বাঘ হয় আর মানুষকে তার শিকারে পরিণত করে। সব কিছুই যে অংকের খেলা, মানুষ না চাইলেও  অমিলের মধ্যেও মিলনের সমীকরণ গড়তে হয়। আরেকটা অন্যরকম স্বপ্ন, যেটা মানুষকে তার লক্ষ্য অর্জনের পথে এগিয়ে দেয়। মানুষকে ঘুমোতে দেয়না। যেমন- ঘুমোতে দেয়না কৃষকের ফসল তোলার আনন্দ। একটা নামহীন শ্রমিকের ঘাম ঝরা শরীরের আনন্দ। স্বপ্নে আমি কে? আমার বন্ধু ? নাকি আমার প্রতিপক্ষ। খুব কঠিন দর্শন না মনস্তত্ব নাকি অলৌকিকত্ব। সেটা ভাববে গবেষকরা, মনোস্তত্ববিদ ও দার্শনিকরা।

যেমন- গবেষকরা ভেবেছেন মেমরি কনসোলিডেশান থিওরির কথা। এই থিওরি বলছে আমরা প্রাত্যহিক জীবনে যা শিখছি সেটা মেমোরিতে ধরে রাখতেই স্বপ্ন দেখি। গবেষকরা লুসিড ড্রিমিং এর কথা বলেছেন। খুব বিস্ময়কর একটা বিষয় যেখানে মানুষ ঘুমিয়েও আছে, আবার ঘুমের মধ্যে জেগেও আছে। হয়তো এমনটাই এখন জীবন হয়ে গেছে। যেখানে জীবন বেঁচে থেকেও মৃত মানুষের মতো স্বপ্নকে হারিয়ে ফেলছে। স্বপ্নদের এখন খুব দুর্দিন চলছে। কারণ মানুষ স্বপ্ন দেখা ভুলে যাচ্ছে। স্বপ্ন তো এমনটা চায়নি বোধ হয় কোনোদিন। 

মানুষের চোখ এখন শুকুনির চোখ হয়েছে। যে চোখে স্বপ্ন নেই, আত্মহনন আছে। আত্মঘাতী লুটেরা মনের ব্যবচ্ছেদ আছে। মানুষ কখনো তার নিজের স্বপ্নের প্রতিপক্ষ হচ্ছে। আবার কখনো অন্যের স্বপ্নের প্রতিপক্ষ হচ্ছে। এমনটাতো আমরা কেউ চাইনি কখনো। স্বপ্নের পোস্টমর্টেম হচ্ছে প্রতিদিন। মানুষ নিজে তো  কাঁদতে ভুলেই গেছে। স্বপ্নরাও যে কাঁদে মানুষের কানে তা কখনো পৌঁছায় না। তারপরও স্বপ্ন চোখ হোক। স্বপ্ন মন হোক। স্বপ্ন আত্মার আহবান হোক। ঘুমগুলো হালকা বাতাসে ভেসে যাক দিগন্ত থেকে দিগন্তে। সূর্য্য উঠুক আলো ঝলমলিয়ে। সে আলোয় মানুষ নিজে স্বপ্ন দেখুক, অন্যকে দেখাক। কারণ মানুষ বয়সের ভারে নুয়ে পড়ে একদিন না ফেরার দেশে চলে যায় কিন্তু স্বপ্নরা বেঁচে থাকে অনন্তকাল।

 

বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর