শিরোনাম
প্রকাশ : ২৪ মে, ২০২০ ১০:৪৯
আপডেট : ২৪ মে, ২০২০ ১৫:০৭

ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত সহকর্মীর পাশে নিউইয়র্ক পুলিশে বাংলাদেশি কর্মকর্তারা

যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি:

ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত সহকর্মীর পাশে নিউইয়র্ক পুলিশে বাংলাদেশি কর্মকর্তারা

করোনা মহামারির মধ্যেই ব্রেন টিউমারে বিপর্যস্ত নিউইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্টে ট্রাফিক এনফোর্সমেন্ট এজেন্ট তানিন হানিফের পাশে দাঁড়িয়েছে ‘বাপা’ (বাংলাদেশী আমেরিকান পুলিশ এসোসিয়েশন)। সংগঠনটি এককালিন অনুদান হিসেবে ২১৬০০ ডলার প্রদান করেছে। 

শনিবার অপরাহ্ন সাড়ে ৩টায় জ্যামাইকায় একটি অডিটোরিয়ামে ‘সামাজিক দূরত্ব’ বজায় রেখে অনাড়ম্বর এক অনুষ্ঠানে এই চেক হস্তান্তর করেন বাপার প্রেসিডেন্ট ক্যাপ্টেন করম চৌধুরী এবং জেনারেল সেক্রেটারি এ কে এম আলম। এ সময় সেখানে আরো ছিলেন বাপার জ্যেষ্ঠ ভাইস প্রেসিডেন্ট এরশাদ সিদ্দিকী, ভাইস প্রেসিডেন্ট মহিউদ্দিন আহমেদ, ট্রেজার রাশেখ মালিক, ইভেন্ট কো-অডিনেটর সর্দার আল মামুন, কো-ট্রেজারার মেহদী মামুন, কন্সাল্টিং সেক্রেটারি সাঈদ আলী প্রমুখ। 

করোনা তাণ্ডবের আগে ফেনীর সন্তান তানিন হানিফ (৩৩) ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত হন। সে সময় তাকে লং আইল্যান্ড জুইশ হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে টিউমার অপসারণ করা হলেও মাসখানেক পর সংশ্লিষ্ট হাসপাতালে ফলোআপের জন্যে গেলে দেখা যায় যে, ঠিকমত অপসারণ না হওয়ায় পুনরায় তা আরো বড় আকার ধারণ করেছে। এ অবস্থায় চিকিৎসকরা খুব দ্রুত অস্ত্রোপচারের পরামর্শ দেন। সেটি ছিল এপ্রিলের মাঝামাঝি অর্থাৎ করোনা মহামারির চরম পর্যায়। তাই কোন হাসপাতালেই করোনা রোগী ব্যতিত অন্য কোন রোগির চিকিৎসা করা হচ্ছিল না। অথচ হানিফের দ্রুত অস্ত্রোপচার করা না হলে তাকে বাঁচানো সম্ভব নয় বলে চিকিৎসকরা উল্লেখ করেছিলেন। এ অবস্থায় বাপার সদস্যরা কিংকতব্যবিমূঢ় হয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে তারা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে কনভিন্স করতে সক্ষম হন মানবিক কারণে। 

বাপার ইভেন্ট কো-অর্ডিনেটর সর্দার আল মামুন এ প্রসঙ্গে এ সংবাদদাতাকে জানান, দীর্ঘ ১২ ঘণ্টার অস্ত্রোপচারে টিউমারটি পুরোপুরি অপসারণ করা সম্ভব হয়েছে। নিউইয়র্ক পুলিশের অফিসার মামুন আরো জানান, তানিন হানিফের চাকরি খুবই নতুন হওয়ায় চিকিৎসার জন্যে ছুটিতে থাকাকালিন কোন বেতন পাচ্ছিলেন না। তাই বাপার নেতৃবৃন্দ পুলিশ কমিশনার ডারমট এফ শিয়ার সাথে দেন-দরবারের মাধ্যমে চিকিৎসাকালিন পুরো সময়ে পূর্ণ বেতন পাবার পথ সুগম করেছেন। এজন্যে তানিম হানিফ বাপার প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। এ সময় তার স্ত্রী ইশরাক জাহান পলি সেখানে ছিলেন। সর্দার আল মামুন আরো জানান, চিকিৎসার শুরুতেও বাপার পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিকভাবে নগদ ৩ হাজার ডলার প্রদান করা হয় তানিন হানিফকে। 

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর